পর্ষদ সভা

দুই কোম্পানির পর্ষদ সভা ১৯ মার্চ

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংক খাতের স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক ও বিমা খাতের ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স  কোম্পানি পরিচালনা পর্ষদ সভার তারিখ ঘোষণা করেছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক: আগামী ১৯ মার্চ, বিকাল ৩টায় পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হবে এবং বিনিয়োগকারীদের জন্য লভ্যাংশের ঘোষণা আসতে পারে।

সম্প্রতি কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ টায়ার-টু বাস্তবায়নে পরপিচুয়াল বন্ড ইস্যু করে ৫০ কোটি টাকা উত্তোলন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সর্বশেষ তৃতীয় প্রান্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর, ২০১৯) আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৩৬ পয়সা, যা আগের বছর একই সময়ে হয়েছে দুই পয়সা। (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর, ২০১৯) সময়ে ইপিএস হয়েছে ৪৫ পয়সা, যা আগের বছর একই সময়ে হয়েছিল ১১ পয়সা। ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে ১৫ টাকা ৮৭ পয়সা, যা আগের বছর একই সময়ে হয়েছে ১৪ টাকা ৩০ পয়সা।

ব্যাংক খাতের ‘এ’ ক্যাটেগরির এ কোম্পানি ২০০৩ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৮ সমাপ্ত হিসাববছরে বিনিয়োগকারীদের জন্য ১০ শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ দিয়েছে, যা আগের বছরের সমান। ওই সময় কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ৪৪ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১৭ টাকা শূন্য এক পয়সা। এটি আগের বছর ছিল যথাক্রমে এক টাকা ৫৬ পয়সা ও ১৬ টাকা ৯৪ পয়সা। ওই সময় করপরবর্তী আয় করেছিল ১২৫ কোটি ৫৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা, যা আগের বছর ছিল ১২৩ কোটি ৮৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা। 

এক হাজার ৫০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ৯৫৮ কোটি আট লাখ ৬০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ৫২৩ কোটি ৫৩ লাখ ৯০ হাজার টাকা। কোম্পানিটির মোট ৯৫ কোটি ৮০ লাখ ৮৬ হাজার ৪৬৫টি শেয়ার রয়েছে। ডিএসইর সর্বশেষ তথ্যমতে, মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কাছে রয়েছে ৩৯ দশমিক ৬৩ শতাংশ শেয়ার, প্রাতিষ্ঠানিক ২১ দশমিক ৯৬ শতাংশ, বিদেশি এক দশমিক ২৬ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে ৩৭ দশমিক ১৫ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স: আগামী ১৯ মার্চ বেলা ৩টায় পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত আর্থিক বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হবে।

বিমা খাতের ‘এ’ ক্যাটেগরির কোম্পানিটি ১৯৯০ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ সালের সমাপ্ত হিসাববছরে বিনিয়োগকারীদের জন্য সাত শতাংশ নগদ ও পাঁচ দশমিক ৯৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ হিসেবে দিয়েছে। ওই সময় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) করে দুই টাকা ১৮ পয়সা। আর শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) ৩২ টাকা ৯৫ পয়সা। মুনাফা করেছে ৯ কোটি ১৭ লাখ টাকা।

৫০ কোটি টাকা অনুমোদিত ও ৪৪ কোটি ৫০ লাখ টাকা পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানিটির মোট শেয়ার সংখ্যা চার কোটি ৪৫ লাখ টাকা। কোম্পানির রিজার্ভে আছে ৯৩ কোটি ৯০ লাখ টাকা। মোট শেয়ারের ৪২ দশমিক ৯৪ শতাংশ উদ্যোক্তা, ৩৮ দশমিক ২৮ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক, ১৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..