প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

টি-টোয়েন্টিতেও হোয়াইটওয়াশ মাশরাফিরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক: আগের পাঁচটি ম্যাচের শুরুর মতো গতকালও সে একই গল্প! সম্ভাবনা জাগিয়েও তীরে তরী ভেড়ানো হলো না। সিরিজের তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২৭ রানের সঙ্গে সিরিজটাও বাংলাদেশ হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় নীল হলো। মানে ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর এবার ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের সিরিজেও ধবলধোলাই টাইগাররা। নিউজিল্যান্ড ৬: বাংলাদেশ ০!

মাউন্ট মঙ্গানুইয়ের আবহাওয়া অনেকটাই বাংলাদেশের মতো। উইকেটও ব্যাটিং সহায়ক। এসব জেনেও কেন জানি গতকাল টাইগার অধিনায়ক টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিলেন। তারপরও ম্যাশের সিদ্ধান্তটা ম্যাচের ১০ ওভার পর্যন্ত ঠিকই ছিল। এ সময় মাত্র ৫৫ রান সংগ্রহ করে নিউজিল্যান্ড। রুবেল হোসেনের বোলিং তোপে তখন স্বাগতিকরা হারিয়েছিল তিনটি উইকেটও। ঠিক এরকম একটা অবস্থা থেকে টাইগারদের কাছ থেকে ম্যাচ ছিনিয়ে নেন কোরি অ্যান্ডারসন নামের এক বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান। ৪১ বলে ১০ ছক্কা ও ২ চারে ৯৪ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। তাতেই নির্ধারিত ওভারে ৪ উইকেটে ১৯৪ রান করে নিউজিল্যান্ড।

চতুর্থ উইকেটে অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের সঙ্গে ৭২ বলে ১২৪ রানের জুটি গড়েন অ্যান্ডারসন। অবশ্য এ জুটির জন্য সাকিব আল হাসান-তামিম ইকবালদের অবদান কম নয়। দুজনই উইলিয়ামসনের সহজ ক্যাচ ফেলেছেন। সঙ্গে ম্যাচটাও। শেষ পর্যন্ত ৫৭ বলে ৬০ রান করে রুবেলের বলে সাজঘরে ফেরেন তিনি। কিন্তু ততক্ষণে যা হওয়ার তা হয়ে গিয়েছে।

গতকাল অবশ্য ফিল্ডিংয়ের সময় চোটে পড়ায় ইমরুলের জায়গায় ওপেন করেন সৌম্য সরকার। ব্যাটিংয়ে নেমে যথারীতি শুরুটা দারুণ করে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচের মতো এদিনও সৌম্য তার ব্যাটে আলো ছড়ালেন। তামিমের সঙ্গে উদ্বোধনী জুটিতে ৪.৪ ওভারেই ৪৪ রান যোগ করেন। এরপর তামিম বাজে শটে সাজঘরে ফিরেও সৌম্য ছিলেন দুর্দান্ত। সাব্বিরকে নিয়ে প্রতিপক্ষ বোলারদের বিপক্ষে একের পর এক দৃষ্টিনন্দন শট উপহার দিলেন। ৮.২ ওভারে দলের রানকে পৌঁছে দিলেন ৮২তে। এ সময় জয়ের সম্ভাবনা কিছুটা হলেও উঁকি দিয়েছিল টাইগার শিবিরে।

কিন্তু আগের পাঁচটি ম্যাচের মতো গতকালও টাইগারদের শেষটা হলো বিবর্ণ। ২৮ বলে ৪২ রানে ইশ সোধির বলে সৌম্য আউট হলে সফরকারীদের ইনিংস বেশ হিথু হয়ে পড়ে। সাব্বির রহমান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন কেউ নিজেদের মেলে ধরতে পারলেন না। স্বাগতিক স্পিনারের ঠিক সামলাতে না পেরে দ্রুতই ফিরে গেলেন সাজঘরে। এক প্রান্তে পরাজয়ের ব্যবধান কমালেন শুধু সাকিব আল হাসান। ৩৪ বলে ৪ চারে ৪১ রান করে শেষ ওভারে সাজঘরে ফেরেন তিনি। তাতেই ২৭ রানে হারের সঙ্গে টি-টোয়েন্টি সিরিজেও হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় পড়লো টিম বাংলাদেশ।

টি-টোয়েন্ট সিরিজে বাংলাদেশের প্রাপ্তি সৌম্য সরকারের ফর্মে ফেরা। এছাড়া প্রতিটি ম্যাচেই উন্নতির ছাপ রেখেছে টাইগাররা, যা নিয়েই টেস্ট সিরিজে মাঠে নামবে সফরকারীরা। তবে শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে মাশরাফি বিন মুর্তজা, ইমরুল কায়েস ও তামিম ইকবালের ইনজুরি কিছুটা দুচিন্তায় ফেলেছে টিম ম্যানেজমেন্টকে। যদিও টেস্টে ম্যাশ নেই।