করপোরেট কর্নার

নাসার প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের ১৭ প্রকল্প মনোনীত

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় মহাকাশ সংস্থা নাসা সম্প্রতি তাদের ওয়েবসাইটে ‘নাসা স্পেস অ্যাপস’ প্রতিযোগিতার প্রাথমিকভাবে মনোনীত প্রজেক্টের তালিকা প্রকাশ করেছে। বিশ্বের ১৫০ দেশের ৪১৩টি প্রজেক্টের মধ্যে বাংলাদেশের ১৭টি প্রজেক্ট প্রাথমিকভাবে মনোনীত হয়েছে। ষষ্ঠ বারের মতো বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) তত্ত্বাবধানে ‘নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ-২০২০’ বাংলাদেশ পর্বের বিজয়ী ও রানার্স আপ দলের ১৭টি প্রজেক্ট জমা দেয় বেসিস, যার প্রতিটি প্রজেক্ট-ই নাসার গ্লোবাল জাজমেন্টের প্রাথমিক স্বীকৃতি পেয়েছে।

প্রতিযোগিতায় বিশ্বের ১৫০ দেশ থেকে তিন হাজার ৮০০ টিমের মধ্য থেকে দুই হাজার তিন শতাধিক প্রজেক্ট জমা পড়ে। সেখান থেকে প্রাথমিকভাবে ৪১৩ টিমকে নাসা গ্লোবাল জাজমেন্টের মনোনয়ন দেয়।

বৈশ্বিক সমস্যা সমাধানে উদ্ভাবনী সমাধান খুঁজে বের করাই লক্ষ্যেই এ প্রতিযোগিতা শুরু করেছে নাসা। আর এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে বেসিস বাংলাদেশের ৯টি শহরে নাসা ‘স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ-২০২০ বাংলাদেশ’ নামে বড় পরিসরে প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। সেখান থেকে প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ও রানার্স আপ দলের ১৭টি প্রজেক্ট নাসায় জমা দেয় বেসিস। যার ১৭টি প্রজেক্ট-ই নাসার প্রাথমিক মনোনয়নে স্থান পেয়েছে।

বেসিসের সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মতে, গার্মেন্ট খাতের বিকল্প এক্সপোর্টের খাত তৈরি করার লক্ষ্যে বাংলাদেশের আইটি কাজে নিয়োজিত প্রতিষ্ঠানসমূহ দক্ষতার সঙ্গে কোয়ালিটি সম্পন্ন কাজ করছে ‘নাসা স্পেস অ্যাপস’ প্রতিযোগিতার বাংলাদেশের ১৭টি প্রজেক্ট প্রাথমিকভাবে মনোনীত হওয়া তারই প্রমাণ।

বেসিসের পরিচালক ও নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০২০-এর আহ্বায়ক দিদারুল আলম সানি বলেন, প্রতিবারের মতো এবারও বেসিসের তত্ত্বাবধানে নাসাতে আমাদের দেশের ১৭টি প্রজেক্ট জমা দিয়েছিলাম। যার প্রতিটি প্রজেক্ট-ই এ বছর নাসার গ্লোবাল জাজমেন্টের মনোনয়নে স্বীকৃতি পেয়েছে, যা আমাদের দেশের জন্য খুবই আনন্দের। বিজ্ঞপ্তি

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..