প্রচ্ছদ শেষ পাতা

নারায়ণগঞ্জ থেকে কোটি টাকার বন্ড সুবিধার সুতা জব্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশীয় টেক্সটাইল খাতকে সুরক্ষায় তৎপর সরকার। তবে একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী বন্ড সুবিধায় সুতা আমদানি করে তা খোলাবাজারে বিক্রি করে দেয়। এর মাধ্যমে দেশীয় শিল্প ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে টাস্কফোর্স গঠন করেছে এনবিআর। এরই ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ থেকে কোটি টাকা মূল্যের বন্ড সুবিধার সুতা জব্দ করেছে ঢাকা কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট। গতকাল ঝটিকা অভিযানে এসব সুতা আটক করা হয়। ঢাকা কাস্টমস বন্ড কমিশনারেটের সহকারী মো. আল আমিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, বন্ড সুবিধার অপব্যবহার ও শুল্ককরাদি ফাঁকি প্রতিরোধে এবং দেশীয় শিল্পের সুরক্ষায় এনবিআরের গঠিত টাস্কফোর্সের আওতায় নারায়ণগঞ্জের টানবাজার এলাকায় ঝটিকা অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন উপকমিশনার রেজভী আহম্মেদ, সহকারী কমিশনার মো. আল আমিন, শরীফ মোহাম্মদ ফয়সাল ও আকতার হোসেনের সম্মিলিত প্রিভেন্টিভ টিম। অভিযানে বিসমি ইয়ার্ন ট্রেডিংয়ের গুদাম ও পার্শ্ববর্তী মাঠ থেকে প্রায় ১০ টন অবৈধ বন্ডেড সুতা আটক করা হয়। এসব পণ্য বিদেশ থেকে বন্ড সুবিধার আওতায় আমদানি করে রফতানির পরিবর্তে চোরাপথে খোলাবাজারে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। আটক পণ্যের বাজারমূল্য প্রায় এক কোটি টাকা, যার বিপরীতে আদায়যোগ্য শুল্ককরের পরিমাণ প্রায় ৩৮ লাখ টাকা। এ ঘটনায় তদন্ত ও আইনগত ব্যবস্থা চলমান রয়েছে। যেসব উৎস থেকে ও যাদের মাধ্যমে টানবাজারে অবৈধ বন্ডেড সুতার সিন্ডিকেট বাণিজ্য গড়ে উঠেছে, তাদের শনাক্ত করে দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

বন্ড কমিশনারেট সূত্র জানায়, ধারাবাহিক অভিযানের অংশ হিসেবে গত ১৩ নভেম্বর সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থানার সুতা বিক্রির প্রসিদ্ধ হাট সোহাগপুর বাজারে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ৩৮ মেট্রিক টন সুতা আটক করা হয়েছে। সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থানার সোহাগপুর বাজার ও তামাই গ্রামের শামিম শেখের গোডাউনে সুতা বিক্রি হয় বলে তথ্য ছিল। দুটি গার্মেন্ট কারখানা এসব সুতা বন্ড সুবিধার আওতায় আমদানি করেছিল। এই অনিয়মের সঙ্গে জড়িত ওই দুটি গার্মেন্ট কারখানাকে শনাক্ত করা গেছে। আটক করা সুতা বগুড়া ভ্যাট অফিসের তত্ত্বাবধানে শান্তাহারে রাখা হয়েছে। এর আগে ঢাকার চকবাজার থেকেও ৩৮ টন সুতা আটক করা হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..