স্পোর্টস

পদত্যাগ করবেননা দুর্জয়

ক্রীড়া প্রতিবেদক:ক্রিকেটারদের স্বার্থ দেখার জন্য কাজ করার কথা ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (কোয়াব)। কিন্তু সংস্থাটি ব্যর্থ হয়েছে। যে কারণে সভাপতি নাঈমুর রহমান দুর্জয় ও সাধারণ সম্পাদক দেবব্রত পালের পদত্যাগ দাবি করেন ক্রিকেটাররা। তবে গতকাল দুর্জয় জানিয়ে দেন, কোয়াব থেকে পদত্যাগের প্রশ্নই আসে না।

ক্রিকেটাররা যাকে নির্বাচন করবে তিনিই হবেন কোয়াবের সভাপতি। কিন্তু এখনই পদত্যাগ করছেন না বলে জানিয়েছেন দুর্জয়, ‘আমি বলছি, নির্বাচন আসুক আগে। সেখানে যার সমর্থন সবচেয়ে বেশি, যাকে ক্রিকেটাররা চাইবেÑতাকেই নির্বাচিত করবে। সেখানে আমি হই কিংবা অন্য যে কেউ হোকÑহতে পারে। অথচ কেউ কেউ বলছে, আমি নাকি পদত্যাগ করছি। কিন্তু এটা ভুল। আমি পদত্যাগ করছি না।’

ক্রিকেটারদের স্বার্থের জন্য কাজ তরে যাচ্ছেন দুর্জয়। এ জন্য পদত্যাগের চিন্তায় করছেন না তিনি, ‘আমি পদত্যাগ করব কেন? আমি তো এখনও ক্রিকেটারদের জন্যই লড়ে যাচ্ছি। প্লেয়ারদের- যেমন- শাহাদাত হোসেন রাজিব, রুবেলদের বিপদের সময় আমরাই শেল্টার দিয়েছি। এখনও তাদের নানা সমস্যায় আমরা সব সময়ই কথা বলি, সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করি।’

ধর্মঘট কিংবা ক্রিকেটাররা তাদের দাবি-দাওয়া নিয়ে এবার কোয়াবের কারও কাছে আসেনি। দাবি করেন দুর্জয়, ‘প্লেয়াররা বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে সব সময়ই আমাদের কাছে আসত; কিন্তু এবার আমাদের কাছে আসেনি তারা। তাদের এসব বিষয় নিয়ে আমরা কিছুই জানতাম না।’

কোনো কাদা ছোড়াছুড়ি চান না দুর্জয়। বক্তব্য পাল্টা বক্তব্য চলুক, সেটাও কাম্য নয় বলে জানিয়েছেন সাবেক এ ক্রিকেটার, ‘কোয়াব প্রেসিডেন্ট হিসেবে নয়, বোর্ড পরিচালক হিসেবেও নয়, দিন শেষে আমিও জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার, অধিনায়ক। যারা দাবি-দাওয়া পেশ করেছে তারাও বর্তমান জাতীয় দলের ক্রিকেটার। হয়তো বা তারা আমার চেয়ে বড় স্টার। তবে আমরা উভয়ই দেশের জন্য খেলেছি এবং সেটা বাংলাদেশের জন্য। অন্য কোনো দেশের জন্য নয়। আমি কোনো কাদা ছোড়াছুড়ি চাই না। বক্তব্য পাল্টা বক্তব্য চলুক, সেটাও কাম্য নয়। তাতে তিক্ততাই বাড়বে শুধু। পরিস্থিতির একটা গ্রহণযোগ্য সমাধান অবশ্যই কাম্য। কোয়াবের পক্ষ থেকে প্রস্তুত আমাদের কাছে এলে আমরা মধ্যস্ততা করতে সাধ্যমতো চেষ্টা করব।’

সর্বশেষ..