Print Date & Time : 26 November 2020 Thursday 12:46 am

ডিএসইর মোট লেনদেনের অর্ধেক হয় ওষুধ, বস্ত্র ও প্রকৌশল খাতে

প্রকাশ: March 6, 2020 সময়- 12:28 am

রুবাইয়াত রিক্তা : পতন দিয়ে শেষ হলো সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসের লেনদেন। গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ৬০ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়, দর বেড়েছে মাত্র ৩০ শতাংশ কোম্পানির। এতে করে ডিএসইএক্স সূচকের ২৫ পয়েন্ট পতন হয়। লেনদেন প্রায় ১০০ কোটি টাকা কমেছে। কোনো খাতই এককভাবে ভালো অবস্থানে ছিল না। ডিএসইর মোট লেনদেনের ৫০ শতাংশ ওষুধ, রসায়ন, বস্ত্র ও প্রকৌশল খাতে সীমাবদ্ধ ছিল। আর বাকি সব খাত মিলে হয়েছে ৫০ শতাংশ। প্রায় ১৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ। গতকাল কোম্পানিটির ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের হতাশ করেছে। কারণ গত জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি এই দুই মাসের অধিকাংশ কার্যদিবসে লাফার্জহোলসিম লেনদেন ও দর বৃদ্ধিতে নেতৃত্ব দিলেও বছর শেষের ঘোষণা বিনিয়োগকারীদের সন্তুষ্ট করতে পারেনি। এ কারণে গতকাল ৮০ পয়সা দরপতন হয় কোম্পানিটির। গতকালও দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে ছয়টি ছিল বি ক্যাটেগরির কোম্পানি।

মোট লেনদেনের ২০ শতাংশ ছিল ওষুধ ও রসায়ন খাতের দখলে। এ খাতে ৫৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ওরিয়ন ফার্মার আট কোটি ৩৯ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দরপতন হয় এক টাকা ৭০ পয়সা। বীকন ফার্মার সাত কোটি ৬৫ লাখ টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে পাঁচ টাকা ৬০ পয়সা। ওরিয়ন ইনফিউশনের সাড়ে সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় তিন টাকা ২০ পয়সা। পৌনে আট শতাংশ বেড়ে সেন্ট্রাল ফার্মা ও সাড়ে সাত শতাংশ বেড়ে বীকন ফার্মা দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ১৬ শতাংশ। এ খাতে ২৮ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। সোয়া ৯ শতাংশ বেড়ে এমএল ডায়িং ও সাত দশমিক ৭১ শতাংশ বেড়ে এপেক্স স্পিনিং দরবৃদ্ধিতে পঞ্চম ও নবম অবস্থানে উঠে আসে। ভিএফএস থ্রেড ডায়িংয়ের সাত কোটি ৩৯ লাখ টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় এক টাকা ৬০ পয়সা। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ১৪ শতাংশ। এ খাতে ৫১ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। নাহি অ্যালুমিনিয়ামের সাত কোটি ৯৩ লাখ টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে তিন টাকা। প্রায় সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়ে বিডি অটোকার দরবৃদ্ধিতে চতুর্থ অবস্থানে উঠে আসে। প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে বিবিধ খাতের সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজ দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। সাড়ে ৯ শতাংশের বেশি বেড়ে কাগজ ও মুদ্রণ খাতের হাক্কানি পাল্প ও খুলনা প্রিন্টিং ও প্যাকেজিং দর বৃদ্ধিতে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে ছিল। জ্বালানি খাতের বি ক্যাটেগরির সিভিও পেট্রো কেমিক্যালের সাত কোটি ৬১ লাখ টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ১২ টাকা ২০ পয়সা। এছাড়া ব্র্যাক ব্যাংকের সাড়ে সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে এক টাকা।