বিশ্ব বাণিজ্য

নিম্নমুখী এশিয়ার পুঁজিবাজার

শেয়ার বিজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে চলমান বাণিজ্যযুদ্ধ নিয়ে আশঙ্কা অব্যাহত রয়েছে এবং হংকংয়ে বিক্ষোভে অস্থিরতা বাড়ছে। এর প্রভাব পড়েছে এশিয়ার পুঁজিবাজারে। গতকাল সোমবার এ অঞ্চলের পুঁজিবাজার সূচকগুলো ছিল নি¤œমুখী ধারায়। জাপানের মুদ্রা ইয়েনের বিনিময় মূল্য বেড়েছে। এছাড়া বেড়েছে স্বর্ণের দরও। খবর: রয়টার্স।

গতকাল জাপান বাদে এশিয়ার সার্বিক সূচক এমএসসিআই আগের দিনের তুলনায় কমেছে প্রায় এক শতাংশ। এর আগে এ অঞ্চলের শেয়ার ছয় মাসের সর্বোচ্চে পৌঁছেছিল। এদিন হংকংয়ের সূচক কমেছে দুই দশমিক ৬২ শতাংশ। চীনের সূচকও কমেছে প্রায় দুই শতাংশ। এছাড়া জাপানসহ অন্য বাজারগুলোও ছিল নিম্নমুখী।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে চলমান বাণিজ্যযুদ্ধ নিরসনের ইঙ্গিত পাওয়া যায়। দু’দেশ একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে সম্মত হয়েছে এবং ওয়াশিংটন ও বেইজিং দু’দেশই আরোপিত শুল্ক আস্তে আস্তে প্রত্যাহার করে নেব।  মূলত এ সুবাদে শেয়ার সূচক বেড়েছিল। কিন্তু গত বৃহস্পতিবার ট্রাম্প বলেছেন, শুল্ক প্রত্যাহার করে নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি। এর পরই শেয়ারবাজারে আবারও নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। এছাড়া হংকংয়ে চলমান চীনবিরোধী আন্দোলন আরও জোরদার হওয়ায় বিনিয়োগকারীদের মধ্যে শঙ্কা কাজ করছে, যা পুঁজিবাজারে সূচক পতনে ভূমিকা রাখছে।

গত শুক্রবার আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম কমে তিন মাসের মধ্যে সর্বনি¤েœ নেমেছিল, যা গতকাল আবার বেড়েছে। এছাড়া ডলারের বিপরীতে ইয়ানের বিনিময় মূল্যও বেড়েছে।

গতকাল হংকংয়ের রাজপথে বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলিবর্ষণ করেছে পুলিশ। অন্তত দুই বিক্ষোভকারী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভকালে এ গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। হংকংয়ে সাম্প্রতিক বিক্ষোভ শুরুর পর থেকে এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো বিক্ষোভকারীদের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটল। এতে অস্থিরতা আরও বেড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্য উত্তেজনা প্রশমনে বহুল প্রত্যাশিত সমঝোতা চুক্তি আগামী ডিসেম্বরে স্বাক্ষর হতে পারে বলে মার্কিন প্রশাসনের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জানিয়েছিলেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের মধ্যে ওই চুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার কথা রয়েছে। লন্ডনে ওই চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান হতে পারে। সমঝোতার লক্ষ্যে পাল্টাপাল্টি শুল্কারোপ ধাপে ধাপে কমানোর বিষয়েও একমত হয়েছে দু’দেশ। কিন্তু গত বৃহস্পতিবার ট্রাম্প বলেছেন, আরোপিত শুল্ক যুক্তরাষ্ট্র এখনই কমাচ্ছে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক যুক্তরাষ্ট্রের এক কর্মকর্তা বলেন, ওই চুক্তিস্বাক্ষর অনুষ্ঠানের জন্য বেশ কয়েকটি জায়গার কথা বিবেচনা করা হয়েছে। মূলত নভেম্বরের মাঝামাঝি চিলিতে অনুষ্ঠেয় এশিয়া-প্যাসিফিক নেতাদের সম্মেলনে ওই চুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার কথা ছিল। এখন সম্ভাব্য ভেন্যু হিসেবে লন্ডনকে বিবেচনা করা হচ্ছে। সেখানে আগামী ৩ থেকে ৪ ডিসেম্বর ন্যাটো সম্মেলনে অংশ নেবেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এরপর শি জিনপিংয়ের সঙ্গে তার বৈঠক অনুষ্ঠিত হতে পারে।

তবে এটি এখনও সম্ভাবনার পর্যায়ে রয়েছে জানিয়ে ওই কর্মকর্তা বলেন, এ বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়নি। বৈঠকের জন্য এশিয়া ও ইউরোপের বেশকিছু জায়গার কথা সামনে আসছে। এর মধ্যে সুইডেন ও সুইজারল্যান্ডের কথাও শোনা যাচ্ছে বেশ জোরালোভাবে। তিনি বলেছেন, চীন উত্তেজনা নিরসনে দ্রুত চুক্তি করতে চায়। এটি এমন এক সময় হতে যাচ্ছে, যখন ২০২০ সালের নির্বাচনে পুনরায় অংশ নেওয়ার আগে অভিশংসন হওয়ার চাপে রয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..