প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ডিএসইতে সূচক কমলেও লেনদেন বেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল নিম্নমুখী প্রবণতায় লেনদেন শেষ হয়েছে। সবগুলো সূচক কমার পাশাপাশি বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন হয়। তবে লেনদেন আগের দিনের তুলনায় সামান্য বেড়েছে। আগের দিনের তুলনায় কিছুটা ইতিবাচক ছিল বাজার। গতকাল ৩১ শতাংশ শেয়ারের দর বেড়েছে, কমেছে ৫৬ শতাংশের। লেনদেনের শুরুতে থেকেই বিক্রির চাপে সূচক নামলেও বেলা ১১টায় ক্রয়চাপে সূচক ছয় হাজার পয়েন্ট ছাড়িয়ে যায়। তবে এ অবস্থানে বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে পারেনি। ক্রয়চাপে ক্রমেই নামতে থাকে সূচক। শেষ পর্যন্ত ১৩ পয়েন্ট পতন দিয়ে লেনদেন শেষ হয়। যোগাযোগ খাত ছাড়া বাকি খাতগুলোয় বিক্রির চাপ বেশি ছিল। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ব্র্যাক ব্যাংকের বড় অঙ্কের শেয়ার লেনদেনের কারণে লেনদেন বেড়েছে প্রায় ৭২ কোটি টাকা। সিএসই৩০ ছাড়া সব সূচক নিম্নমুখী ছিল। বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন হয়।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স গতকাল ১৩ দশমিক ৯৩ পয়েন্ট বা দশমিক ২৩ শতাংশ কমে পাঁচ হাজার ৯৬৮ দশমিক শূন্য দুই পয়েন্টে অবস্থান করে। ডিএসইএস বা শরিয়াহ সূচক তিন দশমিক ২৫ পয়েন্ট বা দশমিক ২৪ শতাংশ কমে এক হাজার ৩২১ দশমিক ৫৯ পয়েন্টে আর ডিএস৩০ সূচক এক দশমিক ৩১ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য ছয় শতাংশ কমে দুই হাজার ১৭৩ দশমিক ২০ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়ে চার লাখ ছয় হাজার ৮৫৭ কোটি ৪৯ লাখ ৯ হাজার টাকা হয়।

ডিএসইতে গতকাল লেনদেন হয় ৫৩৬ কোটি সাত লাখ ছয় হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের দিন লেনদেন হয় ৫২৩ কোটি ২৫ লাখ ৮৩ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ১২ কোটি ৮১ লাখ টাকা। এদিন ১২ কোটি ২৬ লাখ ৬৯ হাজার ১৯৯টি শেয়ার ৯৯ হাজার ৮৩৪ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৩২টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১০৫টির, কমেছে ১৮৭টির, অপরিবর্তিত ছিল ৪০টির দর।

টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে ব্র্যাক ব্যাংক। ৪৯ কোটি ছয় লাখ টাকায় কোম্পানিটির ৫০ লাখ চার হাজার ২৯৫টি শেয়ার লেনদেন হয়। গতকাল শেয়ারটির দর পাঁচ টাকা ২০ পয়সা বেড়েছে। এর পরের অবস্থানগুলোয় ছিল লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, জিপি, ইফাদ অটোস, রংপুর ফাউন্ড্রি, এসিআই, আমরা নেট, শাশা ডেনিমস, বিবিএস কেব্লস, এক্সিম ব্যাংক। সবচেয়ে বেশিসংখ্যক শেয়ার লেনদেন হয় এক্সিম ব্যাংকের। কোম্পানিটির ৬৪ লাখ ২৮ হাজার ১১টি শেয়ার ১০ কোটি ৭৩ লাখ টাকায় লেনদেন হয়। শেয়ারটির দর ৩০ পয়সা কমেছে। এরপরের অবস্থানগুলোয় ছিল এনবিএল, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, ব্র্যাক ব্যাংক, আইএফআইসি, শাহ্জালাল ব্যাংক, সি অ্যান্ড এ টেক্স, তুং-হাই, মেট্রো স্পিনিং, এনসিসি ব্যাংক।

৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ বেড়ে বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে মুন্নু সিরামিক। ৯ দশমিক ৮২ শতাংশ বেড়েছে ফাইন ফুডসের দর। এরপরে সাত দশমিক ৪৫ শতাংশ বাড়ে সাফকো স্পিনিংয়ের। মুন্নু স্টাফলারের দর বেড়েছে ছয় দশমিক ৮৮ শতাংশ ও সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্সের দর বেড়েছে ছয় দশমিক ৫৪ শতাংশ। অন্যদিকে ৯ দশমিক ৯৬ শতাংশ দর কমেছে কে অ্যান্ড কিউর। সমতা লেদার ৯ দশমিক ১৫ শতাংশ, বিডি ওয়েল্ডিংয়ের দর সাত দশমিক ১৪ শতাংশ, এসিআই ফরমুলার দর ছয় দশমিক ৮০ শতাংশ ও পিপলস লিজিংয়ের দর ছয় দশমিক ২০ শতাংশ কমেছে।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ২৬ দশমিক ২৪ পয়েন্ট কমে ১১ হাজার ১৯০ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৫১ পয়েন্ট কমে ১৮ হাজার ৫০১ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল দিনজুড়ে ২৪১টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে ৬৫টির দর বেড়েছে, কমেছে ১৪৩টির, অপরিবর্তিত ছিল ৩৩টির দর।

সিএসইতে এদিন ১২৭ কোটি ৮৯ লাখ ৪৮ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে ব্র্যাক ব্যাংকের ১০৪ কোটি ৬৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৫৫ কোটি ৯৫ লাখ ৬২ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। সে হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ৭১ কোটি ৯৩ লাখ টাকা। সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলোর মধ্যে লংকাবাংলার এক কোটি ৭২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এরপর এনবিএল এক কোটি ২২ লাখ, আমরা নেট এক কোটি ১০ লাখ টাকার, স্কয়ার টেক্স ৬২ লাখ, স্কয়ার ফার্মার ৫৮ লাখ, এক্সিম ব্যাংক ৫৮ লাখ, কেয়া কসমেটিকস ৫৬ লাখ, রংপুর ফাউন্ড্রি ৪৯ লাখ, আইএফআইসির ৪৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।