খবর

নির্মাণাধীন ভবনে মশার প্রজননস্থল পাওয়া গেলে ব্যবস্থা: সাঈদ খোকন

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর নির্মাণাধীন ভবনগুলোয় এডিস মশার প্রজননস্থল পাওয়া গেলে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন। তিনি বলেন, ‘যেসব ভবনে এডিস মশার প্রজননস্থল বা প্রজনন হতে পারে এমন পরিবেশ পাওয়া যাবে, সেগুলোর মালিকের বিরুদ্ধে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে মোবাইল কোর্ট বা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
গতকাল রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ঢাকা শিশু হাসপাতালে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত চিকিৎসাধীন শিশুদের দেখতে গিয়ে সাঈদ খোকন এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, ‘আমরা দেখেছি নির্মাণাধীন ভবনে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোগের বাহক এডিস মশার প্রজনন অন্যান্য জায়গার চেয়ে বেশি। বিভিন্ন ভবন মালিককে আমরা এ বিষয়ে সচেতন হতে বলেছি, যেন তাদের ভবনে এডিস মশা প্রজননের পরিবেশ সৃষ্টি না হয়। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, তারা এ বিষয়ে আমাদের সহযোগিতা করছেন না। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, এসব ভবনে প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে।’
ডিএসসিসি মেয়র আরও বলেন, অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতি এড়াতে আমি ভবন মালিক ও প্রতিষ্ঠানকে অনুরোধ করছি যত দ্রুত সম্ভব জমে থাকা পানি পরিষ্কার করুন, এডিস মশার প্রজননক্ষেত্র ধ্বংস করুন। এ শহরকে বাসযোগ্য নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে সহযোগিতা করুন। ডিএসসিসির স্বাস্থ্য বিভাগ কর্তৃক চিহ্নিত নির্মাণাধীন ওইসব ভবনে এডিস মশার প্রজননস্থল ধ্বংসে আজ থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত শুরু হবে। এডিস মশার প্রজননস্থল এবং লার্ভা পাওয়া গেলে ওইসব নির্মাণাধীন ভবন ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
তিনি বলেন, ‘আমাদের পাঁচটি অঞ্চলের পাঁচজন আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা আছেন। নিজস্ব ম্যাজিস্ট্রেট ছাড়াও অনেক কর্মকর্তার ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা
আছে। তাদের এরই মধ্যে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যতদিন ডেঙ্গু পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হবে, ততদিন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা চলবে।’

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..