কোম্পানি সংবাদ

ডিএসইতে বেশিরভাগ শেয়ারদর কমলেও সূচক ঊর্ধ্বমুখী

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের প্রথম দিন গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন হলেও সূচক ইতিবাচক ছিল। তবে লেনদেন সামান্য কমেছে। গতকাল ৫১ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। দর বেড়েছে ৩৭ শতাংশের। লেনদেনের শুরুতে সূচকের ওঠানামা থাকলেও বেলা ১২টার দিকে সূচক টানা ঊর্ধ্বমুখী হতে থাকে। বেলা ১টার পর বিক্রির চাপ বাড়লে সূচক কিছুটা নেমে যায়। শেষ পর্যন্ত প্রধান সূচক ১১ পয়েন্ট ইতিবাচক থাকতে পেরেছে। চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বেশিরভাগ শেয়ারদর কমলেও সূচক ও লেনদেন বেড়েছে।          

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১১ দশমিক শূন্য ৯ পয়েন্ট বা দশমিক ২৩ শতাংশ বেড়ে চার হাজার ৭৮২ দশমিক শূন্য ৯ পয়েন্টে অবস্থান করে।

ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক পাঁচ দশমিক ১৭ পয়েন্ট বা দশমিক ৪৭ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৯৯ দশমিক ২০ পয়েন্টে অবস্থান করে। আর ডিএস৩০ সূচক ছয় দশমিক ৯৩ পয়েন্ট বা দশমিক ৪১ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৬৮৫ দশমিক ৯৫ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন এক হাজার ১৪০ কোটি ৯৫ লাখ টাকা বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৬০ হাজার ১৭৪ কোটি ৬৬ লাখ ৫৩ হাজার টাকায়। ডিএসইতে লেনদেন হয় ৩১২ কোটি ৬৩ লাখ ৪৮ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৩১৩ কোটি ১৪ লাখ ছয় হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন কমেছে ৫০ লাখ টাকা। এদিন ১০ কোটি ৪৭ লাখ ৩৭ হাজার ৮৮৯ শেয়ার ৯৯ হাজার ৫৩৮ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৫২ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১২৯টির, কমেছে ১৮০টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৪৩টির দর।

গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে ন্যাশনাল টিউবস। কোম্পানিটির ১৪ কোটি ৪৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে দুই টাকা ৩০ পয়সা। এরপর স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের ১১ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে সাড়ে ১২ টাকা। মুন্নু জুট স্টাফলার্সের আট কোটি ৭৩ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে ৮৭ টাকা ১০ পয়সা। প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের আট কোটি ৩৫ লাখ টাকা লেনদেন হয়; দর বেড়েছে ৯০ পয়সা। সামিট পাওয়ারের সাত কোটি ৮৭ লাখ টাকা লেনদেন হয়; দর কমেছে তিন টাকা। এছাড়া  সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্সের সাত কোটি ২৯ লাখ টাকা, অগ্রণী ইন্স্যুরেন্সের ছয় কোটি ৯২ লাখ টাকা লেনদেন হয়। সিলকো ফার্মার ছয় কোটি ২২ লাখ টাকার, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্সের পাঁচ কোটি ৭৮ লাখ টাকার, ইউনাইটেড পাওয়ারের পাঁচ কোটি ২৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।                     

১২ দশমিক ১৭ শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে মালেক স্পিনিং। অগ্রণী ইন্স্যুরেন্সের দর আট দশমিক ৪৫ শতাংশ, ফারইস্ট নিটিং অ্যান্ড ডায়িংয়ের ছয় দশমিক ৬৬ শতাংশ, আইসিবি এমপ্লয়িজ প্রভিডেন্ট মিউচুয়াল ফান্ডের পাঁচ দশমিক ৬০ শতাংশ, সিলকো ফার্মার পাঁচ দশমিক ৩০ শতাংশ, আইএফআইএল ইসলামিক মিউচুয়াল ফান্ড ওয়ানের পাঁচ দশমিক ১৭ শতাংশ, এসএস স্টিলের পাঁচ দশমিক ১০ শতাংশ, এমএল ডায়িংয়ের চার দশমিক ৮৪ শতাংশ, ওয়াটা  কেমিক্যালের চার দশমিক ৮১ শতাংশ এবং ভ্যানগার্ড এএমএল বিডি মিউচুয়াল ফান্ডের দর চার দশমিক ৫৪ শতাংশ বেড়েছে।        

আট দশমিক ৮৮ শতাংশ কমে দরপতনের শীর্ষে উঠে আসে আলহাজ্ব টেক্সটাইল। সামিট পাওয়ারের দর সাত দশমিক ৯৯ শতাংশ, জেনারেশন নেক্সটের সাত দশমিক ৮৯ শতাংশ, সিএপিএম বিডিবিএল মিউচুয়াল ফান্ডের ছয় দশমিক ৮১ শতাংশ, স্টাইল ক্রাফটের ছয় দশমিক ৫৮ শতাংশ, আরএন স্পিনিংয়ের ছয় দশমিক ৪৫ শতাংশ, নাহি অ্যালুমিনিয়াম ক্যাপিটালের ছয় দশমিক ৩৩ শতাংশ, খান ব্রাদার্স পিপির ছয় দশমিক ৩২ শতাংশ, মুন্নু জুট স্টাফলার্সের ছয় দশমিক ২৪ শতাংশ এবং কপারটেকের দর ছয় দশমিক ২২ শতাংশ কমেছে।                 

সিএসইতে গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ২৩ দশমিক ৫৬ পয়েন্ট বা দশমিক ২৬ শতাংশ বেড়ে আট হাজার ৮৪০ দশমিক ৪৭ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৩৪ দশমিক ৯০ পয়েন্ট বা দশমিক ২৪ শতাংশ বেড়ে ১৪ হাজার ৫৪২ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২৪৮ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার এবং ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০৪টির, কমেছে ১১৫টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২৯টির দর।

সিএসইতে এদিন ৫১ কোটি ৬০ লাখ ৭৫ হাজার ৮৬৩ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ১৮ কোটি ৫৫ লাখ ৪০ হাজার ৮৮০ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ৩৩ কোটি টাকা। সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংক। কোম্পানিটির ৩৫ কোটি ১৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। সিলকো ফার্মার তিন কোটি ৯১ লাখ টাকার, ডরিন পাওয়ারের দুই কোটি ৯ লাখ টাকার, যমুনা অয়েলের এক কোটি ২০ লাখ টাকার, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্সের ৬১ লাখ টাকার, মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্সের ৪২ লাখ টাকার, ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৩১ লাখ টাকার, এসএস স্টিলের ৩১ লাখ টাকার, এনবিএলের ৩০ লাখ টাকার, বিডিকমের ২৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

সর্বশেষ..