কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

ডিএসইতে সূচক কমলেও লেনদেন ছাড়িয়েছে হাজার কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের তৃতীয় দিন গতকাল সূচকের পতন হলেও লেনদেন বেড়ে হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২৭ পয়েন্ট নেতিবাচক ছিল। বাকি দুই সূচকেও নেতিবাচক গতি লক্ষ্য করা গেছে। লেনদেনের শুরু থেকে সূচক নিম্নমুখী হলেও আগের দিনের তুলনায় লেনদেন বেড়েছে। আর আগের দিনের চেয়ে ৪৪ কোটি টাকা লেনদেন বেড়ে এক টাকা হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক, শেয়ারদর ও লেনদেনে একই চিত্র দেখা যাচ্ছে।  

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২৭ দশমিক ৭৩ পয়েন্ট বা দশমিক ৫৮ শতাংশ কমে চার হাজার ৭৪০ দশমিক ৪০ পয়েন্টে অবস্থান করে।

ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক দুই দশমিক ৩৫ পয়েন্ট বা দশমিক ২১ শতাংশ কমে এক হাজার ৮১ দশমিক ৩৩ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক আট দশমিক ১৩ পয়েন্ট বা দশমিক ৫০ শতাংশ কমে এক হাজার ৫৯০ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন এক হাজার দুই কোটি ৭০ লাখ টাকা কমে দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৫৬ হাজার ১৬০ কোটি ২২ লাখ ৯৩ হাজার টাকায়। ডিএসইতে লেনদেন হয় এক হাজার ২১ কোটি ৩৪ লাখ তিন হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৯৭৬ কোটি ৩৮ লাখ ৭৬ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৪৪ কোটি ৯৫ লাখ ২৭ হাজার টাকা। এদিন ৩৮ কোটি ২৮ লাখ ৮২ হাজার ২৬০টি শেয়ার দুই লাখ ৩৬ হাজার ৭৬৪ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৫৫ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৩২টির, কমেছে ১৮৮টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৩৫টির দর।

গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের সামিট পাওয়ার লিমিটেড। কোম্পানিটির ৪২ কোটি ২২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা ৫০ পয়সা। এরপর লাফার্জহোলসিমের ২৪ কোটি ৪৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর কমেছে এক টাকা ৭০ পয়সা। খুলনা পাওয়ারের ২২ কোটি ৯৪ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে তিন টাকা ১০ পয়সা। ওরিয়ন ফার্মার ১৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা ৮০ পয়সা। ন্যাশনাল টিউবসের ১৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে পাঁচ টাকা ৯০ পয়সা। শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজের ১৭ কোটি ৭৮ লাখ টাকা টাকা, গ্রামীণফোনের ১৬ কোটি ৪২ লাখ টাকা, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ১৫ কোটি ১১ লাখ টাকা, গোল্ডেন হার্ভেস্ট এগ্রোর ১৪ কোটি ৭৫ লাখ টাকা, ইন্দো বাংলা ফার্মার ১৪ কোটি ৩৪ লাখ টাকা, বেক্সিমকোর ১৪ কোটি ৯ লাখ টাকা ও ন্যাশনাল পলিমার ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ১৪ কোটি তিন লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

১০ শতাংশ বেড়ে আইসিবি এএমসিএল সোনালী ব্যাংক লিমিটেড ফাস্ট মিউচুয়াল ফান্ড দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। সিভিও পেট্রোকেমিক্যালের দর ৯ দশমিক ৯৪ শতাংশ, এমআই সিমেন্টের দর ৯ দশমিক ৮২ শতাংশ, ভ্যানগার্ড এএমএল রূপালী ব্যাংক ব্যালেন্সড ফান্ডের দর ৯ দশমিক ৮০ শতাংশ, আইসিবি এএমসিএল থার্ড এনআরবি মিউচুয়াল ফান্ডের দর ৯ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ, ভ্যানগার্ড এএমএল বিডি ফাইন্যান্স মিউচুয়াল ফান্ড ওয়ানের দর আট দশমিক ৭৭ শতাংশ, সোনালী আঁশ ইন্ডাস্ট্রিজের দর আট দশমিক ৭৪ শতাংশ, আইসিবি এএমসিএল ফার্স্ট অগ্রণী ব্যাংক মিউচুয়াল ফান্ডের দর আট দশমিক ৫৭ শতাংশ বেড়েছে।

সাত দশমিক ৭৪ শতাংশ কমে দরপতনের শীর্ষে উঠে আসে শ্যামপুর সুগার মিল। সান লাইফ ইন্স্যুরেন্সের দর সাত দশমিক ১০ শতাংশ কমেছে। হাক্কানী পাল্পের দর ছয় দশমিক ৪৩ শতাংশ, সমতা লেদারের দর পাঁচ দশমিক ৯৪ শতাংশ, সিলভা ফার্মার দর পাঁচ দশমিক ৮৮ শতাংশ, আমরা নেটের দর পাঁচ দশমিক ২৯ শতাংশ কমেছে।

অন্যদিকে সিএসইতে গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ১৮ দশমিক ৮৭ পয়েন্ট বা দশমিক ২১ শতাংশ কমে আট হাজার ৭৯৭ দশমিক ৩৪ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২৫ দশমিক ২৯ পয়েন্ট বা দশমিক ১৪ শতাংশ কমে ১৪ হাজার ৫০৪ দশমিক ৬৩ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২৯০ কোম্পানি এবং মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১২৫টির, কমেছে ১৩৩টির ও অপরিবর্তিত ছিল ৩২টির দর।

সিএসইতে এদিন ৬৭ কোটি ৭০ লাখ ৯৪ হাজার ৭৩৪ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ৩২ কোটি ৫১ লাখ ১৯ হাজার ১৯৭ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৩৫ কোটি ১৯ লাখ ৭৫ হাজার টাকা। 

সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড। কোম্পানিটির ২১ কোটি আট লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এর পরের অবস্থানগুলোতে থাকা ব্যাংক এশিয়ার ১০ কোটি, সামিট পাওয়ারের চার কোটি ৪৭ লাখ, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের এক কোটি ৫৪ লাখ, এসএস স্টিলের এক কোটি ২৫ লাখ ও লাফার্জহোলসিমের এক কোটি ২৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..