আজকের পত্রিকা

ট্রাম্পের বাধায় আরও মৃত্যু হতে পারে: বাইডেন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: আগামী প্রশাসনের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সহায়তা না করলে করোনাভাইরাস মহামারিতে আরও বহু মার্কিন নাগরিকের মৃত্যু হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন জো বাইডেন। তিনি বলেছেন, ট্রাম্পের সহায়তা ছাড়া আগামীতে তার নেতৃত্বাধীন প্রশাসনের দ্রুত ভ্যাকসিন বিতরণের সক্ষমতা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। খবর: সিএনএন।

গত সোমবার ডেলাওয়ারে শ্রমিক ও ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাতের পর এক সংবাদ সম্মেলনে বাইডেন বলেন, ‘সমন্বয় না করলে আরও বহু মানুষের মৃত্যু হতে পারে।’ গত ৩ নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পরাজয় মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফলে বিজয় নিশ্চিত হওয়ার পরও বাইডেনের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের আইনগত প্রক্রিয়া এখনও শুরু করেননি ট্রাম্প নিযুক্ত দেশটির জেনারেল সার্ভিস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের প্রশাসক। এ প্রক্রিয়া শুরু হলে বাইডেন শিবির বাজেট, গোয়েন্দা প্রতিবেদন এবং কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলোর তথ্য পাওয়া শুরু করবে। তবে এখনও তার কিছুই শুরু না হওয়ায় আগামী ২০ জানুয়ারি নির্বিঘ্ন ক্ষমতা হস্তান্তর নিয়ে সন্দিহান হয়ে উঠেছেন অনেকেই।

গত সোমবার নিজের নির্বাচনী এলাকায় শ্রমিক ও ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাতের পর জো বাইডেন বলেন, এখনই কিংবা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সমন্বয় শুরু করা জরুরি। তিনি বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট অংশ নিলে এটা খুবই সহজ হয়ে উঠবে।’

ডেমোক্র্যাট দলের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হওয়া বাইডেন বলেন, ‘আশা করছি ২০ জানুয়ারি আসার আগেই প্রেসিডেন্ট আরও আলোকিত হয়ে উঠবেন।’ তিনি বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট এখনও গল্ফ খেলে চলেছেন আর কোনো কিছুই করছেন না। তার পরিকল্পনা আমার বোধগম্যতার বাইরে।’

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের মহামারিতে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃতের দেশ যুক্তরাষ্ট্র। এ মহামারিতে দেশটির দুই লাখ ৩০ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। তবে আশার কথা হলো গত সপ্তাহে মার্কিন ওষুধ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফাইজার জানায় তাদের উদ্ভাবিত ভ্যাকসিন ৯০ শতাংশ কার্যকর। আবার সোমবার আরেক প্রতিষ্ঠান মর্ডানা জানিয়েছে তাদের ভ্যাকসিন প্রায় ৯৫ শতাংশ কার্যকর।

যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবিত্ত ও নিম্ন আয়ের মানুষদের সুখবর দিয়েছেন নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি ক্ষমতা গ্রহণের পর দেশের ন্যূনতম মজুরির সীমা ঘণ্টায় ১৫ ডলারে উন্নীত করে আরও সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। ১৭ নভেম্বর এক টুইট বার্তায় জো বাইডেন বলেছেন, ক্ষমতা গ্রহণ করে দেশের ন্যূনতম মজুরির সীমা ১৫ ডলারের উন্নীত করার পাশাপাশি আরও সুযোগ-সুবিধা ও সম্মিলিত দর-কষাকষির অধিকার নিয়ে কাজ করব। যাতে আপনারা পরিবারকে আরেকটু বাড়তি সুবিধা দিতে পারেন। এতে দেশের মধ্যবিত্ত শ্রেণি আগের চেয়ে আরও ভালো অবস্থানে থাকবে।

জো বাইডেনের অর্থনৈতিক নীতিমালার সেøাগান হচ্ছে-‘বিল্ড ব্যাক বেটার’। নির্বাচনী প্রচারের সময় জো বাইডেন দেশের ন্যূনতম মজুরি ঘণ্টায় ১৫ ডলারে উন্নীত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এছাড়া করোনাভাইরাসের তাৎক্ষণিক ধাক্কা সামাল দিতে যত অর্থের প্রয়োজন তত অর্থ খরচ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এসবের মধ্যে রয়েছে ছোট খাটো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দেওয়া এবং পরিবারগুলোকে নগদ অর্থ সাহায্য প্রদান। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে সামাজিক নিরাপত্তা হিসেবে প্রতি মাসে তিনি আরও ২০০ ডলার করে দেওয়ার প্রস্তাবসহ শিক্ষার্থীদের ১০ হাজার ডলার ঋণ মওকুফের প্রস্তাব দিয়েছিলেন।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..