দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

তোমাকে পাওয়ার জন্য হে স্বাধীনতা

কাজী সালমা সুলতানা:

২৭ অগ্রহায়ণ ১৩৭৮

সোমবার, ১৪ ডিসেম্বর, ১৯৭১

এদিন রাতের অন্ধকারে বাঙালি বুদ্ধিজীবী, শিক্ষাবিদ, সাংবাদিক, সাহিত্যিক, চিকিৎসক, বিজ্ঞানী, আইনজীবী, শিল্পী, দার্শনিক ও রাজনৈতিক চিন্তাবিদদের মিরপুর, রায়েরবাজার ও মোহাম্মদপুরের বধ্যভূমিতে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করে আলবদর বাহিনী। সেদিন যাদের হত্যা করা হয়েছিল, তাদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষাবিদ ৯৯১ জন, সাংবাদিক ১৩, চিকিৎসক ৪৯, আইনজীবী ৪২, অন্যান্য (সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, শিল্পী ও প্রকৌশলী) ১৬। পাকিস্তানি জেনারেল রাও ফরমান আলীর পরিচালনায় গভীর রাতে লোকচক্ষুর অন্তরালে এই বর্বর ঘটনা ঘটে।

এদিন যৌথবাহিনী ফরিদপুর থেকে ঢাকার পথে মধুমতি নদী অতিক্রম করে। অতি দ্রুত ঢাকা পৌঁছার জন্য মিত্রবাহিনী দুটি ব্রিগেড শত্রুর অবস্থান এড়িয়ে দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে নদী পার হয়। এ কাজে স্থানীয় জনগণ যৌথবাহিনীকে সক্রিয়ভাবে সাহায্য করে। মিত্রবাহিনী পারাপারের জন্য শত শত নৌকার বন্দোবস্ত করে সারা রাত ধরে তাদের নদী পার করে।

১৪ ডিসেম্বর যৌথবাহিনীর একটি ব্রিগেড মানিকগঞ্জে পাকিস্তানি অবস্থানের ওপর আক্রমণ করে এবং মানিকগঞ্জকে শত্রুমুক্ত করে সাভারের দিকে এগিয়ে আসে। যৌথবাহিনী ঢাকার অদূরে টঙ্গীর ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া তুরাগের পাড়ে পাকিস্তানি বাহিনীর মুখোমুখি হয়। শত্রুসৈন্যরা এখানে শক্তিশালী প্রতিবন্ধকতা গড়ে তুলেছিল। কেননা টঙ্গী হচ্ছে উত্তর দিক থেকে ঢাকায় প্রবেশের পথ।

এদিন ঢাকার পশ্চিম-উত্তর সীমানা বরাবর চন্দ্রা-সাভার-মিরপুর অঞ্চল ধরে রাজধানীর দিকে এগিয়ে আসতে থাকে যৌথবাহিনীর আরেকটি ব্রিগেড। ঢাকার দক্ষিণ-পূর্ব দিকে শীতলক্ষ্যার পাড়ে ডেমরায় যৌথবাহিনী পাকিস্তানি প্রতিরোধ ব্যূহের ওপর আঘাত হানে। আরেকটি দল শীতলক্ষ্যা পার হয়ে রূপগঞ্জ মুক্ত করে। হেলিকপ্টারে করে যৌথবাহিনী গোমতী পার হয়ে মেঘনা তীরবর্তী বৈদ্যেরবাজারে অবস্থান নেয়। চট্টগ্রাম সেক্টরে মুক্তিবাহিনী কুমিরা ঘাঁটির পতন ঘটিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরের দিকে যাত্রা শুরু করে।

এদিন হানাদার বাহিনীর একটি ব্রিগেড কক্সবাজার হয়ে স্থলপথে মিয়ানমার পালানোর পথে মুক্তিবাহিনীর হাতে ধরা পড়ে। জেনারেল মানেকশ’র বাণী প্রচারিত হয় রাও ফরমান আলীর উদ্দেশে। জেনারেল মানেকশ বলেন, ‘আমার সৈন্যরা এখন ঢাকাকে ঘিরে ধরেছে এবং ঢাকার সেনানিবাস কামানের গোলার আওতায়। সুতরাং আপনারা আত্মসমর্পণ করুন। আত্মসমর্পণ না করলে নিশ্চিত মৃত্যু। যারা আত্মসমর্পণ করবে তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে এবং তাদের প্রতি ন্যায়সঙ্গত ব্যবহার করা হবে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় এদিন শত শত পাকিস্তানি সেনা আত্মসমর্পণ করে। এক ময়নামতিতেই আত্মসমর্পণ করে এক হাজার ১৩৪ পাকিস্তানি সৈন্য। কুমিল্লার মন্দভাগ এলাকায় যুদ্ধরত ছিলেন তিন ভাই বদিউজ্জামান, করিমুজ্জামান ও শাহজাহান। মুক্তিযুদ্ধের শেষ দিকে বড় ভাই বদিউজ্জামান তাদের ৯৮ রামকৃষ্ণ মিশন রোডের বাড়িটি পরিণত করেছিলেন মুক্তিযোদ্ধাদের ঘাঁটিতে। ১০ ডিসেম্বর ছোট দুই ভাই ঢাকায় এসে ভোররাতে বাড়িতে দেখা করতে আসেন। ১৩ ডিসেম্বর আলবদর বাহিনী তাদের ধরে নিয়ে যায় এবং পরে রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে পাওয়া যায় তিন ভাইয়ের লাশ।

এদিন মুক্তিযোদ্ধা ও মিত্রবাহিনীর সর্বাত্মক হামলার মুখে পাকিস্তানি সেনারা দিনাজপুর থেকে সৈয়দপুরে পালিয়ে যায় এবং দিনাজপুর শত্রুমুক্ত হয়। এদিকে ঢাকা বিজয়ে প্রচণ্ড হামলা রাজধানীর চারদিকে। মিত্রবাহিনীর কামানের গোলা গিয়ে পড়ল ঢাকা ক্যান্টনমেন্টেও। গভর্নর মালিক সেদিন সকালেই ‘সমগ্র পরিস্থিতি’ বিবেচনার জন্য গভর্নর হাউসে মন্ত্রিসভার এক জরুরি বৈঠক ডাকলেন। একটি পাকিস্তানি সিগন্যাল থেকে দিল্লির বিমান সদর দপ্তর জানতে পারে, ঢাকার গভর্নর ভবনে গভর্নরের মন্ত্রিসভার বৈঠক অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। ওই বৈঠক চলাকালেই মেঘালয়ের শিলং বিমান ঘাঁটি থেকে প্রেরিত অর্ধডজন মিগ-২১ গভর্নর ভবনে রকেট আক্রমণ চালায়। বিমান হানা শেষ হওয়ার পর তারা পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেয়। গভর্নর ডা. মালিক আত্মসমপর্ণের অনুমতি চেয়ে ইসলামাবাদে জেনারেল ইয়াহিয়ার কাছে জরুরি তারবার্তা পাঠান। কিন্তু ইয়াহিয়া উভয়ের অনুরোধ নাকচ করে দিয়ে জানান, নিশ্চয়ই চীন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সপ্তম নৌবহর পাকিস্তানকে রক্ষার জন্য হস্তক্ষেপ করবে। ‘অপেক্ষা করো এবং যুদ্ধ চালিয়ে যাও।’

তথ্যসূত্র : মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর, মূলধারা ৭১ ও বাংলাপিডিয়া

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..