বাণিজ্য সংবাদ

জয়পুরহাটে চামড়া বাজারে ধস মৌসুমি ব্যবসায়ীরা দিশাহারা

মো. শামীম কাদির, জয়পুরহাট: জয়পুরহাটে কোরবানির পশুর চামড়ার বাজারে ধস নেমেছে। স্থানীয় বাজারে গতবারের চেয়ে চার ভাগের এক ভাগ দামে চামড়া বিক্রি করতে হয়েছে মৌসুমি ব্যবসায়ীদের। অনেক জায়গায় চামড়া কম দামেও বিক্রি না হওয়ায় মাটিতে পুঁতে রাখতে হয়েছে। চামড়া বাজারে এ ধসের শিকার মধ্যস্বত্বভোগী ও মৌসুমি ব্যবসায়ীরা দিশেহারা। আর যেসব হতদরিদ্র মানুষ কোরবানির চামড়া বিক্রির টাকা থেকে একটা অংশ পেয়ে থাকে প্রতি বছর, এবার তাদের ভাগ্যেও জুটবে না কাক্সিক্ষত অর্থ।
জানা গেছে, বিগত বছরগুলোতে জেলায় বিভিন্ন বাজারে প্রতিটি ছাগলের চামড়া বিক্রি হয়েছে ৪০০-৫০০ টাকা। এবার তার আকারভেদে দাম ৭০-৮০ থেকে ১৫০-২০০ টাকা। প্রতিটি গরু চামড়া বিক্রি হয়েছিল এক হাজার থেকে দেড় হাজার টাকায়, এবার তা ১৫০ থেকে ২৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।
সদর উপজেলার হেলকুণ্ডা গ্রামের আনিছুর রহমান, কালাই উপজেলার হাতিয়ার গ্রামের গোলাম রব্বানী, ক্ষেতলাল উপজেলার দাশড়া গ্রামের হানিফ হোসেনসহ জেলার বিভিন্ন এলাকার কোরবানিদাতারা জানান বিগত ১৫ বছরের চামড়ার এমন মন্দা বাজার
দেখেননি তারা।
চামড়ার বাজার ধসের কারণে লোকসানের শিকার হলেন জেলার প্রায় সব মৌসুমি ব্যবসায়ী। জয়পুরহাট জেলা শহরের নতুনহাট এলাকার ইদ্রিস আলী, জামালগঞ্জ বাজারের মতিউর রহমানসহ মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ীরা জানান, কোরবানির চামড়ার এ আকস্মিক দরপতনে দিশেহারা মধ্যস্বত্বভোগী চামড়া ব্যবসায়ীরা। তারা প্রতি বছর কোরবানির সময় দু-এক দিনের এ ব্যবসায় টাকা খাটিয়ে ভালো লাভ করতেন। তবে এবারের দরপতনে লোকসান গুনতে হচ্ছে তাদের।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেক ফড়িয়া জানান, সীমান্তে কড়াকড়ি না থাকলে তারা ওপারে চামড়া পাঠিয়ে কিছু লাভের মুখ দেখতেন। এবার সেটিও হচ্ছে না।
পুঁজি সংকট, ট্যানারি মালিকদের কাছে বকেয়া পাওনা ইত্যাদি কারণে চামড়ার দাম পড়েছে বলে মনে স্থানীয় চামড়া ব্যবসায়ীরা।
জয়পুরহাট শহরের চামড়া ব্যবসায়ী আলতাফ হোসেন বলেন, ট্যানারি মালিকদের কাছে বকেয়া পাওনা রয়েছে লাখ লাখ টাকা। হাতে টাকা না থাকায় তারা কাক্সিক্ষত পরিমাণে চামড়া কিনতে পারছেন না। ফলে বাজারে চাহিদা কম থাকায় চামড়া মূল্য স্বাভাবিক কারণে কমে গেছে।
অন্যদিকে চামড়া পাচার রোধে সীমান্তে বিজিবির টহল বাড়ানো হয়েছে। এতে করে দেশের স্থানীয় বাজারে আপাতত চামড়া কেনাবেচা করতে হচ্ছে। ফলে চাহিদা খানিকটা কম হওয়ায় দরপতন ঘটছে বলে দাবি কয়েকজন ব্যবসায়ীর।
জয়পুরহাট-২০ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল রাশেদ মোহাম্মদ আনিসুল হক জানান, জয়পুরহাট-২০ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধীনে সীমান্তে এলাকা রয়েছে প্রায় সাড়ে ৪১ কিলোমিটার। এর মধ্যে ২২ কিলোমিটার এলাকা তারকাঁটার ঘেরা, বাকি ১৮ কিলোমিটার সীমান্তে তারকাঁটা নেই। চোরাকারবারিরা মূলত এ জায়গাটিকেই তাদের পাচারের পথ হিসেবে ব্যবহার করে থাকে। তাই এ জায়গাগুলো সব সময় নজরদারির মধ্যে রাখা হয়। চামড়া পাচার রোধে সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছেন তারা।
চামড়া শিল্পকে বাঁচাতে হলে রফতানি বাড়ানোর পাশাপাশি চামরা ব্যবসায়ী ও ট্যানারি মালিকদের সহজ শর্তে ঋণ সুবিধার দাবি জানিয়েছেন এ শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা।

সর্বশেষ..