সম্পাদকীয়

নির্ধারিত সময়ে প্রকল্প বাস্তবায়নে গুরুত্ব দিন

প্রতিবছর কতগুলো প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হবে, সে বিষয়ে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) একটি লক্ষ্য নির্ধারিত থাকে। চলতি অর্থবছরের এডিপিতেও এমন একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছিল। কিন্তু সংশোধিত এডিপি প্রণয়নের সময় জানা গেল, যতগুলো প্রকল্প শেষ হওয়ার কথা ছিল, তা হবে না। সম্ভাব্য সমাপ্য প্রকল্পের সংখ্যা কমে আসবে। বিষয়টি গ্রহণযোগ্য নয়। সরকার যে লক্ষ্য নির্ধারণ করে, তা তাদের নিজেদের পরিপালন করা উচিত বলে মনে করি। প্রতিবছরই নতুন নতুন প্রকল্প এডিপিতে যুক্ত হয়; কিন্তু এর বিপরীতে চলমান প্রকল্পের কাজ শেষ করার বিষয়টি এত গুরুত্ব পায় না। এ বিষয়ে সরকারের দৃষ্টি দেওয়া উচিত।

শেয়ার বিজে গতকাল ‘সংশোধিত এডিপি এনইসিতে উঠছে আজ: এবারও কাজ শেষ হচ্ছে না নির্ধারিত সব প্রকল্পের’ শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। প্রতিবেদনের তথ্যমতে, চলতি অর্থবছরের এডিপিতে ৩৫৫ প্রকল্প নির্ধারণ করা হয়েছিল কাজ শেষ করার জন্য। কিন্তু সংশোধিত এডিপি বা আরএডিপিতে সে সংখ্যা ৩১৭টিতে নেমে আসছে। বাকি ৩৮ প্রকল্প পরের বছরের এডিপিতে যুক্ত হবে। এভাবে প্রতিবছরই সমাপ্য প্রকল্পের যে লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়, তা বাস্তবায়ন সম্ভব হয় না। শেষ সময়ে এসে অনেক প্রকল্প পরিচালক জানান, তারা প্রকল্পের কাজ শেষ করতে পারছেন না। অথচ প্রকল্প শেষ করার জন্য সংশ্লিষ্টদের সব ধরনের সহায়তা নিশ্চিত করা হয়। প্রকল্পের কাজ দ্রুত শেষ করতে অর্থছাড়ের প্রক্রিয়া অনেক সহজ করেছে সরকার। এরপরও প্রকল্প সময়মতো শেষ না হওয়া দুঃখজনক বলে মনে করি।

খবরেই উল্লেখ করা হয়েছে, সম্পন্ন হওয়ার জন্য নির্ধারিত প্রকল্পের কাজ সময়মতো শেষ না হলেও নতুন নতুন প্রকল্প গ্রহণ বাড়তেই থাকে। এডিপিতে বরাদ্দসহ মোট প্রকল্প ছিল এক হাজার ৫৬৪টি। আর এডিপিতে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৭৪৩টি। এতে বোঝা যায়, প্রকল্পের কাজ শেষ করার বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের যতটা অনাগ্রহ, নতুন প্রকল্প গ্রহণের ক্ষেত্রে তত বেশি আগ্রহ। এক্ষেত্রে প্রকল্পকাজ যথাসময়ে সম্পন্নের বিষয়ে সরকারের বিশেষ উদ্যোগ কাম্য। যেসব প্রকল্প পরিচালক সময়মতো কাজ শেষ করতে পারবেন না, তাদের জবাবদিহির আওতায় আনা যেতে পারে। একই সঙ্গে প্রকল্প পরিচালকরা যাতে সময়মতো কাজ শেষ করতে আগ্রহী হন, সে জন্য ভালো প্রকল্প পরিচালকের জন্য প্রণোদনা বা পুরস্কারের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। উন্নয়নকাজ ত্বরান্বিত করতে সরকার এসব বিষয় বিবেচনায় নেবে বলে আমাদের প্রত্যাশা।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..