বিশ্ব সংবাদ

দ্বিতীয়বারের মতো ট্রাম্পের অভিশংসন প্রস্তাব গৃহীত

শেয়ার বিজ  ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্ট ভবনে (ক্যাপিটল হিল) হামলা কেন্দ্র করে দ্বিতীয়বারের মতো অভিশংসনের প্রস্তাব গৃহীত হয়েছে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এটি নজিরবিহীন ঘটনা।

বুধবার হাউস অব রিপ্রেজেনন্টেটিভে ভোটাভুটিতে ২৩২-১৯৭ ভোটে পাস হয় অভিশংসন প্রস্তাবটি। এতে ট্রাম্পের দলের ১০ জন আইনপ্রণেতাও অভিশংসনের পক্ষে ভোট দিয়েছেন।

এর আগে, ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে ২০১৯ সালে একবার প্রতিনিধি পরিষদে অভিশংসিত হয়েছিলেন ট্রাম্প। তবে সে দফায় সিনেটে ভোটাভুটিতে তার পদ রক্ষা হয়। এবার গত নভেম্বরে ভোটের পর হার স্বীকার না করে উল্টো কারচুপির অভিযোগ তুলে নির্বাচনকে বিতর্কিত করার দৃষ্টিকটু প্রয়াস চালান ট্রাম্প। তার ধারাবাহিকতায় গত ৬ জানুয়ারি কংগ্রেসে জো বাইডেনের বিজয়ের স্বীকৃতি দেয়ার দিনে বিক্ষুব্ধ ট্রাম্প সমর্থকরা ক্যাপিটল হিলে নজিরবিহীন হামলা চালায়। তাতে পাঁচজন নিহত হয় ।

এদিকে বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন বিচার শুরু করতে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন কংগ্রেসের উচ্চ কক্ষ সিনেটের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলোর পাশাপাশি এ প্রক্রিয়াটিরও সুরাহা করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি। খবর: বিবিসি, সিএনএন, রয়টার্স।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভা ক্যাপিটল হিলে উগ্র ট্রাম্প-সমর্থকদের হামলার পর বিদায়ী প্রেসিডেন্টকে নির্ধারিত সময়ের আগেই পদ থেকে সরাতে ডেমোক্র্যাট আইনপ্রণেতারা প্রতিনিধি পরিষদে (হাউস অব রিপ্রেজেনন্টেটিভ) অভিশংসন প্রস্তাব উত্থাপন করে। বুধবার সে প্রস্তাবের পক্ষে বিপক্ষে ভোটাভুটি হয়।

৪৩৫ সদসদ্যের প্রতিনিধি পরিষদে ২৩২-১৯৭ ভোটে পাস হয় প্রস্তাবটি। এর মধ্য দিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো কংগ্রেসের নি¤œ কক্ষে অভিশংসিত হয়েছেন ট্রাম্প। চ‚ড়ান্ত অভিশংসনের জন্য প্রস্তাবটি এখন ১০০ সদস্যর সিনেটে পাঠানো হবে। সেখানে বিচারপ্রক্রিয়ার পর দুই-তৃতীয়াংশ ভোটে পাস করাতে হবে এটি। সে বিচার প্রক্রিয়া শুরু করতে সিনেটকে অনুরোধ জানিয়ে বুধবারই বিবৃতি দেন বাইডেন।

বিবৃতিতে বাইডেন বলেন, এ দেশের মানুষ প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ও বিপর্যস্ত অর্থনীতি নিয়ে সংকটের মধ্যে আছে। আমি আশা করি, সিনেট নেতারা এ দেশের জন্য অন্যান্য জরুরি কাজগুলো করার পাশাপাশি অভিশংসন নিয়ে তাদের যে সাংবিধানিক দায়িত্ব রয়েছে তা পালনের জন্য উপায় খুঁজে বের করবেন।

আগামী ২০ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবেন জো বাইডেন। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে তার ক্ষমতা গ্রহণের আগে সিনেটে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন বিচার শুরুর সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। দায়িত্ব গ্রহণের পর বাইডেন মনোনীত মন্ত্রিপরিষদ সদস্যদের নিয়োগ দেয়ার প্রশ্নে সিনেটের ব্যস্ততা থাকবে। তাছাড়া বাইডেনের আরও কিছু এজেন্ডা বাস্তবায়নের কাজও চলবে। তবে নতুন প্রেসিডেন্ট চান, সেসব কাজের পাশাপাশি অভিশংসন বিচার প্রক্রিয়াও চলুক।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..