বিশ্ব সংবাদ

তুরস্কের দুই মন্ত্রণালয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের

শেয়ার বিজ ডেস্ক : সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে সামরিক অভিযানের প্রতিক্রিয়ায় তুরস্কের দুটি মন্ত্রণালয় ও তিনজন ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এর পাশাপাশি যুদ্ধবিরতির দাবি জানাতে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানকে ফোন করেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স এ তথ্য জানিয়েয়ে বলেন, ‘যত দ্রুত সম্ভব’ তিনি অঞ্চলটি পরিদর্শনে যাবেন। খবর: বিবিসি।

সিরীয় সেনাবাহিনী দেশটির সংঘাতপূর্ণ উত্তর-পূর্বাঞ্চলে প্রবেশ করেছে। ফলে তুর্কি বাহিনীর সঙ্গে সিরীয় বাহিনীর সংঘাতের আশঙ্কা করা হচ্ছে। সিরিয়ার সীমান্ত রক্ষা ও তুর্কি হামলা প্রতিহত করতে বিদ্রোহী সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ফোর্সেসের (এসডিএফ) সঙ্গে প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ সরকারের চুক্তি হয়েছে। এর অংশ হিসেবেই সীমান্তের দিকে অগ্রসর হয় বাশার আল-আসাদের সামরিক বাহিনী।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সিরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। এরপরই গত বুধবার থেকে সিরিয়ার কুর্দিদের বিরুদ্ধে সীমান্তবর্তী বিভিন্ন এলাকায় অভিযান শুরু করে তুরস্ক। দেশটির দাবি, এসডিএফের সঙ্গে তুরস্কের কুর্দি বিদ্রোহীদের সংগঠন ওয়াইপিজির যোগসূত্র রয়েছে।

এক বিবৃতিতে মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তুরস্কের প্রতিরক্ষা ও জ্বালানি মন্ত্রণালয় এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী, জ্বালানিমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তারা। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘তুরস্ক সরকারের পদক্ষেপে নিরপরাধ বেসামরিকরা বিপদগ্রস্ত হয়েছে, ওই অঞ্চলটির স্থিতিশীলতা নষ্ট হয়েছে এবং আইএসআইএসকে (ইসলামিক স্টেট) পরাজিত করার উদ্যোগ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’ গত সোমবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় ওয়াশিংটন ডিসিতে মার্কিন অর্থমন্ত্রী স্টিভেন মুচিন নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি নিষেধাজ্ঞাগুলোকে ‘অত্যন্ত কঠোর’ বলে বর্ণনা করে এটি তুরস্কের অর্থনীতিতে মারাত্মক প্রভাব ফেলবে বলে মন্তব্য করেছেন।

সর্বশেষ..