খবর দিনের খবর

দেশে সরকারি হাসপাতালে আইসিইউ বেড রয়েছে ৭৩৩টি

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে সরকারি হাসপাতালগুলোয় সব মিলিয়ে ৭৩৩টি ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) বেড রয়েছে। কভিড-১৯ মহামারির মধ্যে একটি রিট আবেদনে হাইকোর্টের নির্দেশে এই সংখ্যা সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের ভার্চুয়াল আদালতে মঙ্গলবার এ তথ্য তুলে ধরে রাষ্ট্রপক্ষ।

রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার। রিট আবেদনকারীর পক্ষে ছিলেন ইয়াদিয়া জামান। অমিত তালুকদার সাংবাদিকদের বলেন, ‘আইসিইউ নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেওয়া তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। তবে বেসরকারি হাসপাতালে কোভিড চিকিৎসা-সংক্রান্ত আরও দুটি রিট রয়েছে। সব রিটের শুনানির জন্য ১৪ জুন তারিখ রেখেছেন আদালত।’

ইয়াদিয়া জামান বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ একটি প্রতিবেদন দাখিল করেছে। প্রাইভেট হসপিটালের অব্যবস্থাপনা নিয়ে আরও দুটি রিট মামলা হওয়ায় আদালত আগামী রোববার পরবর্তী শুনানির জন্য ধার্য রেখেছেন। আদালত আইসিইউ বেড অব্যবস্থাপনা ও অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের পরিস্থিতির অবনতি ঘটলে আইসিইউ জরুরি হয়ে পড়ে। আইসিইউর জন্য রোগীদের এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ছুটতে হচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আইন উপদেষ্টা (উপসচিব) দেবাশীষ নাগের স্বাক্ষরে হাইকোর্টে দেওয়া প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জরুরি এ পরিস্থিতিতে গত ফেব্রুয়ারি থেকে শুধু কভিড সার্ভিসের জন্য ১৭টি হাসপাতালে ২৩৫টি আইসিইউ ইউনিট স্থাপন করা হয়েছে।

২৩৫টি আইসিইউ ইউনিটের মধ্যে নারায়ণগঞ্জের ৩০ শয্যা হাসপাতালে ১০টি, মহানগর হাসপাতালে পাঁচটি, লালকুঠি হাসপাতালে পাঁচটি, গোলাপগঞ্জ হাসপাতালে ১০টি, বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে সাতটি, সিলেটের শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে ৯টি, চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ১০টি, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১০টি, খুলনার জেলা হাসপাতালে ১০টি, বরিশাল জেলা হাসপাতালে ১০টি, রংপুর শিশু হাসপাতালে ১০টি, ময়মনসিংহের এসকে হাসপাতালে পাঁচটি, শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপতালে ১৬টি, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ১৬টি, কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে ২৭টি, বসুন্ধরা আইসোলেশন হাসপাতালে ৫০টি ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ফিল্ড হাসপাতালে ২৫টি স্থাপন করা হয়েছে। এগুলো নিয়ে দেশের সরকারি হাসপাতালে মোট আইসিইউর সংখ্যা ৭৩৩টি বলে উল্লেখ করা হয়েছে প্রতিবেদনে।

গত ৮ জুন দেওয়া আদেশে আদালত আইসিইউর সংখ্যার পাশাপাশি সেগুলোর ব্যবস্থাপনা কীভাবে হয়ে থাকে, তাও জানতে চেয়েছিলেন।

আইসিইউ ব্যবস্থাপনার বিষয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘স্বাস্থ্য অধিদপ্তর স্থাপিত কন্ট্রোল রুমের মাধ্যমে আইসিইউ ব্যবস্থাপনা-সম্পর্কিত কাজ এরই মধ্যে চালু হয়েছে। কভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য আইসিইউ সাপোর্ট-সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল যদি অপর্যাপ্ত হয়, তাহলে তারা কন্ট্রোল রুমে যোগাযোগ করেন। কন্ট্রোল রুম থেকে নিকটস্থ যে হাসপাতালে আইসিইউ সহজপ্রাপ্য রয়েছে, সেখানে রোগীকে পাঠানোর জন্য পরামর্শ প্রদান করা হয় এবং একইসঙ্গে আইসিইউ প্রস্তুত রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট হাসপাতালকে পরামর্শ প্রদান করা হয়।’

রিট আবেদনটিতে বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউ অধিগ্রহণ ও অনলাইনে সেন্ট্রাল বেড ব্যুরো চালুর নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। রিট আবেদনটি করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালের ডেপুটি রেজিস্ট্রার ডা. শেখ আব্দুল্লাহ আল মামুন।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..