Print Date & Time : 27 October 2020 Tuesday 8:55 pm

নকলনবিসদের চাকরি স্থায়ীকরণ চাই

প্রকাশ: August 14, 2020 সময়- 12:07 am

অবহেলিত জনগোষ্ঠীর আরেক নাম দেশের ৬১ জেলার (পার্বত্য চট্টগ্রাম ব্যতীত) পাঁচ শতাধিক সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে নকলনবিস নামে কর্মরত প্রায় ১৮ হাজার কর্মচারী। সরকারি অফিসে কর্মরত থাকা সত্ত্বেও এসব কর্মচারী সরকারের হাজারো সুবিধা থেকে সম্পূর্ণভাবে বঞ্চিত। যার অন্যতম কারণ অস্থায়ী নিয়োগ এবং বেতন রাজস্ব খাত থেকে সরাসরি অন্তর্ভুক্ত না হওয়া। আর এ কারণেই বাড়ি ভাড়া, নববর্ষ ভাতা, চিকিৎসা ভাতা, শিক্ষা সহায়ক ভাতা, মহার্ঘ ভাতা, টিফিন ভাতাসহ কোনো ধরনের ভাতার স্বাদ এরা পায় না। এমনকি বিনা পারিশ্রমিকে নারী নকলনবিসদের মাতৃত্বকালীন ছুটি ভোগ করতে হয়। আর এভাবে চলতে চলতে যখন বয়সসীমা ৬০ বছর অতিক্রম করে, তখন কোনো ধরনের পেনশন ভাতা না পেয়েই চাকরি ছাড়তে বাধ্য হতে হয়। অবসরে যাওয়ার পর এদের কোনো ধরনের অবসরকালীন ভাতাও প্রদান করা হয় না। যার ফলে দুঃখ এবং দারিদ্রকে সঙ্গী করেই তাদের জীবনকে অতিবাহিত করতে হয়। এদিকে রেজিস্ট্রেশন আইনের মূল উদ্দেশ্য হলো মোহরার (স্থায়ী নকলনবিস) দ্বারা রেজিস্ট্রিকৃত দলিলের নকল কাজ সম্পন্ন করা।

অ-বিন্যাসযোগ্য স্থায়ী রেকর্ড সৃষ্টির মতো অতীব গুরুত্বপূর্ণ কাজ নকলনবিসদের মতো অস্থায়ী কর্মচারীর দ্বারা সম্পন্ন রেজিস্ট্রেশন আইনের মূল উদ্দেশ্যের পরিপন্থি। এ অবস্থায় প্রায় ১৮ হাজার তালিকাভুক্ত এক্সট্রা মোহরার নকলনবিস হতে স্থায়ী মহরার এর পদ সৃজন ও রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্ত করা এখন সময়ের দাবি। তাই প্রশাসনের কাছে এ সব নকলনবিসদের চাকরি স্থায়ীকরণের মাধ্যমে হাজার হাজার পরিবারকে দুঃখ-দুর্দশা থেকে মুক্ত করার জন্য সবিনয় আবেদন জানাচ্ছি।

আফসারুল আলম মামুন