প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

নোট ৭ সংকট সত্ত্বেও স্যামসাংয়ের মুনাফা চাঙা

শেয়ার বিজ ডেস্ক: গ্যালাক্সি নোট ৭ ব্যাটারি বিস্ফোরণ সংকট সত্ত্বে চতুর্থ প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর) স্যামসাং ইলেকট্রনিকসের মুনাফা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫০ শতাংশ বেশি হবে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। বিশেষজ্ঞদের পূর্বাভাসের তুলনায় এটি অনেক বেশি এবং ২০১৩ সালের পর প্রান্তিকীয়

মুনাফা এটিই সর্বোচ্চ। খবর বিবিসি।

গত অক্টোবরে বিশ্বের বৃহৎ স্মার্টফোন তৈরিকারক কোম্পানিটি ব্যাটারি বিস্ফোরণের পর গ্যালাক্সি নোট ৭ সংকটে পড়ে। প্রায় ২৫ লাখ বিক্রীত ফোন নিয়ে বিপাকে পড়ে স্যামসাং। ফোনগুলো বদল করলেও তাতে আবারও বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। ফলে উৎপাদন বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয় প্রতিষ্ঠানটি। এতে মনে করা হয়েছিল প্রতিষ্ঠানটির মুনাফায় নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। কিন্তু শঙ্কা কাটিয়ে চতুর্থ প্রান্তিকে প্রতিষ্ঠানটির মুনাফা আরও বেশি বৃদ্ধি পাচ্ছে। মুনাফা বৃদ্ধিতে স্যামসাংয়ের সেমিকন্ডাকটর ও ডিসপ্লে ব্যবসা বড় ভূমিকা রেখেছে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রযুক্তি জায়ান্ট জানিয়েছে, সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর সময়ে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালন মুনাফা ৭ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছানোর প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

জানুয়ারির শেষের দিকে চতুর্থ প্রান্তিকে আয়ের হিসাব প্রকাশ করবে স্যামসাং। তখন আরও স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যাবে প্রতিষ্ঠানের খাতভিত্তিক আয়ের।

ইন্টারন্যাশাল ডেটা করপোরেশনের (আইডিসি) প্রযুক্তি পরামর্শক ব্রেয়ান মা বলেন, ব্যাটারি বিস্ফোরণের পর গত দুই মাস এ নিয়েই সবাই কথা বলেছে। কিন্তু স্মার্টফোনই যে কোম্পানিটির একমাত্র ব্যবসা নয়, সেটা আলোচনায় আসেনি। এর মেমোরি ও ডিসপ্লে খুবই লাভজনক ব্যবসা, যেটা চতুর্থ প্রান্তিকে স্যামসাংয়ের প্রত্যাশার চেয়ে বেশি মুনাফা অজর্নে সহায়তা করেছে।

চতুর্থ প্রান্তিকে প্রথম দিকে স্যামসাং জানিয়েছিল, তারা আশঙ্কা করছে নোট ৭ প্রত্যাহারে দুই দশমিক এক বিলিয়ন ডলার মুনাফা কম হবে।

এর আগে সেপ্টেম্বরে চার্জ অবস্থায় নোট ৭ ফোন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। কয়েকটি উড়োজাহাজ সংস্থা স্যামসাংয়ের এ স্মার্টফোনটি বহন করে বিমানে যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞাও জারি করে। যুক্তরাষ্ট্রের কনজিউমার প্রোডাক্ট সেফটি কমিশন (সিপিএসসি)-এর তথ্যমতে, যুক্তরাষ্ট্রেই বিস্ফোরণের ৯২টি ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ৫৫টি বিস্ফোরণের ঘটনায় ক্ষতির ঘটনাও ঘটে। ফলে ব্যাপক সমালোচনার সম্মুখীন হতে হয় নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটিকে। বিশ্বব্যাপী গ্রাহক নিরাপত্তা ও সুনাম রক্ষায় তাৎক্ষণিক প্রায় ২৫ লাখ নোট ৭ প্রত্যাহার করে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিল প্রতিষ্ঠানটি। কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ত্রুটিমুক্ত নতুন ডিভাইস সরবরাহের আশ্বাস দেওয়া হয়। সে অনুযায়ী ত্রুটিযুক্ত ডিভাইস ফেরত নিয়ে ঝুঁকিমুক্ত নতুন ডিভাইস সরবরাহ শুরুও করেছিল সংশ্লিষ্টরা।

দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক স্যামসাংয়ের পক্ষ থেকে পরিবর্তন করে দেওয়া ডিভাইসগুলোকে অগ্নি ঝুঁকিমুক্ত বলে দাবি করার পর সাউথওয়েস্ট এয়ারলাইনসের একটি উড়োজাহাজে পরিবর্তিত গ্যালাক্সি নোট ৭ স্মার্টফোনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এয়ারলাইনসটি জানায়, তাদের একটি উড়োজাহাজ উড্ডয়নের ঠিক আগ মুহূর্তে একজন যাত্রীর নোট ৭ ডিভাইসে আগুন ধরে যায়। ফোনগুলোও বিভিন্ন স্থানে বিস্ফোরিত হওয়ায় স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭ বিক্রিই বন্ধ করে দিয়েছে এবং নতুন ফোনগুলো বাজারে ছেড়েছিল সেগুলো ফিরিয়ে নিয়েছে। শুধু তাই নয় নোট ৭ উৎপাদন এবং বাজারজাতও পুরোপুরি বন্ধ ঘোষণা করেছে স্যামসাং।