শোবিজ

নায়করাজ রাজ্জাকের জন্মদিন আজ

শোবিজ ডেস্ক: ঢাকাই সিনেমার কিংবদন্তি অভিনেতা রাজ্জাক। তিনি একাধারে একজন অভিনেতা, প্রযোজক ও পরিচালক হিসেবে সিনেমা অঙ্গনে ভূমিকা পালন করেন। তিনি ছিলেন বাংলা সিনেমার একজন অভিভাবক। তার হাত ধরেই বাংলা সিনেমায় শুরু হয় নতুন ধারার, নতুন যুগের। তিনি নায়করাজ রাজ্জাক হিসেবে সুপরিচিত। ১৯৪২ সালে এদিনে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। আজ তার ৭৮তম জন্মতার জন্মদিনে শেয়ার বিজের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও শ্রদ্ধা। তিনি সিনেমায় বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন। তার প্রাণবন্ত ও সাবলীল অভিনয় সবার মন জয় করে নিয়েছে।    অভিনয় করেন প্রায় তিন শতাধিক সিনেমার। তার অভিনীত জননন্দিত সিনেমাগুলোর মধ্যে রয়েছে নীল আকাশের নিচে, ময়নামতি, মধুমিলন, পিচঢালা পথ, যে আগুনে পুড়ি, জীবন থেকে নেওয়া, কী যে করি, অবুঝ মন, রংবাজ, বেঈমান, আলোর মিছিল, অশিক্ষিত, অনন্ত প্রেম, বাঁদি থেকে বেগম, বাবা কেন চাকর প্রভৃতি আরও অসংখ্য জনপ্রিয় সিনেমায় অভিনয় করেছেন। সংস্কৃতিতে বিশেষ ভূমিকা রাখার জন্য ২০১৫ সালে সরকার তাকে স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করেন। সাতবার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। ২০১৩ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে তাকে আজীবন সম্মাননা পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। এছাড়া বাচসাস পুরস্কার, মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কারসহ আরও অনেক পুরস্কার অর্জন করেন। তিনি  ২০১৭ সালের ২১ আগস্ট ৭৫ বয়সে ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন।

উল্লেখ্য, ১৯৪২ সালের ২৩ জানুয়ারি ভারতের কলকাতায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন। কলকাতার থিয়েটারে অভিনয় করার মাধ্যমে তার অভিনয় জীবন শুরু করেন। ১৯৫৯ সালে ভারতের মুম্বাইয়ের ফিল্মালয়তে সিনেমার ওপর পড়াশোনা ও ডিপ্লোমা করেন। এরপর কলকাতায় ফিরে এসে শিলালিপিসহ আরও একটি সিনেমায় অভিনয় করেন। ১৯৬৪ সালে কলকাতায় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার কবলে পড়ে তিনি পরিবার-পরিজন নিয়ে ঢাকায় চলে আসেন। প্রথমেই পরিচালক কামাল আহমেদের সহকারী হিসেবে উজালা সিনেমায় কাজ শুরু করেন। ১৯৬৬ সালে সালাউদ্দিন পরিচালিত হাসির সিনেমা তেরো নম্বর ফেকু ওস্তাগার লেন একটি পার্শ্বচরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে ঢাকায় তার অভিনয় জীবনের সূচনা করেন। এরপর পরিচালক জহির রায়হান পরিচালিত সিনেমা বেহুলা’তে লখিন্দরের ভূমিকায় অভিনয় করেন। এ সিনেমায় সুচন্দার বিপরীতে অভিনেতা হিসেবে অভিনয় করে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেন তিনি। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। ষাটের দশকের শেষ থেকে সত্তর ও আশির দশকে ব্যাপক জনপ্রিয়তা হয়ে ওঠেন তিনি। দীর্ঘ ও বর্ণাঢ্য অভিনয় জীবনে রাজ্জাক-সুচন্দা, রাজ্জাক-কবরী, রাজ্জাক-শাবানা ও রাজ্জাক-ববিতা জুটির অনেক সিনেমা দর্শক হƒদয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করে, যা তাকে ঢালিউডের নায়করাজ উপাধিতে ভূষিত করেছে। বাংলা চলচ্চিত্র পত্রিকা চিত্রালীর সম্পাদক আহমদ জামান চৌধুরী তাকে নায়করাজ উপাধি দেন। ভক্ত ও দর্শকের কাছে তিনি নায়করাজ নামে পরিচিত হলেও তার আসল নাম আবদুর রাজ্জাক। অভিনয় ছাড়াও প্রায় ১৬টি সিনেমা পরিচালনা করেছেন। তার মালিকানা রাজলক্ষ্মী প্রোডাকশন থেকে বেশ কয়েকটি সিনেমা নির্মিত হয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..