খবর

দেশের যেকোনো স্থানে ১২ ঘণ্টার মধ্যেই পৌঁছে দেয়া যাবে টিকা

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা জেলার ইপিআই স্টোরের প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. মাওলা বক্স চৌধুরী বলেছেন, ‘প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস প্রতিরোধের ভ্যাকসিন সংরক্ষণের জন্য আমাদের কোল্ড বক্স আছে, সেখানে ২৪টি আইস প্যাক দিয়ে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা হয়। সেই কোল্ড বক্সে ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত ভ্যাকসিন রাখা যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘দেশের যেকোনো জায়গায় যদি এই ভ্যাকসিনটি পরিবহন করি, তবে ১২ থেকে ১৮ ঘণ্টার মধ্যে সবচেয়ে দূরে যে জেলাটি আছে, অর্থাৎ পঞ্চগড় অথবা কক্সবাজারে যাওয়া যাবে। যদিও আমাদের হাতে আছে ৭২ ঘণ্টা।’

গতকাল দুপুরে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তেজগাঁওয়ের জেলা ইপিআই স্টোরে আনার পর সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন ডা. মাওলা বক্স চৌধুরী।

ঢাকা জেলার ইপিআই স্টোরের প্রোগ্রাম ম্যানেজার বলেন, ‘এই ভ্যাকসিন পরিবহনের ক্ষেত্রে সড়কের সব স্থানে ইনফরমেশন দেয়া থাকে। যদি ফেরি পারাপারের বিষয় থাকে তবে সেখানেও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের (পুলিশ, জেলা প্রশাসন, সিভিল সার্জন) ইনফরমেশন দেয়া থাকবে। এই ভ্যাকসিন সংরক্ষণের জন্য সারা দেশেই ব্যবস্থা আছে। সেই সক্ষমতা আমাদের আছে। আজকের সম্পূর্ণ ভ্যাকসিন আমরা জেলা ইপিআই স্টোরে রাখব। ’

তিনি আরও বলেন, ‘কতগুলো ভ্যাকসিন পেয়েছি, তার কাগজ এখনও আমি হাতে পাইনি। তবে ২০ লাখ ভ্যাকসিন আসার কথা রয়েছে। আমি এই ভ্যাকসিনগুলো গণনা করব, তারপর সংখ্যাটি বলতে পারব।’

ইপিআই স্টোরের টেম্পারেচারের বিষয়ে ডা. মাওলা বক্স বলেন, ‘ইপিআই স্টোরে টেম্পারেচার আট ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি হবে না। কারণ এখানকার টেম্পারেচার আমরা হেড অফিস থেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারি। এখানে রিমোট কন্ট্রোল টেম্পারেচার মনিটরিং ডিভাইস আছে। এছাড়া আমাদের ফ্রিজট্যাগ আছে। ফ্রিজট্যাগ দিয়ে আমরা গত দুই মাস আগের টেম্পারেচার দেখতে পারি।’

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..