প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ডিজেল কেলেঙ্কারির প্রভাবে কমেছে ভক্সওয়াগনের মুনাফা

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ডিজেল কেলেঙ্কারির প্রভাব এখনও কাটিয়ে উঠতে পারেনি জর্মানির গাড়িনির্মাতা প্রতিষ্ঠান ভক্সওয়াগন। প্রতিষ্ঠানটির আয়ের সর্বশেষ চিত্রও ছিল হতাশাজনক। তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির পরিচালন আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় কমেছে ৪৮ শতাংশ। খবর রয়টার্স।

প্রতিবেদনমতে, জুলাই-সেপ্টেম্বরে ডিজেল কেলেঙ্কারির খরচ বাদে ভক্সওয়াগনের মুনাফা ছিল চার দশমিক তিন বিলিয়ন ইউরো বা তিন দশমিক আট বিলিয়ন পাউন্ড। আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় এটি ১৫ শতাংশ বেশি, কিন্তু কেলেঙ্কারির কারণে কোম্পানিটির খরচ অন্তর্ভুক্ত করার পর পরিচালন মুনাফা হয়েছে এক দশমিক সাত বিলিয়ন ইউরো। আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় এটি ৪৮ শতাংশ কম।

প্রতিযোগিতায় এগিয়ে গাড়ির বিক্রি বাড়াতে গোপন চতুরতার পথ বেছে নেয় জার্মানির এ বহুজাতিক কোম্পানি। প্রতিষ্ঠানটি তাদের তৈরি গাড়িতে এমন একটি সফটওয়্যার ব্যবহার করে, যা কার্বন নির্গমনের প্রকৃত তথ্য দেবে না। বরং নির্ধারিত মাত্রার মধ্যে কার্বন রয়েছে এমন তথ্য দেখাবে। সফটওয়্যারটি কোম্পানির অডি এ৩ কম্প্যাক্ট মডেলের ডিজেল ইঞ্জিনে ব্যবহার করা হয়।

২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রে ভক্সওয়াগনের গাড়িতে দূষণ নিরূপণ যন্ত্রে ত্রুটি ধরা পড়ে। পরে প্রতিষ্ঠানটি স্বীকার করে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রায় এক কোটি ১০ লাখ গাড়িতে দূষণ নিরূপণ যন্ত্রে ত্রæটি রয়েছে।

এরপর এ নিয়ে ভক্সওয়াগনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেন যুক্তরাষ্ট্রের গাড়ি মালিকরা। একাধিক আদালত ও নিয়ন্ত্রক সংস্থা ভক্সওয়াগকে জরিমানা করে। সব মিলিয়ে এ কেলেঙ্কারিতে জরিমানা করা হয়েছে ৩০ বিলিয়ন ডলার। শুধু চলতি বছরেই ১৪ দশমিক পাঁচ বিলিয়ন ইউরো ক্ষতিপূরণ দিয়েছে ভক্সওয়াগন। এতে গত দুই বছরে অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ে কোম্পানিটি।

দু’বছর আগের এ সমস্যা কাটিয়ে উঠতে জার্মানির প্রতিষ্ঠানটি নিয়মিত সংগ্রাম করে যাচ্ছে। দুর্নীতির দায়ে জার্মানির মিউনিখে প্রতিষ্ঠানটির সিসটার গ্রæপ পরশের সাবেক শীর্ষ এক কর্মকর্তাকে গ্রেফতারও করা হয়েছে।

ভক্সওয়াগন ইউরোপের বৃহত্তম গাড়ি নির্মাতা কোম্পানি। ৮০ বছরের ইতিহাসে এটি তাদের জন্য সবচেয়ে বড় কেলেঙ্কারির ঘটনা। কেলেঙ্কারির সংবাদটি ‘অপ্রত্যাশিত ও অনাকাক্সিক্ষত’এ কথা বলছেন বিশ্লেষকরা, যদিও ভক্সওয়াগন ইতোমধ্যে পরিবেশবান্ধব বৈদ্যুতিক গাড়ি আনার ঘোষণা দিয়েছে। ২০২০ সাল নাগাদ বৈদ্যুতিক হাইব্রিড গাড়ি বাজারে আনবে বলে প্রত্যাশা করছে কোম্পানিটি।

বিশ্বের গাড়ি উৎপাদনের শীর্ষ দশে রয়েছে ভক্সওয়াগনের গাড়ি উৎপাদন। এ তালিকায় ষষ্ঠ স্থানে প্রতিষ্ঠানটি। ইউরোপ ও আমেরিকার পাশাপাশি বিশ্বের প্রায় সব দেশেই এদের গাড়ি রয়েছে। ভক্সওয়াগন ছাড়াও এদের পোরশে, অডি, স্কুডি অডি, সেট, ল্যাম্বারগিনি, বেন্টলি মোটরস, স্কেনিয়া ও ডুকাটিসহ বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় ব্র্যান্ড রয়েছে।