প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

দুই মেয়াদে সাত লাখের বেশি সরকারি চাকরি

সংসদে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের দুই মেয়াদে সাত লাখের বেশি সরকারি চাকরি দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। গতকাল জাতীয় সংসদে নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের এক প্রশ্নের লিখিত জবাবে এ কথা জানান তিনি। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়।

প্রশ্নোত্তরে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার গত দুই মেয়াদে এ পর্যন্ত মোট সাত লাখ ২৮ হাজার ৪৬ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সরকারি চাকরি দিয়েছে। সরকারি অফিসগুলোর শূন্যপদে লোক নিয়োগ একটি চলমান প্রক্রিয়া। বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বা বিভাগ এবং এর অধীন সংস্থাগুলোর চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে সরকারি কর্মকমিশনের মাধ্যমে ১০ থেকে ১২ গ্রেডের (২য় শ্রেণি) শূন্যপদে জনবল নিয়োগ করা হয়। ১৩ থেকে ২০ গ্রেডের (৩য় ও ৪র্থ শ্রেণি) পদে স্ব স্ব মন্ত্রণালয়, বিভাগ বা দফতরের নিয়োগবিধি অনুযায়ী জনবল নিয়োগ দেওয়া হয়।

ফরহাদ হোসেন বলেন, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা অনুবিভাগ থেকে ধারাবাহিকভাবে সব মন্ত্রণালয় বা বিভাগের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে নতুন পদ সৃষ্টিতে সম্মতি দেওয়া হয়। পরবর্তীকালে মন্ত্রণালয় বা বিভাগ স্ব স্ব বিধি অনুযায়ী ওই পদে জনবল নিয়োগ দেয়। শূন্যপদ দ্রুত পূরণের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে সব মন্ত্রণালয় বা বিভাগকে অনুরোধ করা হয়েছে।

এদিকে, ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত নারী-পুরুষ ও শিশুসহ সর্বমোট চার লাখ ৫৮ হাজার ৫৬ জন বিচারপ্রার্থী জনগণকে আইনগত সহায়তা প্রদান করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে মোরশেদ আলমের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

আইনমন্ত্রী বলেন, আর্থিক অসচ্ছলতা, সম্বলহীন এবং নানাবিধ আর্থসামাজিক কারণে বিচারপ্রার্থীকে অসমর্থ জনগোষ্ঠীর আইনি অধিকার নিশ্চিতকল্পে তাদের আইনগত সহায়তা প্রদানের উদ্দেশে সরকার ২০০০ সালে ‘আইনগত সহায়তা প্রদান আইন, ২০০০’ প্রণয়ন করে। এ আইনের আওতায় সরকার জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা প্রতিষ্ঠা করে এবং দরিদ্র অসহায় মানুষের আইনের আশ্রয় লাভ ও আইনি কাঠামোর প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার উদ্দেশে প্রত্যেক জেলা জজ আদালত প্রাঙ্গণে জেলা লিগ্যাল এইড অফিস প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, দেশের সর্বোচ্চ আদালতে আইনি সেবাপ্রাপ্তি নিশ্চিত করার জন্য স্থাপন করা হয়েছে সুপ্রিমকোর্ট লিগ্যাল এইড অফিস। এছাড়া উপজেলা পর্যায়েও এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে ইউনিয়ন লিগ্যাল এইড কমিটি গঠন করা হয়েছে।

আনিসুল হক বলেন, চৌকি আদালত গঠিত হয়েছে বিশেষ কমিটি। সরকার জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার তত্ত্বাবধানে এসব কমিটির অফিসের মাধ্যমে দরিদ্র সুবিধাবঞ্চিত ও বিচারপতি অসমর্থ প্রান্তিক পর্যায়ের বিচারপ্রার্থী ও শ্রমজীবী জনগণকে সরকারি খরচে আইনগত সহায়তা প্রদান করছে।

এর আগে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের অধিবেশন শুরু হয়। চলতি সংসদের এমপি মঈনউদ্দীন খান বাদলের মৃত্যুতে সংসদে শোক প্রস্তাব আনার পর তাকে নিয়ে আলোচনা হয়।

সর্বশেষ..