টিকা নেয়া থাকলেও ১৩ দেশ থেকে আসা যাত্রীদের ‘কোয়ারেন্টাইন’ বাধ্যতামূলক

নিজস্ব প্রতিবেদক: কভিডের টিকার সম্পূর্ণ ডোজ নেয়া থাকলেও ১৩টি দেশ থেকে ফ্লাইটে আসা যাত্রীদের বাংলাদেশে প্রবেশের পর সাত দিনের কঠোর ‘হোম কোয়ারেন্টাইনে’ থাকতে হবে। অন্য দেশগুলো থেকে আসা যাত্রীদের কভিডের টিকার সম্পূর্ণ ডোজ নেয়া থাকলে তাদের কোয়ারেন্টাইন লাগবে না। তবে সবাইকে ভ্রমণের ১৪ দিন আগে টিকার ডোজ পূর্ণ (দুই ডোজ/প্রযোজ্য ক্ষেত্রে এক ডোজ) করতে হবে। গতকাল এক প্রজ্ঞাপনে আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে যাত্রী পরিবহনের বিষয়ে এ নিয়মের কথা জানিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

১৩টি দেশ হলো আর্মেনিয়া, বুলগেরিয়া, এস্তোনিয়া, জর্জিয়া, লাটভিয়া, লিথুয়ানিয়া, মালদোভা, মঙ্গোলিয়া, ফিলিস্তিন, রোমানিয়া, সার্বিয়া, স্লোভেনিয়া ও ইউক্রেন। এগুলোকে গ্রুপ এ হিসেবে চিহ্নিত করেছে বেবিচক।

এসব দেশ থেকে আসা যাত্রীদের মধ্যে যাদের পূর্ণ ডোজ টিকা নেয়া নেই, বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন সম্পন্ন হওয়ার পর পরীক্ষায় কভিড-১৯ ‘নেগেটিভ’ শনাক্ত হলেই শুধু তারা ছাড়া পাবেন।

১৩টি দেশের বাইরে অন্য দেশগুলো (বি গ্রুপ) থেকে আসা যাত্রীদের কভিডের টিকার সম্পূর্ণ ডোজ নেয়া থাকলে, তাদের কোয়ারেন্টাইন লাগবে না। আর টিকা নেয়া না থাকলে তাদের ১৪ দিনের ‘কঠোর হোম কোয়ারেন্টাইনে’ থাকতে হবে।

এসব দেশের যাত্রীরা এ গ্রুপভুক্ত দেশগুলোকে ‘ট্রানজিট’ হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। তবে তাদের এয়ারলাইনস কোম্পানির প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে সংশ্লিষ্ট বিমানবন্দরের মধ্যে আবদ্ধ থাকতে হবে।

টিকা নেয়া থাকুক বা না থাকুক, যে কোনো দেশ থেকে আসা যাত্রীদের বাংলাদেশে প্রবেশের সময় কভিড উপসর্গ দেখা দিলে, তাদের প্রথমে সরকার অনুমোদিত হাসপাতালে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে।

কভিড শনাক্ত হলে তাদের সাত দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হবে। আর কভিড শনাক্ত না হলে আরও সাত দিন পর আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করা হবে। তখন ফল নেগেটিভ হলে তারা ছাড়া পাবেন।

১৮ বছরের নিচে যারা টিকা নেননি, তারা টিকা নেয়া পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারবেন।

১২ বছরের বেশি বয়সীদের আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করা বাধ্যতামূলক, যেটা যাত্রার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে সম্পন্ন হতে হবে।

তবে বাংলাদেশ থেকে বিদেশগামী যাত্রীদের জন্য কোনো ধরনের বিধিনিষেধ নেই।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন   ❑ পড়েছেন  ৯০  জন  

সর্বশেষ..