স্পোর্টস

নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিতে চান শান্ত

ক্রীড়া প্রতিবেদক: গত সেপ্টেম্বরে দেশের মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজে দুটি টি-টোয়েন্টি খেলে ভালো না করায় বাদ পড়েছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। এবারের বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) শুরুটাও ছিল তার চরম বাজে। তবে পরে কিছুটা রানে ফিরেন। শেষদিকে দুটি ম্যাচে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন। যে কারণে এক বছর পর দলে ফিরেছেন তিনি। গতকাল অনুশীলন শেষে এ বাঁহাতি ব্যাটসম্যান জানিয়েছেন, আসন্ন পাকিস্তান সফরে ভালো খেলে নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিতে চান।

গেল বিপিএলে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের হয়ে ১৮ ম্যাচে ৪৯ দশমিক ১১ গড়ে ৪৪২ রান করেন ইমরুল কায়েস। তাই পাকিস্তান সফরের জন্য নির্বাচকদের বিবেচনায় তিনিই ছিলেন। কিন্তু হঠাৎ করে চোটে পড়ায় তার জায়গায় এক বছর পর জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। ব্যাপারটি কয়েকদিন আগেই নিশ্চিত করেন নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন।

কার চোটে জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েছেন, ব্যাপারটি নিয়ে মোটেও ভাবছেন না নাজমুল। তার চিন্তা শুধু পাকিস্তান সফরে কীভাবে ভালো খেলে নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দেওয়া যায়, ‘কীভাবে দলে আসলাম, এ নিয়ে খুব বেশি চিন্তা করছি না। আমার পরিকল্পনায় এখন পাকিস্তান সিরিজ। সেখানে যদি আমার সক্ষমতা অনুযায়ী খেলতে পারি ইনশাল্লাহ্? ভালো করা সম্ভব হবে।’

নিরাপত্তা ইস্যুর কারণে বহুদিন ঝুলে ছিল বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর। নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা পাওয়ার আশ্বাস পেয়ে অবশেষে চূড়ান্ত হয়েছে বহু চর্চিত পাকিস্তান সফরটি। তবু এখনও পাকিস্তান নিয়ে ভীতি কাজ করছে অনেকের মনেই। তবে নাজমুল হোসেন শান্ত মনে করছেন, পাকিস্তানে নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই।

ইমার্জিং এশিয়া কাপ খেলতে ২০১৮ সালে পাকিস্তানে যায় বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল। সে সফরে দলের সঙ্গে ছিলেন শান্ত। সে সময় পাকিস্তানে কোনো ধরনের বিপাকে পড়তে হয়নি বাংলাদেশকে। সুরক্ষিতভাবেই দেশে ফেরেন নুরুল হাসান সোহান-শান্তরা।

পাকিস্তান সফরের সে অভিজ্ঞতা থেকে বাকিদের সাহস দিয়ে শান্ত বলেন, ‘ওখানে পরিবেশ সবসময় অনেক ভালো ছিল। আমরা যখন গিয়েছিলাম, খুব বেশি আমাদের ও রকম সমস্যা হয়নি। তাই এগুলো নিয়ে আসলে চিন্তা করছি না। পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে খেলাটাকেই ফোকাস করছি।’

আগামীকাল রাতে পাকিস্তানের উদ্দেশে রওনা দেবে বাংলাদেশ দল। প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে অংশ নিতে মাঠে নামছে ২৪ জানুয়ারি। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের আগে আর কোনো প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে না মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। এতে চিন্তিত নন শান্ত,  ‘আমার কাছে খুব বেশি সমস্যা মনে হচ্ছে না। কারণ সবাই খেলার মধ্যেই আছে। সবাই বিপিএলে খেলেছে এবং পারফর্মও করেছে। প্রস্তুতির কথা যদি বলি তাহলে বলব সবাই খুব ছন্দে আছে। প্রস্তুতি ম্যাচ হচ্ছে না, এটা নিয়ে খুব একটা সমস্যা হবে না বলে মনে করি।’

সিরিজ জয় নিয়ে আপাতত ভাবছেন না শান্ত। প্রতিটি ম্যাচকে আলাদাভাবে গুরুত্ব দিতে চাইছেন তিনি, ‘টি-টোয়েন্টিতে যে কোনো দল যে কোনো দিন জিততে পারে। সিরিজ নিয়ে আমরা ওভাবে চিন্তা করছি না। আমরা ম্যাচ বাই ম্যাচ খেলব। প্রথম লক্ষ্য থাকবে প্রথম ম্যাচটি নিয়ে। টি-টোয়েন্টিতে যেদিন যে দল ভালো খেলে সে দলের জেতা সম্ভব। আমরা সুনির্দিষ্ট ওই দিনকে নিয়ে ফোকাস করছি।’

আগামী ২৪ জানুয়ারি তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। পরের দুই ম্যাচ ২৫ ও ২৭ জানুয়ারি। এরপর দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথমটি খেলতে দ্বিতীয় দফায় পাকিস্তানে যাবে মুমিনুল হকের দল। তৃতীয় দফায় দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচের আগে একটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে দুই দল।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..