বিশ্ব সংবাদ

তৃতীয় প্রান্তিকে কানাডার রেকর্ড প্রবৃদ্ধি

শেয়ার বিজ ডেস্ক : করোনাভাইরাস মহামারির ধাক্কায় বিশ্বজুড়ে অর্থনীতিতেই প্রভাব ফেলেছে। বড় অর্থনীতির দেশগুলোও হিমশিম খাচ্ছে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে। তবে করোনার প্রভাব অনেকটাই সামলে উঠেছে কানাডা। চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) রেকর্ড অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হয়েছে দেশটির। খবর: ব্ল–মবার্গ।  

গত মঙ্গলবার স্ট্যাটিসটিকস কানাডা প্রকাশিত তথ্যে দেখা গেছে, চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় দেশটির মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) বেড়েছে ৪০ দশমিক পাঁচ শতাংশ। অথচ এর আগের তিন মাসেই রেকর্ড ধস নেমেছিল কানাডার অর্থনীতিতে।

এ বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে দেশটির উৎপাদন কমে গিয়েছিল রেকর্ড ৩৮ দশমিক এক শতাংশ। অর্থাৎ, তৃতীয় প্রান্তিকে তারা সেই ক্ষতি বেশ ভালোভাবেই পুষিয়ে নিয়েছে। যদিও অর্থনীতিবিদদের ধারণা ছিল, তৃতীয় প্রান্তিকে কানাডার প্রবৃদ্ধি আরও বেশি হবে। এ তিন মাসে অর্থনীতি ৪৮ শতাংশ বাড়বে বলে আশা করেছিলেন তারা। তবে, মহামারির মধ্যেই করোনাপূর্ব অর্থনীতির প্রায় ৯৫ শতাংশ ফিরে পাওয়া যথেষ্ট আশাব্যঞ্জক।

তৃতীয় প্রান্তিকে কানাডার ভোগ্যব্যয় বেড়েছে প্রায় ৬৩ শতাংশ। একই সঙ্গে বেড়েছে আমদানি-রপ্তানিও। জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরে দেশটির রপ্তানি ৭২ শতাংশ বাড়লেও আমদানি বেড়েছে অন্তত ১১৪ শতাংশ। এ সময় বেড়েছে সঞ্চয়ও। যদিও তৃতীয় প্রান্তিকে পারিবারিক সঞ্চয় ১৪ দশমিক ছয় শতাংশ হারে কমেছে। তবে দ্বিতীয় প্রান্তিকে ২৭ দশমিক পাঁচ শতাংশ কমার চেয়ে তা যথেষ্ট স্বস্তিদায়ক।

কিন্তু চতুর্থ প্রান্তিকে অর্থনৈতিক উন্নতির এ ধারা ধরে রাখা বেশ কঠিন হতে পারে দেশটির জন্য। সম্প্রতি করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে কানাডায়। এতে বিভিন্ন অঞ্চলে আবারও লকডাউনের মতো বিধিনিষেধ আরোপ করতে বাধ্য হয়েছে সরকার। এর প্রভাব পড়ছে অর্থনীতিতেও। চতুর্থ প্রান্তিকে দশমিক দুই শতাংশ প্রবৃদ্ধি হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে স্ট্যাটিসটিকস কানাডা, যা গত এপ্রিলের পর থেকে প্রতি মাসে ধারাবাহিক বৃদ্ধির মধ্যে সবচেয়ে কম। তাছাড়া, নভেম্বর ও ডিসেম্বরে আবারও সংকোচনের মুখে পড়তে পারে কানাডার অর্থনীতি।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..