কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

ডিএসইতে সূচক কমলেও গড় লেনদেন বেড়েছে ৫.৬%

সপ্তাহের ব্যবধান

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহজুড়ে সূচকের পতন হলেও গড় লেনদেন বেড়েছে পাঁচ দশমিক ৬ শতাংশ। তবে মোট লেনদেন ও বাজার মূলধন কমেছে। এর কারণ অবশ্য গত সপ্তাহে ঈদে মিলাদুন্নবীর কারণে পুঁজিবাজার বন্ধ থাকায় লেনদেন একদিন কম হয়েছে। আগের সপ্তাহে পাঁচ কার্যদিবস লেনদেন হয়। গত সপ্তাহে চার কার্যদিবসের মধ্যে দুদিন সূচক ইতিবাচক ছিল। দুদিন কমেছে। তবে উত্থানের চেয়ে পতনের হার বেশি ছিল। কমেছে বেশিরভাগ শেয়ারের দর। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক, বেশিরভাগ শেয়ারদর কমলেও লেনদেন বেড়েছে।

সাপ্তাহিক বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬১ দশমিক ৫৫ পয়েন্ট বা এক দশমিক ২৯ শতাংশ কমে চার হাজার ৭১০ দশমিক ৩৭ পয়েন্টে স্থির হয়। ডিএসইএস বা শরিয়াহ সূচক আট দশমিক ৬৫ পয়েন্ট বা দশমিক ৭৯ শতাংশ কমে এক হাজার ৮০ দশমিক ৯২ পয়েন্টে পৌঁছায়। ডিএস৩০ সূচক ১৯ দশমিক ৬৭ পয়েন্ট বা এক দশমিক ১৯ শতাংশ কমে এক হাজার ৬৩৮ দশমিক ২৫ পয়েন্টে স্থির হয়। মোট ৩৫৭টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০৬টির, কমেছে ২২২টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২৭ কোম্পানির শেয়ারদর। লেনদেন হয়নি দুটির। দৈনিক গড় লেনদেন হয় ৩৪৯ কোটি ৫৪ লাখ ৭৩ হাজার ৭৫৪ টাকা। আগের সপ্তাহে দৈনিক গড় লেনদেন হয় ৩৩১ কোটি শূন্য দুই লাখ ৫৩ হাজার ৯২১ টাকা। এক সপ্তাহের ব্যবধানে দৈনিক গড় লেনদেন বেড়েছে ১৮ কোটি ৫২ লাখ টাকা বা পাঁচ দশমিক ৬০ শতাংশ।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে মোট টার্নওভার বা লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় এক হাজার ৩৯৮ কোটি ১৮ লাখ ৯৫ হাজার ১৮ টাকা। আগের সপ্তাহে যা ছিল এক হাজার ৬৭৩ কোটি ৮৮ লাখ সাত হাজার ৬৮১ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে টার্নওভার কমেছে ২৭৫ কোটি ৬৯ লাখ টাকা বা ১৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

ডিএসইতে গত সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার বাজার মূলধন ছিল তিন লাখ ৫৯ হাজার ১১০ কোটি ২৯ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। শেষ কার্যদিবসে যার পরিমাণ ছিল তিন লাখ ৫৪ হাজার ৯৫০ কোটি ২৮ লাখ ৩০ হাজার ৯৭৮ টাকা। সপ্তাহের ব্যবধানে বাজার মূলধন কমেছে এক দশমিক ১৬ শতাংশ বা চার হাজার ১৬০ কোটি টাকা।

গত সপ্তাহে ডিএসইর টপ টেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স। সপ্তাহজুড়ে শেয়ারটির দর ১৭ দশমিক ২৬ শতাংশ বেড়েছে। তালিকায় এর পরের অবস্থানগুলোতে থাকা সি পার্ল রিসোর্টের ১৪ দশমিক ৮৬ শতাংশ, এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ডের দর ১৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ, অগ্রণী ইন্স্যুরেন্সের দর ১৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ বেড়েছে। ন্যাশনাল ফিড মিলের দর ১২ দশমিক ৬৬ শতাংশ, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স ১২ দশমিক ২৮ শতাংশ, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সের দর ১০ দশমিক ৯১ শতাংশ, সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্সের দর ১০ দশমিক ৬৮ শতাংশ, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের দর ১০ দশমিক ৩০ শতাংশ, ভ্যানগার্ড এএমএল বিডি ফাইন্যান্সের দর ১০ শতাংশ বেড়েছে।

অন্যদিকে ১৪ দশমিক ৭৫ শতাংশ কমে সাপ্তাহিক দরপতনের শীর্ষে অবস্থান করে রতনপুর স্টিল রিরোলিং মিলস। বসুন্ধরা পেপার মিলেসের দর ১৩ দশমিক ৪০ শতাংশ, মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজের দর ১৩ দশমিক ১৬ শতাংশ, রিজেন্ট টেক্সটাইলের দর ১৩ দশমিক ১৬ শতাংশ, শ্যামপুর সুগার মিলসের দর ১৩ দশমিক শূন্য আট শতাংশ, প্রাইম টেক্সটাইলের দর ১২ দশমিক ৯৫ শতাংশ, প্রাইম টেক্সটাইলের দর ১২ দশমিক ৯৫ শতাংশ, বিডি ওয়েল্ডিংয়ের দর ১২ দশমিক ৫৭ শতাংশ, শাইনপুকুর সিরামিকসের দর ১২ দশমিক ২৬ শতাংশ, ম্যাকসন্স স্পিনিংয়ের দর ১২ দশমিক ২৪ শতাংশ, জেমিনি সি ফুডের দর ১১ দশমিক ৭৫ শতাংশ কমেছে।

ডিএসইতে টার্নওভারের দিক থেকে শীর্ষ দশ কোম্পানি হলো ন্যাশনাল টিউবস, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স, রেনাটা, ওয়াটা কেমিক্যাল, ফরচুন শুজ, স্কয়ার ফার্মা, সুহƒদ ইন্ডাস্ট্রিজ, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি ও রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স।

অন্যদিকে দেশের অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৩০১টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০০টির, কমেছে ১৮৩টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ১৮টির দর।

সিএসইতে গত সপ্তাহে সার্বিক সূচক সিএসসিএক্স কমেছে এক দশমিক শূন্য দুই শতাংশ। এছাড়া সিএএসপিআই সূচক এক দশমিক শূন্য সাত শতাংশ, সিএসই৫০ সূচক কমেছে দশমিক ৬৭ শতাংশ, সিএসআই সূচক কমেছে এক দশমিক ১৭ শতাংশ। সিএসই৩০ সূচক কমেছে এক দশমিক ২৯ শতাংশ।

সিএসইতে গত সপ্তাহে টার্নওভারের পরিমাণ দাঁড়ায় ১৮৭ কোটি ৪১ লাখ ৮৮ হাজার ১৪ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেনের পরিমাণ ছিল ১৪৮ কোটি ১২ লাখ ৫২ হাজার টাকা।

১৭ দশমিক ৪৫ শতাংশ বেড়ে সিএসইতে সাপ্তাহিক টপ টেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স। আইসিবি এএমসিএল সেকেন্ড মিউচুয়াল ফান্ডের দর ১৭ দশমিক ১০ শতাংশ, সি পার্ল রিসোর্টের দর ১৪ দশমিক ৮৬ শতাংশ, সমতা লেদারের দর ১৪ দশমিক ২৮ শতাংশ বেড়েছে। এরপরের অবস্থানগুলোতে থাকা এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ডের দর ১২ দশমিক ৯৩ শতাংশ, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের দর ১২ দশমিক শূন্য তিন শতাংশ, প্রিমিয়ার সিমেন্টের দর ১১ দশমিক ৪৩ শতাংশ, ন্যাশনাল ফিড মিলের দর ১১ দশমিক ২৫ শতাংশ, হাইডেলবার্গ সিমেন্টের দর ১০ দশমিক ৬৮ শতাংশ, সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্সের দর ১০ দশমিক ৪১ শতাংশ বেড়েছে।

অন্যদিকে ১৭ দশমিক ২৭ শতাংশ কমে টপ টেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে শাইনপুকুর সিরামিক। এর পরের অবস্থানগুলোতে ছিল মতিন স্পিনিং মিলস, আরএসআরএম, বসুন্ধরা পেপার মিলস, সালভো কেমিক্যাল, সিলকো ফার্মা, বঙ্গজ লিমিটেড, মেট্রো স্পিনিং, বাংলাদেশ ল্যাম্পস, রিজেন্ট টেক্সটাইল মিলস।

সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষ ১০ কোম্পানি হলো ইস্টার্ন ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক, সিলকো ফার্মা, আইসিবি, ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড কমার্শিয়াল ব্যাংক, উত্তরা ব্যাংক, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক, প্রিমিয়ার ব্যাংক, যমুনা ব্যাংক ও স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..