প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ডিএসইতে লেনদেন কমলেও বেড়েছে সিএসইতে

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) এক সপ্তাহের ব্যবধানে টার্নওভার কমলেও অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে তা বেড়েছে। তবে দুই স্টক একচেঞ্জেই মূল্যসূচকের ঊর্ধ্বমুখী ধারা অব্যাহত ছিল। সপ্তাহের লেনদেন চিত্রে এমটিই উঠে এসেছে।

সাপ্তাহিক বাজার পর্যালোচনায় জানা গেছে, ডিএসইতে গত সপ্তাহে টার্নওভারের পরিমাণ তিন হাজার ৬০০ কোটি ৫০ লাখ টাকা; যা এর আগের সপ্তাহের চেয়ে ৮৮৭ কোটি বা ৯ দশমিক ৪৭ শতাংশ কম। আগের সপ্তাহে ডিএসইতে টার্নওভারের পরিমাণ ছিল তিন হাজার ৯৭৭ কোটি ১৬ লাখ টাকা।

ডিএসইতে বাজার মূলধন বেড়েছে এক হাজার ৬৩৪ কোটি টাকা। অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বেড়েছে এক হাজার ৮৭৪ কোটি টাক। সব মিলিয়ে দুই স্টক এক্সচেঞ্জে বাজার মূলধন বেড়েছে তিন হাজার ৫০৯ কোটি টাকা।

গেল সপ্তাহে প্রথম কার্যদিবসে ডিএসইর বাজার মূলধন ছিল তিন লাখ ৩২ হাজার ৫১৩ কোটি টাকা এবং শেষ কার্যদিবস গত বৃহস্পতিবারে মূলধন বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৩৪ হাজার ১৪৮ কোটি টাকায়। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে বাজার মূলধন বেড়েছে এক হাজার ৬৩৪ কোটি টাকা বা দশমিক ৪৯ শতাংশ।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে গড়ে প্রতিদিন লেনদেন হয়েছে ৭২০  কোটি ১০ লাখ টাকা; যা তার আগের সপ্তাহের চেয়ে ৯ দশমিক ৪৭ শতাংশ কম। আগের সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৭৯৫ কোটি ৪৩ লাখ টাকা।

গত সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের সপ্তাহের চেয়ে ৩১ পয়েন্ট বেড়ে চার হাজার ৮২৩ পয়েন্টে অবস্থান করছে। শরিয়া সূচক ডিএসইএস ১৬ পয়েন্ট বেড়ে এক হাজার ১৪৯ পয়েন্ট এবং ডিএস৩০ সূচক ১৮ পয়েন্ট  বেড়ে এক হাজার ৭৮৭ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে তালিকাভুক্ত মোট ৩৩০টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে বেড়েছে ১৮৭টির, কমেছে ১০৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৪টির  শেয়ারদর। এছাড়া লেনদেন হয়নি দুটি কোম্পানির শেয়ার।

সপ্তাহের ব্যবধানে সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) এক দশমিক ৯৫ শতাংশ কমে ১৪ দশমিক ৫৯ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

গত সপ্তাহে ডিএসইর টপ টেন তালিকায় উঠে আসা কোম্পানির মধ্যে রয়েছেÑন্যাশনাল টিউবস লিমিটেড, ফরচুন সুজ লিমিটেড, বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, রিজেন্ট টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড, হাক্কানি পাল্প অ্যান্ড পেপার লিমিটেড, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, মিরাকেল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, ইয়াকিন পলিমার লিমিটেড।

অপরদিকে ডিএসইতে টপ টেন লুজার তালিকায় উঠে আসা কোম্পানির মধ্যে রয়েছেÑএমারেল্ড অয়েল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, কোহিনূর কেমিক্যাল কোম্পানি (বাংলাদেশ) লিমিটেড, সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইল লিমিটেড, ফ্যামিলি টেক্স (বিডি) লিমিটেড, জেনারেশন নেক্সট ফ্যাশনস লিমিটেড, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, মাইডাস ফাইন্যান্সিং লিমিটেড, এমবি ফার্মা লিমিটেড, এবি ব্যাংক লিমিটেড।

এদিকে গত সপ্তাহে অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) সিএএসপিআই সূচক বেড়েছে দশমিক ৭৮ শতাংশ, সিএসই৩০ সূচক বেড়েছে দশমিক ৩০ শতাংশ, সার্বিক সূচক সিএসসিএক্স বেড়েছে দশমিক ৬৮ শতাংশ, সিএসই৫০ সূচক  বেড়েছে দশমিক ১৬ শতাংশ এবং সিএসআই সূচক বেড়েছে এক দশমিক ২৯ শতাংশ।

সিএসইতে গড়ে মোট লেনদেন হয়েছে ২৮৫টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এর মধ্যে বেড়েছে ১৭৬টির, কমেছে ৯২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৭টির শেয়ারদর।

গত সপ্তাহে সিএসইতে টার্নওভারের পরিমাণ ছিল ২২১ কোটি ৩২ লাখ টাকা, আগের সপ্তাহে যার পরিমাণ ছিল ২১১ কোটি ৪৩ লাখ টাকা।

সিএসইতে সাপ্তাহিক টপ টেন গেইনার তালিকার শীর্ষে ওঠা কোম্পানির মধ্যে রয়েছেÑসুহƒদ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, মিরাকেল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড, ফাইন ফুড লিমিটেড, ফরচুন সুজ লিমিটেড, বিডি জেনারেল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি, হাক্কানি পাল্প অ্যান্ড পেপার মিলস লিমিটেড, রিজেন্ট টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড, নিটল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, লিগ্যাসি ফুটওয়্যার লিমিটেড।

অপরদিকে টপ টেন লুজার কোম্পানির তালিকায় উঠে আসা কোম্পানির মধ্যে রয়েছেÑকোহিনূর কেমিক্যাল কোম্পানি (বিডি) লিমিটেড, এমারেল্ড অয়েল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, জেনারেশন নেক্সট ফ্যাশন লিমিটেড, ফ্যামিলি টেক্স (বিডি) লিমিটেড, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ফনিক্স ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলস লিমিটেড, মাইডাস ফাইন্যান্স লিমিটেড, ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড, এবি ব্যাংক লিমিটেড।

এদিকে টার্নওভারে শীর্ষ দশ কোম্পানির তালিকায় উঠে আসাদের মধ্যে রয়েছেÑলাফার্জ সুরমা সিমেন্ট লিমিটেড, বেক্সিমকো লিমিটেড, বাংলাদেশ স্টিল রি রোলিং মিলস লিমিটেড, ফরচুন সুজ লিমিটেড, আরএকে সিরামিক (বিডি) লিমিটেড, জেনারেশন নেক্সট ফ্যাশন লিমিটেড, অলিম্পিক এক্সেসরিজ লিমিটেড, দি পেনিনসুলা চিটাগং লিমিটেড, কেয়া কসমেটিকস লিমিটেড এবং ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড।