প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

থাইল্যান্ডে নাইট ক্লাবে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১৩, আহত ৪১

শেয়ার বিজ ডেস্ক: থাইল্যান্ডের পূর্বাঞ্চলের একটি নাইট ক্লাবে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ১৩ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ৪১ জন। দেশটির পূর্বাঞ্চলের চনবুরি প্রদেশের ওই নাইট ক্লাবে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে অগ্নিকাণ্ডে এসব হতাহতের ঘটনা ঘটে। তবে ঠিক কী কারণে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে, তাৎক্ষণিকভাবে দেশটির ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা তা বলতে পারেননি। খবর: ব্যাংকক পোস্ট, বিবিসি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে উদ্ধারকারী সংস্থা সাওয়াং রোজানাথম্মাসথান রেসকিউ ফাউন্ডেশনের এক কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানান, ব্যাংককের দক্ষিণে প্রায় ১৫০ কিলোমিটার (৯০ মাইল) দূরে চনবুরি প্রদেশের সত্তাহিপ জেলার মাউন্টেন বি নাইটস্পটে (বৃহস্পতিবার ১৮০০ জিএমটি) ১টায় আগুনের সূত্রপাত হয়।

রেসকিউ সার্ভিসের পোস্ট করা ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, ক্লাবে উপস্থিত মানুষেরা মরিয়া হয়ে চিৎকার করে ক্লাব থেকে পালানোর চেষ্টা করছেন, তাদের জামা-কাপড় পুড়ে গেছে এবং তাদের পেছনে আগুন জ্বলছে।

উদ্ধারকারী সংস্থাটি বলেছে, ক্লাবের দেয়ালে মিউজিক্যাল সরঞ্জামের দাহ্য ফোম আগুনের বিস্তার ত্বরান্বিত করেছে এবং এটি নিয়ন্ত্রণে আনতে দমকল কর্মীদের তিন ঘণ্টারও বেশি সময় লেগেছে।

সংস্থাটি আরও জানায়, মৃতদের মধ্যে চারজন নারী ও ৯জন পুরুষ রয়েছেন, যাদের বেশিরভাগের মৃতদেহ ক্লাবের প্রবেশপথ ও বাথরুমে পাওয়া গেছে। তাদের দেহ মারাত্মকভাবে পুড়ে গেছে। নিহতরা সবাই থাই নাগরিক বলে ধারণা করা হচ্ছে।

দেশীয় টিভি চ্যানেলগুলোর ফুটেজে দেখা যায়, ক্লাব থেকে দৌঁড়ে বেরিয়ে আসছেন লোকজন। জরুরি সেবা বিভাগের কর্মীরা আগুন নেভানোর জন্য চেষ্টা করছেন। পুড়ে যাওয়া নাইট ক্লাবের মেঝেতে জুতা ও বোতল ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকতে দেখা গেছে।

স্থানীয় গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, এ অগ্নিকাণ্ডের মাত্র এক মাসের কিছু বেশি সময় আগে মাউন্টেন বি নাইট ক্লাবটি চালু হয়েছিল। একতলা এ ক্লাবটি সুপরিচিত সুখুমভিত সড়কের ওপর অবস্থিত। এই সড়কটি ব্যাংককের সঙ্গে অবকাশযাপন শহর পাতাইয়াকে সংযুক্ত করেছে। ক্লাবটির আশপাশে অনেক হোটেল ও বার আছে।

হতাহত ব্যক্তিদের পরিবারকে সরকারি সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী প্রিয়ুথ চ্যান ওচা। দেশজুড়ে বিনোদন কেন্দ্রগুলোয় উপযুক্ত বহির্গমন পথ ও নিরাপত্তাব্যবস্থা নিশ্চিত করতেও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।