প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

নাটোরে ঝড়-বৃষ্টিতে প্রায় একশ পাখির মৃত্যু

তাপস কুমার, নাটোর: দুই দিনের টানা বর্ষণ ও ঝড়ে নাটোরের নলডাঙ্গার সমসখলসী গ্রামে প্রায় একশ পাখির মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে অসংখ্য। পুলিশ প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস ও বনবিভাগের কর্মকর্তারা তিন শতাধিক পাখি উদ্ধার করেছেন।

বর্তমানে পাখি কলোনিটির দেখাশোনা করেন জিয়াউল আলম। তিনি জানান, সমসখলসী গ্রামে পানকৌড়ি, শামুকখোলসহ নানা প্রজাতির ১০ সহস্রাধিক পাখি বাঁশঝাড় ও গাছগাছালিতে আশ্রয় নেয়। গত দুই দিনের বৃষ্টি ও ঝড়ে অনেক পাখি মাটিতে পড়ে যায়। এর মধ্যে ৭২টি পানকৌড়ি ও ২৫টি শামুকখোলের বাচ্চার মৃত্যু হয়েছে। কিছু পাখির ডানা ভেঙে গেছে, বাচ্চাগুলো আধামরা হয়ে মাটিতে পড়ে রয়েছে। এরই মধ্যে কিছু অসাধু মানুষ আহত পাখি ধরে নিয়ে যায়। পরে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস ও বনবিভাগের কর্মকর্তারা তিন শতাধিক পাখি উদ্ধার করেন। পাখিগুলো একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে রাখা হয়েছে। এগুলোকে সুস্থ করে আবার ছেড়ে দেওয়া হবে।

সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ জানান, খবর পাওয়ার পর লোকজনদের সঙ্গে নিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে পাখি উদ্ধার করা হয়েছে। নাটোর সদর বন বিভাগের নার্সারি অ্যাটেনডেন্ট আলীমুদ্দিন সরদার জানান, ঝড়-বৃষ্টিতে অনেক পাখি অসুস্থ হয়ে পড়েছে। অনেক পাখির বাচ্চা মারা গেছে। আহত পাখিগুলোকে সুরক্ষা দিতে তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়ে নাটোরের জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুন বলেন, পাখি কলোনিকে রক্ষার জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলার ইউএনওসহ অন্যদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।