প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

তিন দিনব্যাপী ‘উন্নয়ন মেলা’ ৯ জানুয়ারি শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের উদ্যোগে দেশের ৬৪টি জেলায় ‘উন্নয়ন মেলা’ আয়োজন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এতে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নেতৃত্বে এ মেলায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই), চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই), সিকিউরিটিজ হাউজ, মার্চেন্ট ব্যাংকসহ পুঁজিবাজারসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো সম্মিলিতভাবে অংশ নেবে। মেলায় সরকারি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে। বিএসইসি ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

তথ্যমতে, প্রাথমিকভাবে ৯ থেকে ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত দেশের যে ২৮টি জেলায় ব্রোকারেজ হাউজসহ পুঁজিবাজারসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের শাখা রয়েছে, সেসব জেলায় তিন দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলা অনুষ্ঠিত হবে। পরে বাকি ৩৬টি জেলায়ও মেলা অনুষ্ঠিত হবে। এখানে অংশগ্রহণ করবে বিএসইসি, ডিএসই, ব্রোকারেজ হাউজ, মার্চেন্ট ব্যাংকসহ পুঁজিবাজারসংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠান।

এ বিষয়ে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান শেয়ার বিজকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে দেশের ৬৪টি জেলায় উন্নয়ন মেলা আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ। মেলায় বিএসইসিসহ পুঁজিবাজারসংশ্লিষ্ট অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের (ডিএসই, সিএসই, মার্চেন্ট ব্যাংক ও সিকিউরিটিজ হাউজ) সমন্বিত স্টল থাকবে। প্রাথমিকভাবে যেসব জেলায় সিকিউরিটিজ হাউজের শাখা রয়েছে সেসব জেলার উন্নয়ন মেলায় অংশগ্রহণ করবে বিএসইসি। ইতোমধ্যে মেলায় অংশগ্রহণের জন্য প্রস্তুতি নেওয়া শুরু হয়েছে।’

তথ্যানুযায়ী, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে উন্নয়ন মেলা আয়োজন করার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ সংশ্লিষ্ট সব বিভাগের সঙ্গে গতকাল সোমবার অর্থ মন্ত্রণালয়ে এক জরুরি বৈঠক করেছে। বৈঠকে উন্নয়ন মেলা আয়োজনের কর্মপরিকল্পনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। সংশ্লিষ্ট সব বিভাগকে সফলভাবে মেলায় অংশগ্রহণের জন্য উদ্যোগ নিতে মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে পুঁজিবাজারসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার দায়িত্ব নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির। ইতোমধ্যে বিএসইসির পক্ষ থেকে মেলায় অংশগ্রহণের জন্য প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। প্রাথমিকভাবে যে ২৮টি জেলায় পুঁজিবাজারসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান যেমন সিকিউরিটিজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংকের শাখা রয়েছে সেসব জেলার উন্নয়ন মেলায় পুঁজিবাজারের প্রতিষ্ঠানগুলো অংশ নেবে। জেলা পর্যায়ে উন্নয়ন মেলা তদারকির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে জেলা প্রশাসককে। এজন্য ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট ২৮টি জেলার জেলা প্রশাসকের কাছে উন্নয়ন মেলায় অংশগ্রহণের বিষয়ে বিএসইসির পক্ষ থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। পরে বাকি ৩৬টি জেলায় উন্নয়ন মেলায় অংশগ্রহণের উদ্যোগ নেওয়া হবে।