বিশ্ব সংবাদ

দ্বিতীয় প্রান্তিকে বোয়িংয়ের লোকসান ২৪০ কোটি ডলার

শেয়ার বিজ ডেস্ক: তিন মাসে ২৪০ কোটি ডলার লোকসান দিয়েছে মার্কিন উড়োজাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িং। এপ্রিল থেকে জুন এ তিন মাসে কোম্পানিটির বিক্রি গত বছরের তুলনায় কমেছে এক হাজার ১৮০ কোটি ডলার বা ২৫ শতাংশ। করোনার কারণে চাহিদা কমায় ব্যাপক এ লোকসানে পড়েছে জায়ান্ট কোম্পানি। খবর: বিবিসি।

বোয়িং বলছে, লোকসানের কারণে ক্ল্যাসিক ৭৪৭ মডেলের উড়োজাহাজ তৈরি বন্ধ করে দেবে তারা। এছাড়া বেশকিছু জেটের উৎপাদন কমাবে তারা, এর মধ্যে রয়েছে ৭৩৭ ম্যাক্স। বোয়িংয়ের প্রধান ডেভ ক্যালহিও বলেন, ‘বাস্তবতা হলো উড়োজাহাজ খাতে করোনার প্রভাব মারাত্মকভাবে অব্যাহত রয়েছে।’

করোনার কারণে বিশ্বব্যাপী বিমান সংস্থা তাদের বহর কমিয়ে ফেলে। এ মাসে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ জানায়, তাদের বহরে আর কোনো ৭৪৭ জেট থাকবে না, যা তাদের বহরের প্রায় ১০ শতাংশ। মূলত চাহিদা কমে যাওয়ায় কোম্পানিটি এ সিদ্ধান্তের কথা জানায়। এর আগে অস্ট্রেলিয়ান এয়ারওয়েজ কানতাসও একই কথা জানায়।

বোয়িং বলছে, জেট উৎপাদন কমালে প্রায় ১৬ হাজার কর্মীকে অব্যাহতি দিতে হতে পারে তাদের, যা তাদের কর্মীর প্রায় ১০ শতাংশ। এ বিষয়ে ইতোমধ্যে পরিকল্পনা নিয়ে ফেলেছে তারা। ক্যালহিও বলেন, ‘আমরা ভবিষ্যতের ভালো অবস্থান নিশ্চিত করতে সঠিক পদক্ষেপ নিচ্ছি।’

তবে করোনার আগে ৭৩৭ ম্যাক্স নিয়ে বিপাকে ছিল বোয়িং। ওই মডেলের দুটি বড় দুর্ঘটনায় ৩৪৬ জনের মৃত্যু হয়। এরপর ওই মডেল তৈরি বন্ধ করে বোয়িং। এখন তারা বলছে, আবারও ওই মডেলের উড়োজাহাজ তৈরি হলেও উৎপাদন কম হবে।

নানা দেশকে একে-অপর থেকে বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে মাত্র একটি ভাইরাস কভিড-১৯। বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারগুলোতে এখন দিনের পর দিন পড়ে থাকছে আকাশে যাত্রী পরিবহন সংস্থাগুলোর উড়োজাহাজের সারি। এসব কিছুর মিলিত প্রভাবে বিশ্বব্যাপী এয়ারলাইনসগুলোর লোকসানের মাত্রা ৩১ হাজার ৪০০ কোটি ডলারে উন্নীত হতে চলেছে। ইতিপূর্বে দেওয়া এক পূর্বাভাসের চাইতে যা ২৫ শতাংশ বেশি। মূলত; অর্থনৈতিক পরিস্থিতির দৈন্যভাব এবং আন্তর্জাতিক রুটগুলো উš§ুক্ত হতে আগের অনুমানের চাইতে বেশি সময় লাগবে- এমন হিসাব-নিকাশের ওপর ভিত্তি করেই সাম্প্রতিক লোকসানের অঙ্ক নির্ধারণ করা হয়েছে।

সার্বিক ক্ষতির এ চিত্র প্রকাশ করে আকাশপথে পরিবহন বাণিজ্যেজড়িত সংস্থাগুলোর জোট-ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন বা আইএটিএ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..