দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা

দেশে ফেরত পাঠানো হচ্ছে মালয়েশিয়ায় গ্রেপ্তার রাহয়ানকে

শেয়ার বিজ ডেস্ক: করোনাকালে অবৈধ অভিবাসীদের চিকিৎসাসেবা নিয়ে মালয়েশিয়া সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুলেছিলেন বাংলাদেশি প্রবাসী রায়হান কবির। দুই সপ্তাহ খোঁজ করার পর তাকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির পুলিশ।

রায়হানকে গ্রেপ্তারের পর মালয়েশিয়ার অভিবাসন দপ্তরের মহাপরিচালক খায়রুল জাইমি দাউদ গতকাল এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ২৪ জুলাই গ্রেপ্তার হওয়া বাংলাদেশি শ্রমিক মো. রায়হান কবিরকে দেশে ফেরত পাঠানো হবে। তাকে কালো তালিকাভুক্ত করা হবে, যাতে আর কখনোই মালয়েশিয়ায় ঢুকতে না পারে।

মালয়েশিয়ার পত্রিকাগুলো বলছে, শনিবার রাতেই রায়হানকে বিমানযোগে ফেরত পাঠানোর কথা রয়েছে। অবশ্য রায়হানকে গ্রেপ্তারের কারণ কিংবা তিনি কোনো অপরাধের সঙ্গে জড়িত কি না, সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি দাউদ। তবে জানা গেছে, গত ৩ জুলাই করোনা মহামারির বিষয়ে মালয়েশিয়া সরকারের উদ্যোগ নিয়ে একটি প্রামাণ্য প্রতিবেদন সম্প্রচার করে আল-জাজিরা টেলিভিশন। সেখানে মালয়েশিয়ায় অবৈধভাবে থাকা অভিবাসী শ্রমিকদের চিকিৎসাসেবা দেওয়ার বিষয়ে সরকারের কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন রায়হান কবির।

রায়হান আল জাজিরাকে বলেন, মহামারির মধ্যে অবৈধ শ্রমিকদের আটক ও জেলে পাঠানোর মাধ্যমে মালয়েশিয়া সরকার বৈষম্যমূলক আচরণ করছে। মালয়েশিয়ায় অবৈধভাবে থাকা কোনো অপরাধ নয়। তবে দেশটির সরকারের কর্মকর্তারা আল জাজিরার ওই খবর ‘ভুল, বিভ্রান্তিকর ও অন্যায্য’ বলে দাবি করেন। ওই প্রতিবেদন সম্প্রচারের পর দেশটিতে ক্ষোভের সঞ্চার হলে রায়হানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

রায়হান কবিরের গ্রেপ্তারের বিষয়ে কাতারভিত্তিক আল জাজিরা কোনো বক্তব্য না দিলেও টেলিভিশনটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের কর্মী এবং ওই প্রতিবেদনে যাদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছিল, তাদের হয়রানি, হত্যার হুমকি ও ব্যক্তিগত তথ্য সামাজিক মাধ্যমে ফাঁস করার হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে লকডাউন শুরু হলে মালয়েশিয়া সরকার শিশু, রোহিঙ্গা শরণার্থীসহ কয়েকশ অবৈধ শ্রমিককে আটক করে।

মালয়েশিয়া সরকারের কর্মকর্তারা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতেই অবৈধ অভিবাসীদের আটকের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন। দেশটির স্থানীয়রাও অভিবাসী শ্রমিকদের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..