আজকের পত্রিকা স্পোর্টস

নতুন কাণ্ডে সমালোচনার তোপে সাব্বির!

ক্রীড়া প্রতিবেদক: ‘সাব্বির রহমান’ নামের সঙ্গেই বিতর্ক জড়িয়ে গেছে। একের পর কাণ্ডে বারবারই আলোচনায় থাকছেন তিনি। তারপরও কিছুতেই যেন নিজেকে শোধরাচ্ছেন না। এবার নতুন কাণ্ডে সমালোচিত জাতীয় দলের এই তারকা ক্রিকেটার। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের এক পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে ক্রিকেটার সাব্বির রহমানের বিরুদ্ধে। তবে ব্যাপারটি অস্বীকার করে এ ডানহাতি ব্যাটসম্যান বলেছেন, ‘আমি কোনো দোষ করিনি।’

রোববার সাব্বিরের বিরুদ্ধে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের এক পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে পেটানোর অভিযোগ ওঠে। মূলত এর পর থেকেই এ তারকা সমালোচনায় বিদ্ধ হন। এরপর রাতে ক্রিকেটবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে সাব্বির বলেন, ‘একটা কথা রটেছে যে আমি কোনো পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে মেরেছি। না, এরকম কিছুই নয়। একটা মানুষকে মারা এত সহজ নয়।’

ওই পরিচ্ছন্নতাকর্মীর সঙ্গে কী হয়েছে, সে ঘটনার বর্ণনাও দিয়েছেন সাব্বির। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘আমার বাড়ির সামনে একটা গাড়ি ছিল। আমি আমার ওয়াইফকে নিয়ে বাড়ি থেকে আসছিলাম। আমি জাস্ট তাকে বলেছি, দেখেন ভাই, এই যে রাস্তার মাঝখানে গাড়িটা রেখেছেন, কেউ তো বের হতে পারছে না, কেউ আসতেও পারছে না। কোনো প্রেগনেন্ট মহিলা কিংবা হার্টের রোগীর যদি হাসপাতালে যেতে হয়! তর্কাতর্কি হয়েছে, আর কিছুই হয়নি। একটা মানুষকে মারার কথা বললেই যে মারা হয়ে যায়, তা তো নয়। রাস্তার মাঝখানে তো একটা মানুষকে মারা যায় না, মানুষকে মারা যায়, বলেন? আর আমি কেন মানুষকে মারব? যে কর্মীকে আমি ডেকে ডেকে ত্রাণ দিই, জাকাতের টাকা দিই, সেই লোকটাকে তো আমি মারতে পারব না।’
এর আগেও একাধিকবার নেতিবাচক খবরের শিরোনাম হয়েছেন সাব্বির। তাই অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন-কেন বাববার এমন করেন তিনি। এ ব্যাপারে সাব্বির বলেন, ‘এখন কেউ যদি আপনার সঙ্গে ওভাবে তর্ক করে, তাহলে আপনারও তো রাগ হবে। আমিও তো মানুষ। সব সময় যে আমিই হেডলাইনের ওপরে উঠব সেটা তো উচিত নয়। তিলকে তাল করে, সাব্বির খারাপ-এটা তো ঠিক নয়।’

রোববার কারও গায়েই হাত না দেওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করতে ক্রিকেটের কসম করে সাব্বির বলেন, ‘ক্রিকেট তো আমার জান, আমার লাভ (ভালোবাসা)। ওই লোকটার গায়ে হাতই দিইনি আমি। গায়ে হাত দেওয়ার তো প্রয়োজন নেই। আমার সঙ্গে আমার ওয়াইফ ছিল, নিচে গার্ড ছিল, আমার ড্রাইভার ছিল। তারা তো মিথ্যা বলবে না। আমি নামাজ-কালাম পড়ি, আল্লাহর ঘর ছুঁয়েছি, ওমরাহ করেছি; আমি তো মিথ্যা কথা বলব না।’

তবে পরিচ্ছন্নতাকর্মী বাদশা মিয়া বললেন ভিন্ন কথা। তিনি গণমাধ্যমে বলেন, ‘যেভাবে চোখ রাঙিয়ে ছুটে এসে সাব্বির আমার বুকে আঘাত করেছিল, তাতে খুব ব্যথা পেয়েছি। তবে মনের ব্যথাটা বড় ব্যথা। আমি সাব্বিরের বাবার বয়সি। ছেলের বয়সি কেউ গালি দিয়ে আঘাত করলে কষ্টটা বেশি লাগে।’

বাদশাই চোখ রাঙিয়েছেন-সাব্বিরের এ অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি সামান্য ময়লা ফেলার কাজ করি। সাব্বিরকে না হয়, নাইবা চিনলাম। বড়লোক মানুষরা গাড়িতে চড়ে। গাড়ি নিয়ে কেউ হর্ন দিলে তাকে আমি চোখ রাঙাব, সেই সাহস কি আমার আছে?’

এর আগেও সাব্বিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল রাজশাহী বিভাগীয় স্টেডিয়ামে এক দর্শককে পেটানোর। পরে এর সত্যতা মেলে। যে কারণে ছয় মাসের জন্য জাতীয় দল থেকে বহিষ্কার হয়েছিলেন সাব্বির। পাশাপাশি ২০ লাখ টাকা জরিমানা গুনেছিলেন। তারপরও নিজেকে শোধরাতে পারেননি তিনি। যে কারণে বারবারই অনাকাক্সিক্ষত খবরের শিরোনাম হন সাব্বির।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..