দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

পতনের বাজারে হিসাবি হচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা

মুস্তাফিজুর রহমান নাহিদ: পুঁজিবাজারে সম্প্রতি পতনমুখী প্রবণতা বিরাজ করছে। প্রায় দিনই কমছে সূচক। পাশাপাশি কমে যাচ্ছে লেনদেন হওয়া বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার এবং মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিটদর। এর জের ধরে কমে যাচ্ছে লেনদেনও। সম্প্রতি লেনদেন ৬০০ কোটি টাকার নিচে নেমে এসেছে। গতকাল তা ৫০০ কোটি টাকার নিচে নেমে আসে।

গতকালের বাজার পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, দিন শেষে ডিএসইতে মোট ৪৯৫ কোটি টাকার শেয়ার এবং মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট কেনাবেচা হয়। এর মধ্য দিয়ে লেনদেন নেমে গেছে চার মাস আগের অবস্থানে। এর আগে চলতি বছরের ২৯ জুলাই এর চেয়ে কম লেনদেন হতে দেখা যায়। সেদিন ডিএসইতে মোট ৩৯৯ কোটি টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট কেনাবেচা হয়েছিল।

এদিকে সাম্প্রতিক সময়ে লেনদেন হ্রাস পাওয়ার জন্য বাজারে আইপিও আবেদন চলমান থাকাকে দায়ী করছেন সংশ্লিষ্ট সবাই। বর্তমানে বাজারে চলছে বহুজাতিক কোম্পানি রবির আইপিও। এ কারণে অনেকেই সেকেন্ডারি মার্কেটে বিনিয়োগ না করে আইপিওতে আবেদন করছেন। একইভাবে যারা বাজারে সক্রিয় রয়েছেন তারা ভিন্ন নামে বিও অ্যাকাউন্ট করেও রবির আইপিওর জন্য আবেদন করছেন।

অন্যদিকে সম্প্রতি প্রতি মাসেই গড়ে দুটি করে আইপিও থাকছে; যার কারণে হাতে টাকা রেখে দিচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা। যার প্রভাব পড়ছে সেকেন্ডারি মার্কেটে। আর বাজার চিত্র নি¤œ দেখেও অনেকেই নতুন বিনিয়োগ থেকে দূরে সরে রয়েছেন। সব মিলে সেকেন্ডারি মার্কেট তার স্বাভাবিক চিত্র হারাচ্ছে।

এদিকে গতকালের বাজারেও কোনো খাতের একক আধিপত্য ছিল না। তবে তুলনামূলকভাবে কিছুটা এগিয়ে ছিল বিমা খাত। গতকাল দিন শেষে মোট লেনদেনে এ খাতের একক অবদান দাঁড়ায় ২১ শতাংশের বেশি। অন্য খাত বিবর্ণ থাকলেও এ খাতের কিছু প্রতিষ্ঠানের শেয়ারদর বাড়তে দেখা যায়। তবে দর বৃদ্ধির হার ছিল খুবই সামান্য।

অন্যদিকে দর কমলেও লেনদেনে শীর্ষে ছিল ওষুধ ও রসায়ন খাত। গতকাল দিন শেষে মোট লেনদেনে এ খাতের অবদান দেখতে পাওয়া যায় ২৩ শতাংশের কিছু বেশি। পরের অবস্থানে ছিল মিউচুয়াল ফান্ড। গতকালও তালিকাভুক্ত সিংহভাগ ফান্ডের ইউনিটদর কমতে দেখা যায়। দিন শেষে মোট লেনদেনে এ খাতের অবদান দেখতে পাওয়া যায় ১৫ শতাংশ। এছাড়া অন্য খাতগুলোয় তেমন আগ্রহ ছিল না বিনিয়োগকারীদের।

অন্যদিকে গতকালও বাজারে বড় ধরনের পতন দেখা গেছে। গতকাল দিন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক কমতে দেখা যায় ৩৪ পয়েন্ট। দিন শেষে সূচক স্থির হয় চার হাজার ৮৪৫ পয়েন্টে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..