স্পোর্টস

ডাবল সেঞ্চুরিতে ইমরুলের জবাব

ক্রীড়া প্রতিবেদক: গত বছরের শেষদিকে জিম্বাবুয়ে ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুর্দান্ত খেললেও ইমরুল কায়েস উপেক্ষিত ছিলেন নিউজিল্যান্ড সিরিজে। তবে গেল আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে বিবেচনায় ছিলেন এ তারকা। কিন্তু এ বাঁহাতি ছেলের অসুস্থতার কারণে অঘোষিত ছুটিতে ছিলেন। এবার প্রায় দুই মাস পর জাতীয় লিগে খেলতে নেমে খুলনার হয়ে গতকাল দুর্দান্ত ডাবল সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন মেহেরপুরের এ ব্যাটসম্যান। তাতে নির্বাচকদের তিনি দিয়েছেন কড়া জবাব।

এবারের জাতীয় লিগে প্রথম সেঞ্চুরিয়ান ইমরুল। রংপুরের বিপক্ষে শেষ দিন সকালের সেশনে ইমরুল দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ফিফটি স্পর্শ করেন ১০৫ বলে। এরপর লাঞ্চের পর নাসির হোসেনকে চার হাঁকিয়ে পৌঁছে যান সেঞ্চুরিতে। ১৮৩ বলে ছুঁয়ে ফেলেন তিন অঙ্ক। পরে তার ব্যাট আরও চওড়া হয়। সেই ধারাবাহিকতায় খুলনার এ ক্রিকেটার ২৪৫ বলে পৌঁছে যান দেড়শ রানে। সেই ইনিংসকে তিনি ডাবলে রূপ দেন ৩১১ বলে। শেষ পর্যন্ত ৩১৯ বলে ১৯ চার ও ৪টি ছয়ে ২০২ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি।

শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে জাতীয় লিগের প্রথম স্তরে খুলনা-রংপুরের ম্যাচটি শেষ হয় ড্রয়ে। এ ম্যাচের নায়ক যে ইমরুলÑতা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

ইমরুল ডাবল সেঞ্চুরি পেলেও বড় ইনিংস খেলতে পারেননি তামিম ইকবাল। ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে গতকাল মিরপুরে এ বাঁহাতি আবারও মাহমুদউল্লাহর শিকারে পরিণত হন। ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ১১২ বলে ৪৬ রান। তার ইনিংসটিতে ছিল ৪টি চার ও ১ ছয়ের মার।

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ইমরুলের আগের ডাবল সেঞ্চুরি ছিল ২০১৪ সালে বিসিএলের ফাইনালে। মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে দক্ষিণাঞ্চলের হয়ে উত্তরাঞ্চলের বিপক্ষে ২০৪ রান করেছিলেন ২০ চার ও ৯ ছয়ে।

গতকাল দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে শেষদিনে তানভীর ইসলাম ও মনির হোসনের দারুণ বোলিংয়ে সিলেটকে ইনিংস ব্যবধানে হারিয়েছে বরিশাল। দ্বিতীয় ইনিংসে ১৩২ রানে অলক কাপালির দলকে থামিয়ে ইনিংস ও ১৩ রানে জেতে বরিশাল।

প্রথম ইনিংসে ২৪ রানে ৬ উইকেট নিয়ে সিলেটকে ৮৬ রানে গুটিয়ে দেওয়া রাব্বি জেতেন ম্যাচসেরার পুরস্কার। 

আগামী নভেম্বরে ভারতের মাটিতে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। তার আগে নির্বাচকরা দল নির্বাচনের জন্য চোখ রেখেছেন চলতি জাতীয় লিগে। নিশ্চয়ই এর মধ্যে তাদের নজরে পড়েছেন ডাবল সেঞ্চুরিয়ান ইমরুল।

সর্বশেষ..