প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

নেপালে হ্যান্ডসেট রপ্তানি করছে সিম্ফনি

নিজস্ব প্রতিবেদক: নেপালে রপ্তানি হবে দেশে তৈরি সিম্ফনি স্মার্টফোন। নেপালের একটি স্বনামধন্য কোম্পানি অ্যাপেক্স গ্রুপ সিম্ফনির কাছ থেকে এই স্মার্টফোন নিচ্ছে। ২০২১ সালের অক্টোবর থেকেই নেপালে মোবাইল ফোন রপ্তানি শুরু করেছে সিম্ফনি। প্রথমবার তিনটি মডেলের প্রায় ১৫ হাজার মোবাইল সরাসরি অ্যাপেক্স গ্রুপের কাছে পাঠানো হয় এবং প্রতি মাসে বিভিন্ন মডেলের প্রায় ১০ হাজার করে পণ্য সিম্ফনি মোবাইলের হয়ে তারা নেপালে বাজারজাত করবে।

সিম্ফনি জানিয়েছে, বাংলাদেশ থেকে সিম্ফনি মোবাইল প্রথম সরাসরি ব্র্যান্ড নেম নিয়ে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ ট্যাগযুক্ত স্মার্টফোন রপ্তানি করছে। একে তারা দেশের রপ্তানি খাতে নতুন এক মাইলফলক হিসেবে উল্লেখ করছে।

গতকাল ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ খলিলুর রহমান এবং বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর শিকদারের উপস্থিতিতে সিম্ফনির ম্যানেজিং ডিরেক্টর জাকারিয়া শাহীদ কেক কেটে নেপালে সিম্ফনি মোবাইল মোবাইল ফোন রপ্তানির ঘোষণা দেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী বলেন, আমি প্রথমে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে এডিসন গ্রুপের সিম্ফনি মোবাইল ব্র্যান্ডকে অভিবাদন জানাই। বাংলাদেশে তারাই একটি মাত্র ব্র্যান্ড যারা কোনো ধরনের বৈদেশিক বা সরকারি সাহায্য ছাড়াই নিজস্ব উদ্যোগে এত বড় একটি কারখানা পরিচালনা করছে। তিনি সিম্ফনি মোবাইলকে অতি শিগগির আরও ৫০টি দেশে দেখতে চান বলে জানান এবং এর জন্য সব ধরনের সহযোগিতা করবে বাংলাদেশ সরকার।

তিনি আরও বলেন, সিম্ফনি মোবাইলের এই মোবাইল ফোন ফ্যাক্টরিটি আমার দেখা সবচেয়ে উন্নতমানের ফ্যাক্টরি।

জাকারিয়া শাহীদ বলেন, সিম্ফনি মোবাইল বাংলাদেশের ব্র্যান্ড। বাংলাদেশ থেকে আমরা প্রতি মাসে ১০ হাজার প্রডাক্ট নেপালের মার্কেটে রপ্তানি করব। আমাদের ফ্যাক্টরিতে প্রতি মাসে ১০ লাখ প্রডাক্ট আমরা উৎপাদন করতে

 পারি। এ ফ্যাক্টরিতে এক হাজার ৫০০ মানুষ কাজ করছেন। পাশাপাশি আরও কয়েক লাখ মানুষ প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে এই উৎপাদন কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত। ২০২২ সালে নেপাল বাদেও আমরা নাইজেরিয়া, সুদান, ভিয়েতনাম, শ্রীলঙ্কায় আমাদের মোবাইল ফোন রপ্তানির পরিকল্পনা করছি।

২০১৮ সালে সিম্ফনি মোবাইল উৎপাদন শুরু করে আশুলিয়ার জিরাবোয় একটি কারখানায়। বর্তমানে আশুলিয়ার আউকপাড়া ডেইরি ফার্মে নিজস্ব জমিতে সিম্ফনি মোবাইলের কারখানাটি প্রায় দুই লাখ বর্গফুট জায়গার ওপর নির্মিত, যেখানে বছরে প্রায় এক কোটি ২০ লাখ মোবাইল ফোন উৎপাদিত হচ্ছে।

স্মার্টফোনের পাশাপাশি মোবাইল ফোনের নানা যন্ত্রাংশ ও অ্যাকসেসরিজও তৈরি করছে সিম্ফনি। কারখানায় প্রতি মাসে আট লাখ চার্জার, আট লাখ ব্যাটারি ও আট লাখ ইয়ারফোন উৎপাদিত হচ্ছে, সামনে তা আরও বাড়বে বলে জানিয়েছে সিম্ফনি কর্তৃপক্ষ। এছাড়া মেড ইন বাংলাদেশ ট্যাবলেটের ঘোষণাও দিয়েছেন জাকারিয়া শাহীদ।