প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

দরিদ্র দেশগুলোর ঘাড়ে বছরে ৬২ বিলিয়ন ডলারের ঋণের দায়: বিশ্বব্যাংক

শেয়ার বিজ ডেস্ক : বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোকে এখন অন্য দেশ ও সংস্থার কাছ থেকে নেয়া ঋণের জন্য সুদে-আসলে বছরে গুনতে হচ্ছে ছয় হাজার ২০০ কোটি (৬২ বিলিয়ন) ডলার, যা ২০২১ সালের চেয়ে ৩৫ শতাংশ বেশি। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ‘রয়টার্স নেক্সট’ শীর্ষক সম্মেলনে ঋণের এ পরিসংখ্যান তুলে ধরে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ডেভিড ম্যালপাস সতর্ক করে বলেছেন, অতিরিক্ত ঋণের চাপ খেলাপি হওয়ার ঝুঁকিও বাড়াবে। খবর: রয়টার্স।

বিপুল এ ঋণের দুই-তৃতীয়াংশ চীন সরবরাহ করে বলে জানিয়ে ম্যালপাস বলেন, আমি খেলাপি ঋণের বিশৃঙ্খলা নিয়ে উদ্বিগ্ন, কারণ ঋণ ব্যবস্থাপনার ভালো কাঠামো দরিদ্র দেশগুলোর নেই।

যুক্তরাষ্ট্রের মতো উন্নত দেশগুলোয় ঋণের পরিমাণ যেভাবে বাড়ছে, তা নিয়েও উদ্বিগ্ন বিশ্বব্যাংকের প্রধান। কারণ তারা উন্নয়নশীল দেশগুলো থেকে আরও বেশি পুঁজি তুলে নিচ্ছে। সুদহার বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে উন্নত অর্থনীতির ঋণের খরচও বেড়ে যায়, বিশ্বের বড় অঙ্কের মূলধন সেখানে খরচ হয়ে যায়।

আগামী সপ্তাহে চীনে একটি বৈঠকে অংশ নেবেন ম্যালপাস। সেখানে দরিদ্র দেশগুলোর জন্য ঋণ ছাড়, কভিড-১৯ নীতি, আবাসন খাতে নৈরাজ্য এবং অন্যান্য অর্থনৈতিক বিষয়ে চীনের কর্তৃপক্ষ এবং আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রধানদের সঙ্গে আলোচনা করবেন।

বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্ট বলেন, চীন অন্যতম প্রধান ঋণদাতা দেশ, ফলে এ ব্যাপারে তাদের অংশগ্রহণ খুব গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্ব পরিস্থিতিকে তারা কীভাবে দেখছে এবং দরিদ্র দেশগুলোর টেকসই সক্ষমতা অর্জনে কী করা দরকার, তা নিয়ে কাজ করা জরুরি।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) প্রধান ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভাও বৈঠকে অংশ নেবেন, যেখানে ঋণ সমস্যা সমাধানে কী করা প্রয়োজন, সে বিষয়েই জোর দেয়া হবে। এছাড়া চীনের ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক, এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট ব্যাংক অব চায়নার কর্মকর্তারা এবং চীন-যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান দ্বিপক্ষীয় ঋণদাতারা থাকবেন বৈঠকে।