প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

পতনের বাজারে কোনো খাতই ভালো অবস্থানে ছিল না

রুবাইয়াত রিক্তা: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল ৭৮ শতাংশ কোম্পানির দর পতনে সূচকের বড় পতন হয়। দর বেড়েছে মাত্র ১৫ শতাংশ বা ৫৫টি কোম্পানির। ক্ষুদ্র ও বৃহৎ সব খাতেই ছিল দরপতনের আধিক্য। কোনো খাতই ভালো অবস্থানে ছিল না। এছাড়া সূচকে প্রভাব বিস্তারকারী ইউনাইটেড পাওয়ার, গ্রামীণফোন, বিএটিবিসি, আইসিবি, ব্র্যাক ব্যাকের দরপতন সূচকের পতন আরও ত্বরান্বিত করেছে।
ডিএসইতে মোট লেনদেনের এক পঞ্চমাংশ বা ২০ শতাংশ বা ৮৩ কোটি টাকা লেনদেন হয় ওষুধ ও রসায়ন খাতে। এ খাতে ৪০ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা সিলকো ফার্মার সাড়ে ১৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা ১০ পয়সা। ওরিয়ন ইনফিউশনের প্রায় ১৩ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দরপতন হয় তিন টাকা ৭০ পয়সা। বীকন ফার্মার প্রায় ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৩০ পয়সা। জেএমআই সিরিঞ্জের আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ১০ টাকা ৯০ পয়সা। অ্যাডভেন্ট ফার্মার সোয়া সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে এক টাকা ২০ পয়সা। কোম্পানিটি দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে। ১৫ শতাংশ লেনদেন হয় প্রকৌশল খাতে। এ খাতে মাত্র ছয়টি কোম্পানির দর বেড়েছে। মুন্নু জুট স্টাফলার্সের সাড়ে আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ১১ টাকা ২০ পয়সা। সাড়ে চার শতাংশ বেড়ে বেঙ্গল উইন্ডসর থার্মোপ্লাস্টিকস দর বৃদ্ধিতে তৃতীয় অবস্থানে উঠে আসে। জ্বালানি ও বস্ত্র খাতে ১১ শতাংশ করে লেনদেন হয়। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে মাত্র চারটি কোম্পানির দর বেড়েছে। লেনদেনের শীর্ষে থাকা ইউনাইটেড পাওয়ারের প্রায় ২২ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দরপতন হয় ১৮ টাকা ৭০ পয়সা। বস্ত্র খাতে মাত্র পাঁচ কোম্পানির দর বেড়েছে। দর বৃদ্ধির শীর্ষ ৯-এ অবস্থান করে উৎপাদন বন্ধ থাকা আলহাজ্ব টেক্সটাইলের। কোম্পানিটির দর প্রায় চার শতাংশ বেড়েছে। ভিএফএস থ্রেড ডায়িংয়ের পৌনে আট কোটি টাকা লেনদেন হয়। দরপতন হয় আড়াই টাকা। এছাড়া আর কোনো খাতে উল্লেখযোগ্য লেনদেন হয়নি। ভ্রমণ ও অবকাশ, টেলিযোগাযোগ, সেবা ও আবাসন, কাগজ ও মুদ্রণ খাত শতভাগ নেতিবাচক ছিল। গ্রামীণফোনের তিন টাকা ৪০ পয়সা, বিএটিবিসির দর ৯ টাকা ৪০ পয়সা, ব্র্যাক ব্যাংকের দর ৮০ পয়সা ও আইসিবির এক টাকা ১০ পয়সা দরপতন হয়। এদিকে ধারাবাহিকভাবে লভ্যাংশ না দেওয়ার কারণে সম্প্রতি ডিএসই জেড ক্যাটেগরির চার কোম্পানির ব্যবসায়িক ও অন্যান্য কার্যক্রম তদন্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কোম্পানি চারটি হচ্ছে আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, ইনফরমেশন সার্ভিসেস নেটওয়ার্ক, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ ও বিচ হ্যাচারি।

ট্যাগ »

সর্বশেষ..