প্রচ্ছদ শেষ পাতা

ডিজিটাল আবাসন ব্যবসায় সম্ভাবনা দেখছে বিপ্রোপার্টি

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশের আবাসন ব্যবসাকে অনলাইন প্ল্যাটফর্মে রূপান্তরে বিরাট সম্ভাবনা দেখলেও চাহিদামাফিক ফ্ল্যাট বা প্রোপার্টির অপ্রতুলতাকে বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন বিপ্রপার্টিডটকমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মার্ক নোসওয়ার্দি।
গতকাল সোমবার রাজধানীর পল্টনে ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ‘আবাসন খাতে ডিজিটাল রূপান্তর ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক নলেজ শেয়ারিং অনুষ্ঠানে নোসওয়ার্দি এ কথা বলেন।
ফ্ল্যাট কেনাবেচার ক্ষেত্রে ক্রেতা ও বিক্রেতার মধ্যে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করা ই-কমার্সভিত্তিক এ প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটে বর্তমানে প্রায় ২৫ হাজারেরও বেশি প্রোপার্টির তথ্য পাওয়া যাচ্ছে, যেখান থেকে ক্রেতা বা ভাড়াটিয়ারা তাদের পছন্দমতো ফ্ল্যাট কিনতে বা ভাড়া নিতে পারছেন। ই-কমার্স এ প্রপার্টি পোর্টাল থেকে সেবা নেওয়ার জন্য ক্রেতাকে কোনো সার্ভিস চার্জ দিতে হয় না। বিক্রেতার কাছ থেকে তিন শতাংশ সার্ভিস চার্জ নেয় প্রতিষ্ঠানটি।
ব্যস্ততম নগর জীবনে ঘরে বসেই ফ্ল্যাট কেনাবেচা বা ভাড়া নেওয়ার সুবিধা দিতে বিপ্রপার্টিডটকম নিয়ে এসেছে ভার্চুয়াল ট্যুর, হোমলোন ক্যালকুলেটর, হিট ম্যাপ ও রেন্টাল সার্ভিস। দুবাইভিত্তিক ইমার্জিং মার্কেটস প্রোপার্টি গ্রুপের (ইএমপিজি) অঙ্গপ্রতিষ্ঠান বিপ্রপার্টিডটকম ২০১৬ সাল থেকে বাংলাদেশে কাজ করছে।
মার্ক নোসওয়ার্দি বলেন, ‘বর্তমানে ফ্ল্যাটের ক্রেতা বা ভাড়াটিয়াদের রুচির অনেক পরিবর্তন হয়েছে। আগে শুধু আয়তন দেখে ফ্ল্যাট কেনাবেচা হতো। এখন লোকেশন, আবাসন সুবিধা, অন্যান্য পরিষেবা সুবিধা, অগ্নি ও ভূমিকম্পসহ অন্যান্য নিরাপত্তা সুবিধা বিবেচনায় নিয়ে ফ্ল্যাট খোঁজ করছেন ক্রেতা বা ভাড়াটিয়ারা। কিন্তু দেশে অনেক নির্মিত বা নির্মাণাধীন ফ্ল্যাট রয়েছে যেগুলোর একটি উল্লেখযোগ্যসংখ্যক ফ্ল্যাট ক্রেতা বা ভাড়াটিয়াদের চাহিদা পূরণ করতে পারছে না।’
এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ক্রেতা বা ভাড়াটিয়াদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে ফ্ল্যাট নির্মাণের জন্য আবাসন ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানান নোসওয়ার্দি।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে নোসওয়ার্দি বলেন, ‘আমাদের নিজস্ব প্রকৌশলী ও আইনজীবী রয়েছে। যারা আবাসনের গুণগত মান ও নিরাপত্তাসহ কেনাবেচার ক্ষেত্রে আইনগত সহায়তাও প্রদান করে। ক্রেতা-বিক্রেতারা যাতে নিজেদের মধ্যে আলোচনা করতে পারেন সেজন্য আমাদের অফিসে বসার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।’
বর্তমানে ঢাকার পাঁচটি এলাকায় (বনানী, গুলশান, নিকেতন, বারিধারা ও বসুন্ধরা) এ সেবা দিচ্ছে বিপ্রোপার্টি। ঢাকা ছাড়া চট্টগ্রাম, সিলেট, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও কুমিল্লাতে এ সুবিধা সম্প্রসারণ করছে প্রতিষ্ঠানটি।
মার্ক নোসওয়ার্দি বলেন, ‘ক্রেতার সাধ্যের কথা বিবেচনা করে আমরা প্রায় সাত-আটটি ব্যাংকের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলেছি যাতে ক্রেতাদের গৃহঋণের ব্যবস্থা করে দিতে পারি।
ইআরএফের সহসভাপতি সৈয়দ শাহনেওয়াজ করিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সংবাদ সংস্থা রইটার্সের ব্যুরো চিফ সিরাজুল ইসলাম কাদির, ইআরএফের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম ও জিয়াউর রহমান প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ইআরএফের সাধারণ সম্পাদক এসএম রাশিদুল ইসলাম।

 

সর্বশেষ..