প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

তিন কার্যদিবস পর দর সংশোধন

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: টানা তিন কার্যদিবস পর আবারও গতকাল বুধবার দর সংশোধন হয়েছে পুঁজিবাজারে। এর আগে টানা তিন কার্যদিবস বাজার ঊর্ধ্বমুখী ছিল। আগের দিন ডিএসইর প্রধান সূচক ও বাজার মূলধনের নতুন সর্বোচ্চ রেকর্ড হয়। গতকাল লেনদেনের শুরুতেই ঢাকার বাজারে সূচকের পতন হয়। এরপর দুপুর ১২টার দিকে কিছুটা বাড়লেও শেষ পর্যন্ত সূচকের পতন দিয়ে লেনদেন শেষ হয়। উভয় বাজারে সূচক পতনের পাশাপাশি লেনদেনও অনেক কমে যায়। ঢাকার বাজারে সূচক প্রায় ৪০ পয়েন্ট কমলেও লেনদেন কমেছে ৪০৬ কোটি টাকা।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, ডিএসইতে ৯১৪ কোটি ২৮ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল এক হাজার ৩২০ কোটি ৬৮ লাখ টাকার শেয়ার। লেনদেন কমেছে ৪০৬ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। যদিও গতকাল চার মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ লেনদেন হয়। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৭৯৮ কোটি ৮২ লাখ ২ হাজার ৮৬৩ টাকা। ৩৪ কোটি ৫৪ লাখ ৭৩ হাজার ২৯৯টি শেয়ার এক লাখ ৪৩ হাজার ৭৮০ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৩০টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৬৫টির। কমেছে ২৩২টির, অপরিবর্তিত ছিল ৩৩টির দর।

ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৩৯ দশমিক ৯৮ পয়েন্ট বা দশমিক ৬৮ শতাংশ কমে পাঁচ হাজার ৭৯০ দশমিক ৭৮ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইএস বা শরিয়াহ সূচক পাঁচ দশমিক ১৬ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৯ শতাংশ কমে এক হাজার ৩১৬ দশমিক ৬৯ পয়েন্টে আর ডিএস ৩০ সূচক ১০ দশমিক ২৮ পয়েন্ট বা দশমিক ৪৮ শতাংশ কমে দুই হাজার ১১৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

সবচেয়ে বেশি মূল্যের শেয়ার লেনদেন হয় কেয়া কসমেটিকসের। ৭৪ কোটি ৭৬ লাখ টাকায় ৪ কোটি  ৬ লাখ ২৮ হাজার ৬৪৫টি শেয়ার লেনদেন হয়। শেয়ারটির দর ১০ পয়সা বেড়ে ১৮ টাকা ২০ পয়সায় স্থির হয়। লেনদেনে পরের অবস্থানগুলোয় ছিল জেনারেশন নেক্সট, ইফাদ অটোস, ফু-ওয়াং ফুড, বেক্সিমকো, ইসলামী ব্যাংক, তুং হাই, নূরানী ডায়িং, সাইফ পাওয়ার, অগ্নি সিস্টেম। সবচেয়ে বেশি সংখ্যক শেয়ার লেনদেন হয় কেয়া কসমেটিকসের। এরপরের অবস্থানগুলোয় ছিল জেনারেশন নেক্সট, সিএন্ডএ টেক্স, ফু-ওয়াং ফুড, তুং হাই, এনবিএল, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, এবি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, বেক্সিমকো, নূরানী ডায়িং। পাঁচ দশমিক ৫০ শতাংশ দর বেড়ে বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে জেনারেশন নেক্সট। শেয়ারটির সর্বশেষ দর হয় ১১ টাকা ৫০ পয়সা। এরপর পাঁচ দশমিক ১১ শতাংশ বেড়েছে ফাইন ফুডসের দর। তুং হাই চার দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ, এশিয়া ইন্স্যুরেন্স তিন দশমিক ৯১ শতাংশ, বিডি অটোকার তিন দশমিক ৪৮ শতাংশ বেড়েছে। অন্যদিকে সাত দশমিক ৪৮ শতাংশ দর কমেছে প্রগ্রেসিভ লাইফের। বিডি ওয়েল্ডিংয়ের দর পাঁচ দশমিক ৭৪ শতাংশ, জিলবাংলার দর পাঁচ দশমিক ৪২ শতাংশ, বিচ হ্যাচারির দর পাঁচ দশমিক ৩১ শতাংশ, ফু-ওয়াং ফুডের দর পাঁচ দশমিক শূন্য চার শতাংশ কমেছে।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ১০০ দশমিক ৭৪ পয়েন্ট কমে ১০ হাজার ৮৫১ পয়েন্টে, সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৬৬ পয়েন্ট কমে ১৭ হাজার ৯৪৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ২৮১টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে ৫৪টির দর বেড়েছে। কমেছে ২১২টির। অপরিবর্তিত ছিল ১৫টির দর।এদিন ৫৬ কোটি ৯৯ লাখ ৯০ হাজার ৬২১ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৭৬ কোটি ৭০ লাখ ৬০ হাজার টাকার শেয়ার। সে হিসাবে সিএসইতে লেনদেন কমেছে ১৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা। গতকাল সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে ছিল কেয়া কসমেটিকস। কোম্পানিটির ৫ কোটি ৩২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। জেনারেশন নেক্সট তিন কোটি ৪৯ লাখ টাকার, বেক্সিমকো দুই কোটি ৬৪ লাখ টাকার, ফু-ওয়াং ফুড এক কোটি ৯৬ লাখ, এমজেএলবিডি এক কোটি ৬৭ লাখ, ইসলামী ব্যাংক এক কোটি ৫৯ লাখ, সাইফ পাওয়ার এক কোটি ৪৫ লাখ, সিএন্ডএ  এক কোটি ৪১ লাখ টাকার, ডরিন পাওয়ার এক কোটি ২৪ লাখ এবং অগ্নি সিস্টেমের এক কোটি ২৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।