ডিএসইতে গত সপ্তাহে দৈনিক গড় লেনদেন প্রায় ১৩ শতাংশ কমেছে

সপ্তাহের ব্যবধান

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহজুড়ে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে এবং সূচকের মিশ্র প্রবণতা দেখা গেছে; একইসঙ্গে দৈনিক গড় লেনদেন ১২ দশমিক ৭০ শতাংশ কমেছে। তবে গেল সপ্তাহের বাজার মূলধন বেড়েছে শূন্য দশমিক ৪৫ শতাংশ। আগের সপ্তাহে পাঁচ কার্যদিবস লেনদেন হয়েছে আর গত সপ্তাহেও পাঁচ কার্যদিবস লেনদেন হয়।

সাপ্তাহিক বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২২ দশমিক ২৯ পয়েন্ট বা শূন্য দশমিক ৩১ শতাংশ বেড়ে সাত হাজার ২৫০ দশমিক ৬০ পয়েন্টে স্থির হয়। ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক তিন দশমিক ৯৫ পয়েন্ট বা শূন্য দশমিক ২৫ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৫৮১ দশমিক শূন্য পাঁচ পয়েন্টে পৌঁছায়। অন্যদিকে ডিএস৩০ সূচক শূন্য দশমিক ৯৯ পয়েন্ট বা শূন্য দশমিক শূন্য চার শতাংশ কমে দুই হাজার ৬৭৩ দশমিক ৫৬ পয়েন্টে স্থির হয়। মোট ৩৮২টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৬২টির, কমেছে ১৯৮টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ১৮ কোম্পানির শেয়ারদর। লেনদেন হয়নি চারটির। দৈনিক গড় লেনদেন হয় এক হাজার ৯৪১ কোটি ৮৯ লাখ ৮৫ হাজার টাকা। আগের সপ্তাহে দৈনিক গড় লেনদেন হয় দুই হাজার ২২৪ কোটি ৪৭ লাখ ৮৯ হাজার টাকা। এক সপ্তাহের ব্যবধানে দৈনিক গড় লেনদেন কমেছে ১২ দশমিক ৭০ শতাংশ।

গেল সপ্তাহে ডিএসইতে মোট টার্নওভার বা লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ৯ হাজার ৭০৯ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে যা ছিল ১১ হাজার ১২২ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে টার্নওভার কমেছে, যা শতাংশের হিসেবে ১২ দশমিক ৭০ শতাংশ।

ডিএসইতে গত সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার বাজার মূলধন ছিল পাঁচ লাখ ৭৪ হাজার ৪৭৫ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। শেষ কার্যদিবসে যার পরিমাণ ছিল পাঁচ লাখ ৭৭ হাজার ৩৬ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে বাজার মূলধন বেড়েছে শূন্য দশমিক ৪৫ শতাংশ।

গত সপ্তাহে ডিএসইর টপটেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে প্যাসিফিক ডেনিমস লিমিটেড। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়েছে ২৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ। তালিকার দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ২০ দশমিক ৮০ শতাংশ। গত সপ্তাহে কোম্পানিটির প্রতিদিন গড় লেনদেন হয়েছে পাঁচ কোটি ৫২ লাখ ২১ হাজার ২০০ টাকার শেয়ার। সপ্তাহ শেষে মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ২৭ কোটি ৬১ লাখ ছয় হাজার টাকা। এর পরের অবস্থানগুলোয় থাকা যথাক্রমে আলিফ ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানি লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ১৯ দশমিক ৪৪ শতাংশ। বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ১৭ দশমিক ৮৭ শতাংশ। সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির প্রতিদিন গড় লেনদেন হয়েছে দুই কোটি ৩০ লাখ ১১ হাজার ৬০০ টাকার শেয়ার। পঞ্চম অবস্থানে থাকা কেডিএস অ্যাকসেসরিজ লিমিটেডের ১৭ দশমিক ২৫ শতাংশ বেড়েছে। গত সপ্তাহে কোম্পানিটির প্রতিদিন গড় লেনদেন হয়েছে ১৫ কোটি ৬৩ লাখ ৭৯ হাজার টাকার শেয়ার। সপ্তাহ শেষে মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ৭৮ কোটি ১৮ লাখ ৯৫ হাজার টাকা। ম্যাকসন্স স্পিনিং মিলস লিমিটেডের ১৬ দশমিক ৪৩ শতাংশ, ইভিন্স টেক্সটাইল লিমিটেডের ১৬ দশমিক ৩৮ শতাংশ, কাট্টলী টেক্সটাইল লিমিটেডের ১৬ দশমিক শূন্য তিন শতাংশ, আমরা টেকনোলজিস লিমিটেডের ১৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ এবং রূপালী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের ১৩ দশমিক ১৪ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে।

ডিএসইতে টার্নওভারের দিক থেকে শীর্ষে ছিল বাংলাদেশ এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট কোম্পানি লিমিটেড। সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির চার কোটি ৩৭ লাখ ৭২ হাজার ৩১৯টি শেয়ার ৫৯৬ কোটি ৭২ লাখ ৮৪ হাজার টাকায় লেনদেন হয়, যা মোট লেনদেনের ছয় দশমিক ১৫ শতাংশ। সপ্তাহজুড়ে শেয়ারটির দর শূন্য দশমিক ৫৯ শতাংশ বেড়েছে।

আর লেনদেনের এ তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে আসে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড। সপ্তাহজুড়ে ‘এ’ ক্যাটেগরির কোম্পানিটির এক কোটি ৩০ লাখ পাঁচ হাজার ৩৬৮টি শেয়ার ৩১৫ কোটি ৫৫ লাখ ৩৬ হাজার টাকায় লেনদেন হয়, যা মোট লেনদেনের তিন দশমিক ২৫ শতাংশ। সপ্তাহজুড়ে শেয়ারটির দর চার দশমিক শূন্য দুই শতাংশ বেড়েছে।

সর্বশেষ..