প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে

ড. মতিউর রহমান: আজ আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস। নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে প্রতি বছর ২৫ নভেম্বর ‘আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস’ পালন করা হয়। নারীর প্রতি যেকোনো ধরনের সহিংসতার প্রতিবাদ ও প্রতিরোধে সর্বস্তরের মানুষকে উৎসাহিত করতে আন্তর্জাতিকভাবে দিবসটি পালন করা হয়। ১৭ নভেম্বর ১৯৯৯ জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ২৫ নভেম্বরকে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধের জন্য আন্তর্জাতিক দিবস হিসেবে ঘোষণা করে।

২৫ নভেম্বর, ১৯৬০ ল্যাটিন আমেরিকার ডোমিনিকান রিপাবলিকের স্বৈরশাসক রাফায়েল ক্রুজিলোর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার সময় তিন বোন প্যাট্রিয়া, মারিয়া তেরেসা এবং মিনার্ভা মিরাকল শাসকদের দ্বারা নিহত হন। এ হত্যার প্রতিবাদে ১৯৮১ সালে, লাতিন আমেরিকার একটি মহিলা সম্মেলনে ২৫ নভেম্বরকে নারী সহিংসতার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক প্রতিবাদ দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। ১৯৯৩ সালে, ভিয়েনায় অনুষ্ঠিত মানবাধিকার সম্মেলনে ২৫ নভেম্বরকে নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের আন্তর্জাতিক দিবস হিসেবে গ্রহণ করা হয়।

কিন্তু জাতিসংঘ দিবসটিকে স্বীকৃতি দিতে দীর্ঘসময় অতিবাহিত করে। অবশেষে, ১৭ ডিসেম্বর ১৯৯৯ জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ২৫ নভেম্বর কেনারির প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধের জন্য আন্তর্জাতিক দিবস হিসেবে ঘোষণা করে।

বিশ্বের মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক নারী এবং সমাজের উন্নয়নে তাদের অবদান অনস্বীকার্য। কিন্তু তারপরও নারীরা শান্তি, নিরাপত্তা ও অধিকারের দিক থেকে পুরুষের সমান নয়। পৃথিবী এগিয়ে যাচ্ছে, সামাজিক কাঠামোর পরিবর্তন হচ্ছে, বদলে যাচ্ছে মানুষের জীবনধারা তারপরও নারী নির্যাতন বন্ধ হচ্ছে না।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, প্রতি তিনজনের একজন নারী জীবনের কোনো না কোনো সময় শারীরিক, মানসিক বা যৌন সহিংসতার শিকার হন। প্রতি তিনজন নারীর মধ্যে দুজন তাদের স্বামী বা বন্ধু বা বিপরীত লিঙ্গের সদস্যদের দ্বারা পারিবারিক সহিংসতার শিকার হন। নির্যাতনের শিকার নারীদের অধিকাংশই নির্যাতনের বিরুদ্ধে সামাজিক ও প্রকাশ্য লজ্জার ভয়ে মুখ খোলেন না।

নারীর প্রতি সহিংসতা সমতা, উন্নয়ন, শান্তি অর্জনের পাশাপাশি নারীর মানবাধিকার বাস্তবায়নে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সর্বোপরি, নারী ও মেয়েদের প্রতি সহিংসতা বন্ধ না করে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) প্রতিশ্রুতি ‘কাউকে পিছিয়ে না রাখার’ অর্জন করা সম্ভব নয়।

আজ শুরু হচ্ছে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষেরও। ১০ ডিসেম্বর বিশ্ব মানবাধিকার দিবস পর্যন্ত বিশ্বের দেশে দেশে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে এ পক্ষ পালিত হবে। বাংলাদেশেও সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে নারী ও মানবাধিকার সংগঠনগুলো বিস্তারিত কর্মসূচি পালন করবে। এ বছর দিবসটির থিম বা প্রতিপাদ্য হলো নারী ও কন্যাশিশুর প্রতি সহিংসতা বন্ধে সক্রিয়ভাবে একত্র হও (টঘওঞঊ! অপঃরারংস ঃড় ঊহফ ঠরড়ষবহপব ধমধরহংঃ ডড়সবহ ্ মরৎষং).

বাংলাদেশে নারীর প্রতি সহিংসতা একটি প্রধান সামাজিক সমস্যা। বিভিন্ন উপায়ে ও আকারে প্রতিনিয়তই এটি বাড়ছে। এটি একটি দুঃখজনক সত্য যে, এই ধরনের সহিংসতার কারণে প্রতি বছর অসংখ্য নারী নিহত হচ্ছেন। কারণ তারা খোলাখুলি এ বিষয়ে কথা বলতে পারে না বা তাদের কথা বলতে দেয়া হয় না। নির্যাতনের পরও তাদের চাপের মধ্যে থাকতে হয়।

দারিদ্র্য, বেকারত্ব, অশিক্ষাসহ নানা কারণে নারীরা নির্যাতিত হয়। যৌতুকের দাবি মেটাতে না পেরে অনেক নারীর জীবন হয়ে উঠেছে দুর্বিষহ। যৌতুক, বাল্যবিবাহ, বহুবিবাহ, বিবাহবিচ্ছেদ এবং অন্যান্য সম্পর্কিত বিষয়ে বিদ্যমান আইনগুলো পর্যাপ্তভাবে প্রয়োগ করা হয় না। তাছাড়া সাধারণ মানুষ এসব আইন সম্পর্কে অবগত নয়।

নারীর প্রতি সহিংসতার আরেকটি কারণ তাদের প্রতি সমাজের নেতিবাচক মনোভাব। নারীরা নিজ পরিবারেও নির্যাতিত হচ্ছেন এবং পরিবারের বাইরেও নির্যাতিত হতে হচ্ছেন। অনেক নারী চাইলেও তাদের পরিবারের কাছে সহিংসতার কথা বলতে পারে না। দেখা যায়, অনেক সময় নির্যাতিত নারীকে দায়ী করে পরিবার। বিদ্যমান সমাজ ব্যবস্থায় সহিংসতার শিকার অনেক নারী চাইলেও আইনি আশ্রয় নিতে পারে না। পরিবার ও সন্তানের কথা ভেবে এসব নির্যাতন সহ্য করতে বাধ্য হন অনেক নারী।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সদ্য প্রকাশিত এক জরিপ দেখায় যে, ২০২১ সালে ৮১০টি ধর্ষণ, ২২৫টি সংঘটিত ধর্ষণ, ১৯২টি ধর্ষণের চেষ্টা, ৯৬টি শ্লীলতাহানি ও যৌন হয়রানির ঘটনা এবং ১১৪টি যৌতুক সংক্রান্ত ঘটনা ও মামলা সংঘটিত হয়েছে। বিগত বছরের মতো এ বছরও ধর্ষণের শিকার নারী (১৮ বছরের ওপরে) এবং কন্যাশিশু (১৮ বছরের নিচে) সংখ্যা বেশি এবং নারীদের তুলনায় কন্যাশিশুরা বেশি ধর্ষণের শিকার হয়েছে।

অন্যদিকে ১৪ থেকে ১৮ বছর বয়সী ১৮, ১১ এবং ৩১ শতাংশ কন্যাশিশু যথাক্রমে ধর্ষণ, ধর্ষণের চেষ্টা এবং গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। ১০ থেকে ১৩ বছর বয়সী ২২ শতাংশ কন্যাশিশুরা শ্লীলতাহানি এবং যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে। ১৮ থেকে ২২ বছর বয়সী মহিলারা সাধারণত যৌতুকের ক্ষেত্রে বেশি সহিংসতার শিকার হয়েছেন এবং এই হার ২২ শতাংশ। মেয়েদের মধ্যে ষষ্ঠ-দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা বেশি যৌন নির্যাতনের শিকার হয়।

কর্মজীবী নারীদের তুলনায় গৃহিণীরাই বেশি নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। এই হার যৌতুকের জন্য ৮৩ শতাংশ। এই গবেষণায় ১৮ বছরের কম বয়স্কদের কন্যাশিশু এবং ১৮ বছরের বেশি বয়স্কদের নারী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া ওই প্রতিবেদনে নারী নির্যাতনের বিভিন্ন ধরন ও সংখ্যা উল্লেখ করা হয়েছে।

আরেক প্রতিবেদনে দেখা যায়,  এ বছর (২০২২) অক্টোবরে দেশে নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতার ৩৬৮টি ঘটনা ঘটেছে, যার মধ্যে ধর্ষণের ৬১টি ঘটনা রয়েছে। চলতি মাসে ৪ শিশু, ২২ কিশোরী ও ৪৫ জন নারীসহ ৭১ জন আত্মহত্যা করেছেন। অপহরণ করা হয়েছে চার শিশু-কিশোরী ও এক নারীকে। অন্যদিকে নিখোঁজ রয়েছে ১ শিশু, ৭ কিশোরী ও ৩ নারী। এছাড়া ১৪ জনের অস্বাভাবিক মৃত্যুসহ ৮৯ শিশু, কিশোরী ও মহিলা নিহত হয়েছেন।

এসব তথ্য বাংলাদেশে নারীর প্রতি সহিংসতার এক ভয়াবহ চিত্র তুলে ধরেছে। তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ সম্ভব। প্রতিটি এলাকায় নিয়মিত সভা, সেমিনার এবং কর্মশালার আয়োজন করে জনমত গড়ে তোলা দরকার। তাছাড়া নারীর প্রতি সহিংসতা বিশেষ করে শিশুদের ওপর এর প্রভাব সম্পর্কে সবাইকে সচেতন করার পদক্ষেপ নিতে হবে। সুশীল সমাজ, ধর্মীয় নেতা এবং অন্যান্য সচেতন ব্যক্তিদের উচিত নারীর প্রতি সহিংসতার শিকার ব্যক্তিদের প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয়া। এনজিওগুলো নারীর প্রতি সহিংসতা কমাতে পথনাটক, বিকল্প মাধ্যম এবং গণশিক্ষা প্রচার ও অনুষ্ঠান আয়োজন ব্যবস্থা করতে পারে।

সরকারি, বেসরকারি এবং অন্যান্য সুশীল সমাজ সংস্থার উচিত নারীর মানবাধিকার ও শিক্ষার ওপর জোর দেয়া। সহিংসতার শিকারদের যথাযথভাবে আইনি সহায়তা, কাউন্সেলিং এবং অতিরিক্ত সহায়তা পেতে সহায়তা করা। নারীদের মানবাধিকার সম্পর্কে সচেতন করতে পুরুষদের জন্য কাউন্সেলিং ও শিক্ষা সেশনের ব্যবস্থা করতে হবে। টেলিভিশন মিডিয়ার মাধ্যমে স্টিরিওটাইপ সম্পর্কের পরিবর্তে নারী-পুরুষের মধ্যে ভারসাম্যপূর্ণ ও সুস্থ সম্পর্ক সম্প্রচার করতে হবে। যৌতুক নিরোধ আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। মেয়েদের জীবন দক্ষতার প্রশিক্ষণ দিতে হবে, যাতে তারা দাম্পত্য জীবনে নিজেদের বাঁচাতে পারে।

নারীর প্রতি সহিংসতা কমাতে দারিদ্র্য ও বৈষম্য নিরসন ও গণসচেতনতামূলক শিক্ষা কার্যক্রম জোরদার করতে হবে। গণমাধ্যম এক্ষেত্রে শক্তিশালী ভূমিকা পালন করতে পারে। পরিবারে ও সমাজে পুরুষ সদস্যদের মানসিকতা ও আচরণ পরিবর্তনের জন্য যথাযথ কর্মসূচি পরিচালনা করতে হবে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এবং পরিষেবা প্রদানকারীদের ভিকটিমের প্রতি আরও সহানুভূতিশীল হওয়া এবং অপরাধীর বিরুদ্ধে কঠোর হতে হবে।

পুরুষদের মানসিকতা এবং আচরণ পরিবর্তনের জন্য একটি ব্যাপক অ্যাডভোকেসি প্রোগ্রাম গ্রহণ করতে হবে। রাজনৈতিক দলগুলোর উচিত তাদের ঘোষণাপত্র এবং নির্বাচনী ইশতিহারে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ ও সুরক্ষার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা। নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে সরকারি, বেসরকারি ও তৃণমূল পর্যায়ের সংগঠনের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি সক্রিয় জোট গঠন করা।

নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে একটি কার্যকর ও শক্তিশালী ‘সামাজিক সহায়তা ব্যবস্থা’ গড়ে তোলা অপরিহার্য। স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে যৌন হয়রানি এবং অনলাইন নিরাপত্তা সম্পর্কে শিক্ষক ও অভিভাবকদের অবহিত করতে হবে। পাঠ্যপুস্তকে অনলাইন হয়রানির বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। অনলাইন হয়রানির বিষয়ে অভিযোগ দায়ের সহজ এবং আরও বেশি নারীবান্ধব করা অপরিহার্য। ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সহিংসতার ক্ষেত্রে সাইবার বুলিং আইন কঠোর করতে হবে। নারী ও শিশুদের প্রতি অনলাইন সহিংসতা প্রতিরোধে একাধিক প্ল্যাটফর্মের পরিবর্তে একটি প্ল্যাটফর্ম নির্দিষ্ট করা উচিত। অনলাইনে নারীর প্রতি সহিংসতা এড়াতে ব্যাপক জনসচেতনতামূলক প্রচারণা প্রয়োজন।

এছাড়া নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে উপরোক্ত উদ্যোগগুলো নিতে হলে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন প্রয়োজন। নারীর প্রতি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির পার্থক্যই নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ করতে পারে। এর মাধ্যমে নারীরা সহিংসতার প্রতিকার পাবে। হিংসামুক্ত সুন্দর সমাজ গড়ে উঠবে। তাই নারীর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন ও নির্যাতন প্রতিরোধে পরিবার, সমাজসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

-গবেষক ও উন্নয়নকর্মী