পর্ষদ সভা

দুই কোম্পানির পর্ষদ সভার তারিখ ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের কোম্পানি সামিট পাওয়ার লিমিটেড এবং প্রকৌশল খাতের কোম্পানি কাসেম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড পরিচালনা পর্ষদ সভার তারিখ ঘোষণা করেছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
সামিট পাওয়ার লিমিটেড: আগামী ২২ সেপ্টেম্বর বেলা ৩টায় পরিচালনা পর্ষদ সভায় কোম্পানিটির ২০১৯ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত আর্থিক বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হবে।
এদিকে গতকাল ডিএসইতে কোম্পানিটির শেয়ারদর শূন্য দশমিক ৫০ শতাংশ বা ২০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি শেয়ার সর্বশেষ ৪০ টাকা ৪০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দরও ছিল ৪০ টাকা ৪০ পয়সা। দিনভর কোম্পানিটির তিন লাখ ৩৫ হাজার ৯২৮টি শেয়ার মোট ২৫৭ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর এক কোটি ৩৪ লাখ ৫৯ হাজার টাকা। ওই দিন শেয়ারদর সর্বনি¤œ ৩৯ টাকা ৮০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৪০ টাকা ৫০ পয়সায় ওঠানামা করে। এক বছরের মধ্যে শেয়ারদর ৩৭ টাকা ২০ পয়সা থেকে ৫২ টাকা ৫০ পয়সায় ওঠানামা করে।
২০১৮ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরে কোম্পানিটি ৩০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। ওই সময় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে চার টাকা ৪০ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) ৩১ টাকা ২৬ পয়সা। ওই সময় মুনাফা করেছে ৪৬৯ কোটি ৬০ লাখ ৮০ হাজার টাকা। এর আগে ৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের ৩০ লভ্যাংশ দেয়। ওই সময় কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে পাঁচ টাকা ৭৫ পয়সা এবং এনএভি ২৯ টাকা দুই পয়সা। মুনাফা করেছে ৬১৩ কোটি ৫৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা।
সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন ও বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ারের মূল্য আয় (পিই) অনুপাতে ৯ দশমিক ১৮ এবং হালনাগাদ অনিরীক্ষিত ইপিএসের ভিত্তিতে আট দশমিক ৫১। কোম্পানিটি ২০০৫ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। এক হাজার ৫০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন এক হাজার ৬৭ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ এক হাজার ৫৬৭ কোটি ১৩ লাখ ৪৮ হাজার টাকা।
কাসেম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড: আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর বেলা ২টা ৪৫ মিনিটে পরিচালনা পর্ষদ সভায় কোম্পানিটির ২০১৯ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হবে।
এদিকে গতকাল ডিএসইতে কোম্পানিটির শেয়ারদর ৯ দশমিক ৬৯ শতাংশ বা দুই টাকা ৮০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি সর্বশেষ ৩১ টাকা ৭০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ৩১ টাকা ৭০ পয়সা। ওইদিন এক লাখ ৮৬ হাজার ৩৪৬টি শেয়ার মোট ৩২২ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ৫৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা। দিনভর শেয়ারদর সর্বনি¤œ ২৯ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩১ টাকা ৭০ পয়সায় ওঠানামা করে। এক বছরের মধ্যে শেয়ারদর ২৭ টাকা ১০ পয়সা থেকে ৬৮ টাকা ৪০ পয়সায় ওঠানামা করে।
সর্বশেষ ২০১৮ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরে ১২ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ৫১ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৩৬ টাকা ২৫ পয়সা।
‘এ’ ক্যাটেগরির কোম্পানিটি ১৯৮৯ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। কোম্পানির ২০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ৫৮ কোটি ৮৪ লাখ ৭০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ১১১ কোটি ৮২ লাখ টাকা।

সর্বশেষ..