প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

নাটোর শহরের সিংড়া বাসস্ট্যান্ডে জলাবদ্ধতা

 

তাপস কুমার, নাটোর: নাটোর শহরের দক্ষিণ পটুয়াপাড়া এলাকার সিংড়া বাসস্ট্যান্ড দীর্ঘদিন ধরে জলাবদ্ধ। ফলে অসহনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রীসহ এলাকাবাসীকে। এ ব্যাপারে এলাকাবাসী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া আবেদন জানলেও পৌর কর্তৃপক্ষের কোনো উদ্যোগ নেই।

শহরের দক্ষিণ পটুয়াপাড়া এলাকায় সাবেক কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের দক্ষিণ অংশের নতুন ভবনে র‌্যাব-৫ এর ক্যাম্প হিসেবে চালু রয়েছে। উত্তর অংশে সিংড়া-বগুড়া বাসস্ট্যান্ড। সাবেক এ বাস টার্মিনালের পশ্চিম পাশে পৌরসভা পরিচালিত বাজার রয়েছে। সাবেক টার্মিনালের অধিকাংশ এলাকা অব্যবহƒত রয়েছে। দোকানঘর থাকলেও সেগুলো চালু নেই। টার্মিনালের পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে বাজার ও সিংড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকা জলাবদ্ধ হয়ে রয়েছে। গত কয়েক দিনের টানা ও ভারি বর্ষণের কারণে স্থানটি এখন জলাশয়ের মতো আকার ধারণ করেছে। ফলে যাত্রীসহ এলাকাবাসীকে অসহনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বিশেষ করে পূর্ব অংশের জনসাধারণকে বাজারে যেতে ওই জলাবদ্ধ পানি মাড়িয়ে যেতে হয়।

নাটোর পৌরসভার উপসহকারী প্রকৌশলী গোলাম মোস্তফা জানান, যানজট নিরসনের জন্য বেশ ক’বছর আগে শহরের মধ্যে দক্ষিণ পটুয়াপাড়া এলাকা থেকে কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালটি সরিয়ে শহরের একপ্রান্ত হরিশপুর এলাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে। এরপর থেকে পুরোনো টার্মিনালটি অব্যবহƒত অবস্থায় রয়েছে। টার্মিনালের পানি নিষ্কাশনের পথ ইতোমধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে জলাবদ্ধ পানি সরিয়ে ফেলা যাচ্ছে না। এ ছাড়া আশেপাশের এলাকা উঁচু হওয়ায় পানি নিষ্কাশন করা সম্ভব হয় না। ইতোমধ্যে টার্মিনালটি সিংড়া বাসস্ট্যান্ড হিসেবে ইজারা দেওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অর্থ বরাদ্দ পেলে নিচু এলাকায় মাটি ভরাট করা হবে।

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরহাদ হোসেন জানান, অবৈধ দখলের কারণে পানি নিষ্কাশনের পথ ভরাট হয়ে বন্ধ হয়ে গেছে। তিনি কয়েকবার আটকে থাকা পানি সরানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন। এখন নিচু এলাকায় মাটি ফেলে উঁচু করলে পানি বের করা সম্ভব হবে। বিষয়টি পৌর মেয়রকে অবহিত করা হয়েছে। অর্থ বরাদ্দ না থাকায় মাটি ফেলা যাচ্ছে না। অচিরেই টেন্ডার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে জায়গাটি ব্যবহার উপযোগী করা হবে।