কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

ডিএসইতে সাত কার্যদিবস পর সূচক বাড়লেও লেনদেন কম

নিজস্ব প্রতিবেদক: অবশেষে সাত কার্যদিবস পর পুঁজিবাজারে সূচকের ইতিবাচক গতি দেখা গেছে। গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সাড়ে ৬৪ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। এতে করে ডিএসইএক্স সূচক ২৪ পয়েন্ট ইতিবাচক হয়। বাকি দুই সূচকও ইতিবাচক গতিতে ছিল। তবে লেনদেন আগের কার্যদিবসের তুলনায় কমেছে। লেনদেনের শুরুতেই সূচকের বড় পতন হয়। এরপর বেশ কয়েকবার ওঠানামা করলেও দুপুর ১২টার পর থেকে কেনার চাপ বাড়লে ধীরে ধীরে সূচক ঊর্ধ্বমুখী হয়। তবে শেষ আধঘণ্টায় বিক্রির চাপ বাড়লে শেষ পর্যন্ত ২৪ পয়েন্ট ইতিবাচক থাকতে পেরেছে সূচক। চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক, শেয়ারদর বাড়ার পাশাপাশি লেনদেনও সামান্য বেড়েছে।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২৪ দশমিক ৮৯ পয়েন্ট বা দশমিক ৫৬ শতাংশ বেড়ে চার হাজার ৪৩৪ দশমিক ৮১ পয়েন্টে অবস্থান করে।

ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক এক দশমিক ৪৭ পয়েন্ট বা দশমিক ১৪ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৩০ দশমিক ১৬ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক ৫ দশমিক শূন্য তিন পয়েন্ট বা দশমিক ৩৪ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৪৭৯ দশমিক ৭১ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন এক হাজার ৮৬৭ কোটি ৬৪ লাখ টাকা বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৩৯ হাজার ৮৫৪ কোটি ৫০ লাখ ৫১ হাজার টাকায়। ডিএসইতে লেনদেন হয় ৪১৯ কোটি ৭৪ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৪৫৬ কোটি ১৭ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন কমেছে ৩৬ কোটি ৪২ লাখ টাকা। এদিন ১৮ কোটি ১১ লাখ ১৪ হাজার ৭০৪টি শেয়ার এক লাখ ২৪ হাজার ৯০ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৫৫ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ২২৯টির, কমেছে ৭৫টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৫১টির দর।

গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে ফারকেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ। কোম্পানিটির ১৩ কোটি ৫০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৯০ পয়সা। এরপরে ভিএফএস থ্রেড ডায়িংয়ের ১১ কোটি ৩৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৩০ পয়সা। গ্রামীণফোনের ১০ কোটি ৫৮ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৫০ পয়সা। ইন্দোবাংলা ফার্মার ১০ কোটি ৩১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৪০ পয়সা। ওরিয়ন ইনফিউশনের ৯ কোটি ৮৫ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে পাঁচ টাকা ১০ পয়সা। এছাড়া সেন্ট্রাল ফার্মার আট কোটি ৭২ লাখ টাকা, সিলভা ফার্মার আট কোটি ৪৭ লাখ টাকা, খুলনা প্রিন্টিং ও প্যাকেজিংয়ের আট কোটি ৩৫ লাখ টাকা, স্কয়ার ফার্মার সাত কোটি ৭১ লাখ ও ওরিয়ন ফার্মার সাত কোটি ৭০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

৯ দশমিক ৯৪ শতাংশ বেড়ে গ্লোবাল হেভি কেমিক্যাল দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের দর ৯ দশমিক ৮২ শতাংশ, ইয়াকিন পলিমারের দর ৯ দশমিক ৮২ শতাংশ, সেন্ট্রাল ফার্মার দর ৯ দশমিক ৫৮ শতাংশ, অলিম্পিক এক্সেসরিজের দর ৯ দশমিক ২১ শতাংশ, দেশবন্ধু পলিমারের দর ৯ দশমিক ১৭ শতাংশ, প্রগ্রেসিভ লাইফের দর আট দশমিক ৫৬ শতাংশ, ফারইস্ট নিটিং অ্যান্ড ডায়িংয়ের দর আট দশমিক ৫১ শতাংশ, বিএসআরএম লিমিটেডের দর আট দশমিক ৩৫ শতাংশ ও খুলনা প্রিন্টিং ও প্যাকেজিংয়ের দর সাত দশমিক ৩৮ শতাংশ বেড়েছে।

১০ শতাংশ কমে দরপতনের শীর্ষে উঠে আসে ফাস ফাইন্যান্স। এমারাল্ড অয়েলের দর ৯ দশমিক ৭০ শতাংশ কমেছে। ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের দর আট দশমিক ১০ শতাংশ, প্রাইম ফাইন্যান্সের দর সাত দশমিক ৮১ শতাংশ, ফারইস্ট ফাইন্যান্সের দর সাত দশমিক ৪০ শতাংশ, ইউনাইটেড এয়ারের দর ছয় দশমিক ২৫ শতাংশ, ফার্স্ট ফাইন্যান্সের দর পাঁচ দশমিক ৪৫ শতাংশ, মতিন স্পিনিংয়ের দর পাঁচ দশমিক ৪৪ শতাংশ, এমএল ডায়িংয়ের দর চার দশমিক ১১ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের দর তিন দশমিক ৯৬ শতাংশ কমেছে।

অন্যদিকে সিএসইতে গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ২২ দশমিক ১৫ পয়েন্ট বা দশমিক ২৭ শতাংশ বেড়ে আট হাজার ২১৯ দশমিক ৫২ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৩৯ দশমিক ৮৯ পয়েন্ট বা দশমিক ২৯ শতাংশ বেড়ে ১৩ হাজার ৫৫৯ দশমিক শূন্য ছয় পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২৩৫ কোম্পানি এবং মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৪১টির, কমেছে ৭৩টির, অপরিবর্তিত ছিল ২১টির দর।

সিএসইতে এদিন ১৬ কোটি দুই লাখ ছয় হাজার ৪৯৯ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ১৫ কোটি ৬৯ লাখ ৯৭ হাজার ১৯৮ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৩২ লাখ টাকা।

সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে কনফিডেন্স সিমেন্ট। কোম্পানিটির এক কোটি ২৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এরপরের অবস্থানগুলোতে থাকা ভিএফএস থ্রেডের ৯০ লাখ, ফার কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজের ৭৮ লাখ, অ্যাডভেন্ট ফার্মার ৭২ লাখ, অলিম্পিক এক্সেসরিজের ৬৩ লাখ, খুলনা প্রিন্টিং ও প্যাকেজিংয়ের ৬১ লাখ, লাফার্জহোলসিমের ৫৫ লাখ, এসএস স্টিলের ৩৮ লাখ, বেক্সিমকোর ৩৫ লাখ ও বিএসআরএম লিমিটেডের ৩৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..