কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

দ্বিতীয় প্রান্তিকে সিটি ব্যাংকের ইপিএস ৮৪ পয়সা বেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে দি সিটি ব্যাংক লিমিটেড। আর এ প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) আগের বছরের তুলনায় ৮৪ পয়সা বেড়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রাপ্ত তথ্যমতে, কোম্পানিটির দ্বিতীয় প্রান্তিকে (এপ্রিল-জুন, ২০২১) শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ১৩ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ২৯ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস বেড়েছে ৮৪ পয়সা। আর প্রথম দুই প্রান্তিক বা ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন, ২০২১) ইপিএস হয়েছে দুই টাকা ছয় পয়সা, যা আগের বছর একই সময় এক টাকা ছিল। এছাড়া ২০২১ সালের ৩০ জুন তারিখে শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৮ টাকা ২৪ পয়সা, যা ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বরে ছিল ২৭ টাকা ৬৫ পয়সা। আর আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ দাঁড়িয়েছে তিন টাকা ৮৫ পয়সা, অথচ আগের বছর একই সময় তিন টাকা ৪৮ পয়সা (লোকসান) ছিল।

এদিকে সম্প্রতি দি সিটি ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদ ৭০০ কোটি টাকার বন্ড ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মূলত মূলধন শক্তিশালী করার জন্য এ বন্ড ছাড়বে ব্যাংকটি। ৭০০ কোটি টাকার সাব-অর্ডিনেটেড বন্ডটি ব্যাসেল থ্রি’র শর্তপূরণ সাপেক্ষে টায়ার টু মূলধন বৃদ্ধির জন্য ইস্যু করা হবে। পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এবং অন্য নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন সাপেক্ষে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে।

ব্যাংক খাতের কোম্পানিটি ১৯৮৬ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। এক হাজার ৫০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন এক হাজার ৬৭ কোটি ২১ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ এক হাজার ৭৭৮ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

ডিএসইর সর্বশেষ তথ্যমতে, কোম্পানির মোট ১০৬ কোটি ৭২ লাখ পাঁচ হাজার ৯৯৪টি শেয়ার রয়েছে। কোম্পানির মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কাছে ৩২ দশমিক ৮৮ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ২৩ দশমিক ৬৪ শতাংশ, বিদেশি বিনিয়োগকারী তিন দশমিক শূন্য ছয় শতাংশ শেয়ার।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..