দিনের খবর সারা বাংলা

ঝিকরগাছায় আমনের বাম্পার ফলন

মহসিন মিলন, বেনাপোল (যশোর): যশোরের ঝিকরগাছায় এবার আমন মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। সেই সঙ্গে ধান ও বিচালির দামও এবার ভালো। এজন্য আমন চাষে এবার খুশি কৃষকরা। উদয়-অস্ত কাজ করছেন তারা মাঠের ধান ঘরে তুলতে। তবু চোখে মুখে কষ্টের পরিবর্তে ফুটে উঠছে খুশির ঝিলিক।

নতুন ধান ওঠায় কৃষক-কৃষানিরা এখন ধান গোছানো নিয়ে মহাব্যস্ত। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মাঠে ধান কাটা, বাঁধা, বয়ে বাড়ি আনা, ঝাড়া ও পরিষ্কার করা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। কাজের ব্যস্ততায় তারা অনেকটা নাওয়া-খাওয়াও ভুলে গেছেন। তবু যেন কারও কষ্ট নেই। কৃষকরা ভোরে ঘুম থেকে উঠেই মাঠে চলে যাচ্ছেন। বাড়ির ছোট বাচ্চা বা কৃষানিরা মাঠে কৃষকের জন্য ভাত বয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। মাঠে বসে খেয়েই তারা আবারও কাজ শুরু করছেন।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল সাড়ে ১৮ হাজার হেক্টর জমিতে। সেখানে ধান চাষ হয়েছে প্রায় ১৯ হাজার হেক্টর জমিতে। এবার গত বছর থেকে ৩০০ হেক্টর জমিতে বেশি আমন ধান চাষ হয়েছে।

কৃষকরা জানান, ধানের দামের পাশাপাশি এবার বিচালির দামও ভালো। বিচালি বিঘাপ্রতি আট হাজার থেকে ১০ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ফলে মনের আনন্দে কাজ করছেন তারা। তারা বলেন, চলতি মৌসুমে আমন চাষ করে শুধু বিচালি বিক্রি করে তাদের খরচ উঠে যাবে। ধান-বিচালি বিক্রি করে করোনা মহামারির আর্থিক সংকট কাটিয়ে তারা ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন।

সাদিপুর বকুলতলা বাজারের ব্যবসায়ী নওশের আলী বলেন, চলতি মৌসুমে প্রায় সব ধরনের ধান হাজার টাকার উপরে বিক্রি হচ্ছে। গত বছরে যে ধান আমরা ৭০০ থেকে ৮০০ টাকায় কিনেছি, এবার সে ধান এক হাজার থেকে শুরু করে ১২০০ টাকায় কিনতে হচ্ছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..