কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

ডিএসইতে বেশিরভাগ শেয়ারদর কমলেও সূচক ও লেনদেন ইতিবাচক

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের দ্বিতীয় দিনেও পুঁজিবাজারে ইতিবাচক গতিতে লেনদেন হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল ৪২ শতাংশ কোম্পানির দর বৃদ্ধি পায়। কমেছে ৪৫ শতাংশের দর। তা সত্ত্বেও ডিএসইএক্স সূচক ৫২ পয়েন্ট ঊর্ধ্বমুখী হয়। লেনদেন বেড়ে ৪৯৪ কোটি টাকা হয়েছে। শুরুতেই সূচক ঊর্ধ্বমুখী হলেও ১০ মিনিটের মধ্যে বিক্রির চাপ বাড়লে সূচক নেমে যায়। প্রথমার্ধে সূচক ওঠানামা করলেও শেষার্ধে কেনার চাপ ধীরে ধীরে বাড়লে সূচকও বাড়তে থাকে। চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক, শেয়ারদর ও লেনদেন ইতিবাচক ছিল।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৫২ দশমিক ১৭ পয়েন্ট বা এক দশমিক ১৯ শতাংশ বেড়ে চার হাজার ৪৩৪ দশমিক ২৪ পয়েন্টে অবস্থান করে।

ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক ১৭ দশমিক ৩৬ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৭৪ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ১৪ দশমিক ৯৫ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক ২৭ দশমিক ৬৩ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৮৫ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৫১৪ দশমিক ৮৮ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন চার হাজার ৫৫৯ কোটি টাকা বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৩৯ হাজার ১১৬ কোটি ২২ লাখ ৯৯ হাজার টাকায়। ডিএসইতে লেনদেন হয় ৪৯৪ কোটি ৭৯ লাখ ৮১ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৪১১ কোটি ৩৬ লাখ ৬৯ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৮৩ কোটি ৪৩ লাখ টাকা। এদিন ১৭ কোটি ৮৮ লাখ ৫৫ হাজার ২৫০ শেয়ার এক লাখ ৪১ হাজার ৪২২ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৫৪ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৪৯টির, কমেছে ১৬১টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৪৪টির দর।

গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে গ্রামীণফোন। কোম্পানিটির ২৪ কোটি ৪৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ১৫ টাকা ৭০ পয়সা। এরপর এসএস স্টিলের ২৩ কোটি ৪৩ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে এক টাকা ৪০ পয়সা। লাফার্জহোলসিমের ২৩ কোটি ৫২ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা। স্কয়ার ফার্মার ২৩ কোটি ৪৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে দুই টাকা ২০ পয়সা। ব্র্যাক ব্যাংকের ১২ কোটি ২৯ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে ৩০ পয়সা। এছাড়া বীকন ফার্মার ১২ কোটি টাকা, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ৯ কোটি ৮৬ লাখ, খুলনা পাওয়ারের ৯ কোটি ৬১ লাখ, এডিএন টেলিকমের ৯ কোটি ২৭ লাখ, এনবিএলের আট কোটি ৮২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।  

১০ শতাংশ বেড়ে জেমিনি সি ফুড দর বৃদ্ধির শীর্ষে অবস্থান করে। এরপর আইসিবির দর ৯ দশমিক ৯৪ শতাংশ, বিএসসিসিএলের ৯ দশমিক ৯৩ শতাংশ, হাইডেলবার্গ সিমেন্টের ৯ দশমিক ৮৬ শতাংশ, প্রিমিয়ার সিমেন্টের ৯ দশমিক ৩০ শতাংশ, ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টের আট দশমিক ৬৫ শতাংশ, বিডি ল্যাম্পসের আট দশমিক ৫১ শতাংশ, এমজেএল বিডির আট শতাংশ, এডিএন টেলিকমের সাত দশমিক ৮৯ শতাংশ, বঙ্গজের দর সাত দশমিক ৬৯ শতাংশ বেড়েছে।    

৯ দশমিক ৪৫ শতাংশ কমে দরপতনের শীর্ষে উঠে আসে এসএস স্টিল। গোল্ডেন হার্ভেস্ট এগ্রোর দর সাত শতাংশ কমেছে। এফএএস ফাইন্যান্সের ছয় দশমিক ৭৭ শতাংশ, ইউনাইটেড এয়ারের ছয় দশমিক ৬৬ শতাংশ, মেঘনা পিইটির ছয় দশমিক ১৪ শতাংশ, তাল্লু স্পিনিংয়ের পাঁচ দশমিক ৮৮ শতাংশ, ফার্স্ট ফাইন্যান্সের পাঁচ দশমিক ৬৬ শতাংশ, প্রিমিয়ার লিজিংয়ের চার দশমিক ৯১ শতাংশ, ফ্যামিলি টেক্সের চার দশমিক ৭৬ শতাংশ ও আনলিমা ইয়ার্নের দর চার দশমিক ২৪ শতাংশ কমেছে।

অন্যদিকে সিএসইতে গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ১২৩ দশমিক ২৩ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৫৩ শতাংশ বেড়ে আট হাজার ১৭১ দশমিক ২৬ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২০১ দশমিক ৭৬ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৫১ শতাংশ বেড়ে ১৩ হাজার ৪৭৯ দশমিক ৬৩ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২৫৩ কোম্পানি এবং মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৩২টির, কমেছে ৯৬টির, অপরিবর্তিত ছিল ২৫টির দর।

সিএসইতে এদিন ৭৩ কোটি ৯৭ লাখ ৮৯ হাজার ১৩৪ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ৪৩ কোটি ৬৮ লাখ ২৩ হাজার ২৫৩ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৩০ কোটি ২৯ লাখ টাকা। 

সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে ব্যাংক এশিয়া। কোম্পানিটির ২০ কোটি সাত লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এর পরের অবস্থানগুলোয় থাকা ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ২০ কোটি তিন লাখ, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ১৮ কোটি ৪৩ লাখ, লাফার্জহোলসিমের এক কোটি ২৩ লাখ, এনবিএলের ৮৮ লাখ, আরডি ফুডের ৮৫ লাখ, বেক্সিমকোর ৬৭ লাখ, এসএস স্টিলের সাড়ে ৬৪ লাখ, এডিএন টেলিকমের ৪৭ লাখ, লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের ৪৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।    

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..